স্বাবলম্বী শামসুল আলম

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শাহাদাত হোসেন, রাউজান প্রতিনিধিঃ
রাউজান উপজেলার কদলপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের আশরাফ নগর কমলা টিলার মৃত আবুল কাসেম এর পুত্র মো: শামসুল আলম।তার সংসার চলতো অনেক দুঃখ কষ্টের মধ্য দিয়ে। তবে তিনি এখন পরিবার পরিজন নিয়ে অনেকটা সুখে শান্তিতে জীবনযাপন করছেন।শাহানশাহ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (কঃ) ট্রাস্ট পরিচালিত দারিদ্র্য বিমোচন প্রকল্প থেকে ২০১৮ সালে পাওয়া একটি কলের লাঙ্গল দিয়ে এখন স্বাবলম্বী তিনি। মোহাম্মদ শামসুল আলম তার স্ত্রী ও দুই ছেলে সন্তান নিয়ে অনেক সুখে জীবনযাপন করছেন এখন। হতদরিদ্র শামসুল আলম ছাড়াও শাহানশাহ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (কঃ) ট্রাস্ট থেকে বিভিন্ন জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের হতদরিদ্র মানুষকে নানাভাবে আর্থিক সহযোগিতা দিয়ে স্বাবলম্বী করে তুলছেন। এই ট্রাস্টে মেয়ে বিবাহ থেকে শুরু করে গৃহ নিমাণ, ব্যবসায়ী পুঁজি, কলের লাঙ্গল, ঋণ পরিশোধ, গবাদি পশুর খামার, হাঁস মুরগি খামার, মৎস্য খামার, রিক্সা ও অটোরিক্সা, সিএনজি চালিত ট্যাক্সি , ভ্যান গাড়ি, বিদেশ গমন, কম্পিডার, নারীদের সেলাই মেশিন, ইট ভাঙ্গার মেশিন, চিকিৎসা সহায়তা, শিক্ষা সহায়তাসহ বিভিন্ন প্রকল্পের খাত রয়েছে। এসব প্রকল্প থেকে আর্থিক সহায়তায় দিয়ে হতদরিদ্র পরিবারদের স্বাবলম্বী করছেন এ ট্রাস্ট। ট্রাস্ট থেকে কলের লাঙ্গল পাওয়া শামসুল আলমের স্বাবলম্বীর কথা কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি পেশায় একজন কৃষক ছিলাম। তার পাশাপাশি সিএনজি চালিত ট্যাক্সি চালাতাম। সারা দিন গাড়ী চালিয়ে যা টাকা আয় হত তার বেশীর ভাগ মালিক’কে দিয়ে দিতে হতো, বাকী যা থাকতো তা দিয়ে সংসারের খরচ চালাতে মাসের শেষে কর্জ করতে হতো। নিজে একটি গাড়ী কিনব-সেই রকম টাকা-পয়সাও ছিলনা আমার। সংসারের খরচ চালাতে অনেক কষ্ট হতো। আমি একদিন মাইজভাণ্ডারী গাউসিয়া হক কমিটি কদলপুর শাখার মাধ্যমে জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (কঃ) ট্রাস্ট বরাবর আবেদন করি। এরপরে আমাকে এ ট্রাস্ট থেকে একটি কলের লাঙ্গল ক্রয় করে দেন। কলের লাঙ্গলটি পাওয়ার পর দু’বছর চালিয়েছি, প্রতি মৌসুমে খরচবাদ দিয়ে ৫০ হাজার টাকা আয় করেছি। নিজেও চাষাবাদ করি। কিছু কর্জ ছিল যা ইতোমধ্যে পরিশোধ করেছি। বর্তমানে ঘরে মধ্যে এক বছরের ধান মজুদ আছে। পরিবারে তেমন একটা অভাব আর নাই। তিনি আরো বলেন সবচেয়ে খুশি কথা হচ্ছে আমার বড় ছেলে কিছু দিনের মধ্যে হাফেজ হয়ে মাদ্রাসা থেকে বের হবে। ছোট ছেলে পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ে। এখন আমি আল্লাহর রহমতে ও শাহানশাহ জিয়াউল হক মাইজভান্ডারীর দয়ায় অনেক সুখে আছি ।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.