সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০২:১৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

আশুলিয়ায় আইন শৃংখলার অবনতি গত২৪ ঘন্টায় একাধিক হামলা আশামীরা ধরা ছোয়ার বাহীরে

বিশেষ প্রতিবেদকঃ

ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানা পুলিশের আইন শৃংখলার অবনতি হয়েছে বলে একাধিক মামলার বাদীগন হতাশায় নিমজ্জিত হয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। জানাযায়, যুবলীগ নেত্রী আশুলিয়া থানার সদস্য মোছাঃ শাহানাজ পারভিন শোভা গত ১১এপ্রিল রবিবার বিকাল সারে ৪টার দিকে মেম্বর হাজী আবু সাদেক ভূইয়ার সন্রাসী বাহিনীর আক্রমণে আহত হয়ে, আশুলিয়া থানায় একটি হত্যাচেস্টা মামলা করার পরেও এ পর্যন্ত অভিযুক্ত কোন আসামি গ্রেপ্তার না করায়, আবারোও ২২এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টায় ৪০মিনিটে নারী নেত্রী শাহানাজ পারভীন শোভার নিজ ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে তার স্বামীকে আসামী হাজী আবু সাদেক ভূইয়া স্বসরিরে হামলা করে সোভাকে না পেয়ে তার স্বামী পলাশ মিয়াকে চাইনিজ চাপাতি এবং দেশীয় অস্ত্র স্বস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রায় ৪০/৫০ জনের একটি দলনিয়ে কোপাকোপি করার একপর্যায়ে, শোভা আক্তার নামে নিজ ফেচবুক আইডিতে এসে লাইভে আকুতি কাকুতি মিনতি করে স্বামীকে বাচানোর জন্য দেশবাসীসহ আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসির কাছে আকুতি জানান। এক পর্যায়ে ৯৯৯এ কল করে জানার ৪ঘন্টা অতিবাহিত হওয়ার পরে ৯৯৯ থেকে সাংবাদিকের সহযোগিতায় রাত ১১টায় পুলিশ ঘটনা স্হলে হাজীর হয়ে থানায় এজাহার করতে বলে, হামলায় আহত পলাশ মিয়াকে এনাম মেডিকেল কলেজে ভর্তি করেন এলাকাবাসী। পরে রাত ১টার সময় শাহানাজ পারভিন শোভা বাদী হয়ে থানায় অভিযোগ করে।

এদিকে জামগড়া এলাকায় সন্ত্রাসীরা এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে জামগড়া এলাকায় এঘটনা ঘটে।আহত ব্যবসায়ী জামগড়া উত্তর পাড়ার মো. নুরুল ইসলামের ছেলে মশিউর রহমান (২৮)।

এব্যাপারে আহত ব্যবসায়ীর ছোট ভাই হাসিবুল হাসান বাদি হয়ে ওই দিন রাতেই আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়,গত (২০ এপ্রিল) মঙ্গলবার সন্ধায় মোশারফ মার্কেট এলাকায় একটি ছেলেকে সন্ত্রাসীরা অহেতুক ভাবে বেধরক মারপিট করে।স্থানীয় কয়েকজন এই মারপিটের প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসীরা ক্ষিপ্ত হয়। পরের দিন (২১ এপ্রিল) রাত সাড়ে সাতটার দিকে মশিউর রহমান তারাবি নামাজ পড়তে মসজিদে যাওয়ার পথে মোঃ সোহাগ,কাউছার,তানভির,বাবু,পারভেজসহ অজ্ঞাত আরো ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মশিউরের উপর হামলা চালায়। এসময় মশিউরকে এলোপাথারী মারপিটসহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় কোপ মারে।মশিউরকে বাচাঁতে সবুজ ও নাইম নামের দুজন এগিয়ে আসলে তাদেরকেও বেধরক মারপিট করে এবং সবুজের মাথায় চাপাতি দিয়ে কোপ মারে। এখবর শুনে আত্মীয় স্বজন ঘটনা স্থলে গিয়ে তাদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে সবুজকে নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে এবং মশিউরকে মূমুর্ষ অবস্থায় সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করে।

এব্যাপারে স্থানীয় এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়,সন্ত্রাসীরা কেউ এএলাকার স্থানীয় না, তারা স্থায়ী কোনো কাজও করেনা। তারা এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে স্থানীয় প্রভাশালী এক ব্যক্তির ছত্রছাঁয়ায় মাদক ব্যবসা,চাদাবাজীসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে থাকে।তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না।এদের অপকর্মের বিরুদ্ধে কথা বললে তাঁর পরিনিতি মশিউরের মত হয়।

এদিকে ভুক্তভোগীর ছোট ভাই হাসিবুল হাসান জানান,তাঁর বড় ভাই মশিউর রহমানের অবস্থা খারাপ হওয়ায় চিকিৎসকরা তাকে আইসিইউ তে রেখে চিকিৎসা দিচ্ছেন,তবে থানায় মামলা না নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে উল্টো তাকেই ধমক দিচ্ছেন থানা পুলিশ। আসামীদের আটক করতেও কালক্ষেপণ করছেন বলে জানিয়েছে সে।
এব্যাপারে আশুলিয়া থানার ওসি (অপারেশন) আব্দুর রাশিদ বলেন,আসামীদের পিতার নাম এবং ঠিকানা উদঘাটন করে নিয়মিত মামলা হবে।আসামীদের আটকে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

গত ২১এপ্রিল রোজ বুধবার শফিকুল ইসলাম শফিক তার উপর হামলা মামলা করেন আশুলিয়া থানায় বাদী হয়ে। মামলায় উল্লেখিত আসামিরাও ধরা ছোওয়ার বাহীরে বলে এ প্রতিবেদককে তিনি জানান। এসব বিষয়ে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি কামরুজ্জামানের সংগে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আশুলিয়ায় নিজ ঘর থেকে কম্বলে মোড়ানো অবস্থায় সাজ্জাদ হোসেন নামের ৮ বছরের এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। প্রাথমিকভাবে ধারনা, ঘরে একা পেয়ে শিশুটিকে হত্যা করে সব কিছু লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় আশুলিয়ার বুড়িবাজার এলাকায় আব্দুল মান্নানের মালিকানাধীন ৬ তলা ভবনের ৫ম তলার একটি ফ্লাট থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শিশু সাজ্জাদ হোসেন ভোলা জেলার সদর থানার ইউসুফ হোসেনের ছেলে। ইউসুফ হোসেন তার স্ত্রী ও শিশু সাজ্জাদসহ আশুলিয়ায় বসবাস করে আসছিলো।

পরিবারের দাবী, স্বামী-স্ত্রী দুইজনই কর্মজীবি। প্রতিদিনের মতো কাজ শেষে শিশুর মা আগে বাড়ি ফিরে শিশু সাজ্জাদকে না পেয়ে খোজাখুজি শুরু করেন। পরে ঘরের বাথরুমের উপরের ফলস ছাদের ভিতরে কম্বলে মোড়ানো অবস্থায় তার মরদেহ দেখতে পান। পাশাপাশি ঘরে থাকা টাকা ও স্বর্ণাংলাকার লুট হয়।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) আব্দুর রাশিদ এ প্রতিবেদককে বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শিশু হত্যার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com