স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা তোফায়েলের বিরুদ্ধে সরকারি জায়গায় দোকান নির্মাণ করে বিক্রির অভিযোগ

আব্দুর রকিব, মুন্সীগঞ্জ সংবাদদাতা:

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শ্রীনগর উপজেলার কুকুটিয়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী মো. তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে
সরকারি জায়গা দখল করে দোকানঘর নির্মাণ করে বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও তার
বিরুদ্ধে কুকুটিয়া বাজার সংলগ্ন উত্তর দিকে পাকা রাস্তার পশ্চিম পাশে একটি মালিকানা জমি দখলের
পায়তারার অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় ভূক্তভোগী মকবুল হোসেন (বাচ্চু) গং মুন্সীগঞ্জ জেলা শ্রীনগর
সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১৬৫/২০১৫। ওই মামলায় তাকে ২নং আসামী
করা হয়েছে। সাবেক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ কুকুটিয়া ইউনিয়নের সুরদীয়া
গ্রামের মরহুম আলীর ছেলে।

স্থানীয় ও ভূক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক থাকাকালীন
সময়ে কুকুটিয়া মৌজায় ২নং খতিয়ান, আরএস ৮৪১ ও ৮৪৯নং দাগে সরকারি সম্পতি দখল করে প্রায়
১২/১৪টি দোকান নির্মাণ করে বিভিন্ন জনের কাছে বিক্রি করেন তোফায়েল সিন্ডিকেট। এরই মধ্যে
স্থানীয় ভূমি অফিসের রাস্তার জন্য কয়েকটি দোকান ভাঙা পরলে ভূক্তভোগীরা বেকায়দায় পরেন। এনিয়ে
মাঝে মধ্যেই ক্ষতিগ্রস্তরা এলাকায় কানাঘুষা করলেও সিন্ডিকেটের ভয়ে প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলতে
চাননা। অপরদিকে কুকুটিয়া মৌজায় ২৪৪নং খতিয়ানে সিএস ৪৮৫, ৪৮৬, ৪৮৭, ৪৮৮ ও ৪৮৯নং দাগে
এক একর মালিকানা সম্পত্তি দখল নেওয়ার চেষ্টা করে তোফায়েল গং। পরে জমির মালিক মকবুল হোসেন
বাচ্চু গং আদালতে মামলা দায়ের করেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, তোফায়েল আহমেদ কুকুটিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ লাভের
আসায় প্রচার চালিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অপরদিকে তার বিগত সময়ে সরকারি জায়গা দখল করে
দোকান নির্মাণ ও মালিকানা সম্পত্তি দখল চেষ্টার বিষয়টি লোকমুখে আলোচনায় উঠে আসে।
কুকুটিয়া বাজারের মিষ্টির দোকানী ভূক্তভোগী মিঠু ও তার ভাই জনি বলেন, কয়েক বছর আগে তোফায়েল
আহমেদ দোকান দেয়ার নাম করে দেড় লাখ টাকা নেয়। আজ পর্যন্ত দোকান ও টাকার কোনটাই পাচ্ছেনা
তারা। না প্রকাশে অনিচ্ছুক অপর এক ভূক্তভোগী অভিযোগ করে বলেন, ভূমি অফিসের রাস্তার জন্য তার
ক্রয়কৃত একটি দোকানটি ভাঙা পরে। তিনি এখন অন্য দোকান ভাড়ায় ব্যবসা করছেন। জাহাঙ্গীর নামে
এক দোকানী বলেন, দোকানটি তিনি ক্রয়সূত্রে মালিক। মাসিক ১২০০ টাকায় ভাড়া দিয়েছেন।
দোকানটি কার কাছ থেকে তিনি ক্রয় করলেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোন সুদত্তর দিতে পারেননি।
ভূক্তভোগী মকবুল হোসেন বাচ্চু গং সুত্রে জানা গেছে, নামজারী ও খাজনা পরিশোধ করে মালিকানা
সম্পত্তি ভোগদখলে থাকার পরেও তোফায়েল গং জমি জখলের চেষ্টা করে। এঘটনায় আদালতে মামলা চলমান
রয়েছে। অত্র এলাকাবাসী বিষয়টি আবগত আছেন।

তোফায়েল আহমেদের কাছে সরকারি জায়গায় দোকান ঘর নির্মাণ করে বিক্রি করার বিষয়ে জানতে
চাইলে প্রথমে তিনি অস্বীকার করেন। পরে দখলকৃত সরকারি সম্পত্তির দাগ নং উল্লেখ করে তার কাছে
জানতে চাইলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। মালিকানা সম্পত্তি দখল চেষ্টার মামলায় তাকে আসামী
করা হয়েছে। তিনি বলেন মামলাটি এখনো কোর্টে চলমান আছে।


শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.