সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জুলাই থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ২০ হাজার টাকা মৌলভীবাজার জেলা সদর উপজেলা ১২ নং গিয়াসনগর ইউনিয়ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সৈয়দ গৌছুল হোসেন জনপ্রিয়তায় এগিয়ে। ভোলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেলেন ৩৭১ ভূমিহীন পরিবার নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ৬০০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ২ নজরপুর ইউনিয়নে জনমত জরিপে এগিয়ে যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জহির মুজিববর্ষের উপহার : ভূমিসহ ঘর পেলো হাটহাজারীর ২৬ পরিবার একাধিক হত্যা মামলার আসামী সোমেদ আলী গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১ নরসিংদী মডেল থানার অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী সুজন সাহা আটক আক্রান্তের নয়া রেকর্ড আনােয়ারায় ২৫ গৃহহীন পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রী’র ঘর উপহার

গাইবান্ধায় লকডাউনে সব কিছুই স্বাভাবিক

আনোয়ার হোসেন শামীম গাইবান্ধা প্রতিনিধি

গাইবান্ধায় মানুষের মাঝে লকডাউন মেনে চলার প্রবণতা নেই বললেই চলে। লকডাউনের চতুর্থ দিনে শহর ও গ্রামাঞ্চলের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা ছিল। এছাড়া রাস্তায় দেদারছে চলছে মটর সাইকেল, অটোবাইক ও সিএনজি চালিত অটোরিক্সা।

গাইবান্ধা জেলা শহরে ভ্রাম্যমান আদালত ও পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত থাকলেও জেলা শহরের ১নং ট্রাফিক মোড়, সান্দারপট্টি, মধ্যপাড়া রোড, স্টেশন রোড, বড় মসজিদ মোড়, গাইবান্ধা স্টেশন রোড কাচারী বাজার সংলগ্ন ব্রীজ রোডের পুরাতন ও নতুন ব্রীজ সংলগ্ন মোড়, সার্কুলার রোড, ডিবি রোড, বাস-টার্মিনাল, খন্দকার মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় দোকানপাট খুলে ব্যবসা-বাণিজ্য চালানো হচ্ছে। এছাড়া মটর সাইকেল, অটোবাইক ও সিএনজি চালিত অটোরিক্সা চলাচল বৃদ্ধি পেয়েছে।

গ্রামের হাট-বাজারগুলোতে পরিস্থিতি আরও ভয়ংকর, কোথাও কোন স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। প্রতিদিন চা, মিষ্টির দোকান এবং বাজারগুলোতে বসছে জমজমাট আড্ডা। গাইবান্ধা-নাকাইহাট রোডের বিভিন্ন মোড়ের দোকানপাট, সদর উপজেলার ভেড়ামারা ব্রীজ সংলগ্ন মোল্ল¬া বাজার, পাঁচ জুম্মা, স্কুলের বাজার, গোডাউন বাজার, লক্ষ্মীপুর, দারিয়াপুর, কুমারপাড়া, হাসেম বাজার, মাঠ বাজার, কদমতলি, বাঁধের মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় লক ডাউন চলাকালিন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশ অমান্য করা হচ্ছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, লকডাউনের কথা বলে শুধু আমাদের পেটে লাথি মারা হচ্ছে। সাধারন মানুষকে স্বাস্থ্য বিধির উপর কঠোর বিধি আরোপ করলেই তো হয়। আমাদের আর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে জীবন যাপন করা সম্ভব নয়। এক সময় দেখা যাবে ব্যবসায়ীদের দেনায় জর্জরিত হয়ে না খেয়ে মরতে হবে।

শহরের কয়েক জন অটো, সিএনজি চালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের দাবি পাগল আর উন্মাদ ছাড়া কেউই নিজে মৃত্যুর কামনা করে না। সরকারের লকডাউনের সব কিছু বুঝি এবং নামার চেষ্ঠা করি কিন্তু পেটের ক্ষুধার জ্বালায় তো আমরা রাস্তায় নামছি । ধার দেনা করে কয় দিন আর খাই । আমরা তো সরকারী চাকুরী করি না যে ঘরে বসে থাকলেই খাওয়ন পাব।

অন্যদিকে শহরের রেল ষ্টেশনে লোক শূন্য। বাসটার্মিনালে দূর পাল্লার বাস গুলো সারি-সারি দাঁড়িয়ে আছে। দূর পাল্লার বাসের হেলপার, কর্মচারীদের অবসর সময় কাটানো লক্ষ্য করা গেছে। অনেকেই সরকারের বেঁধে দেওয়া সময় কখন শেষ হবে সেই অপেক্ষার প্রহর গুনছেন।

জেলা বিভিন্ন স্থানে লকডাউনে ডিউটিরত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে কথা বলে জানা যায়, তারা বলেন. আমরা শহরের প্রবেশ দ্বার ও গুরুত্বপূর্ন স্থানে সর্বক্ষণ চেষ্টা করছি যাতে লোক সমাগম না হতে পারে। অনেক অটো সিএনজি শহরে প্রবেশ করতে দেই নি। তার পরও বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে তারা চলাচল করছে। সাধারন মানুষকে বুঝাতে হিমহিম খাচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com