বিদায়_সাজু_ভাই….অশ্রু_বিধৌত_বাঁধ_ভাঙ্গা_বেদনায়_হাজার_কিলোমিটার

বাংলাদেশের শেষপ্রান্ত লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী বন্দর সংলগ্ন শ্রীরামপুর ইউনিয়ন। ঢাকা থেকে যাওয়া-আসায় প্রায় ১০০০ কিলোমিটার। সেই লম্বা পথ পাড়ি দিয়ে হাজার হাজার মানুষের কান্না ও বিলাপ বুকে নিয়ে বেদনার ভারে পিষ্ট হয়ে কিছুক্ষণ আগে ঢাকা ফিরলাম।

আবু হেনা এরশাদ হোসেন সাজু। তিনি আমার নেতা, আমার অকৃত্রিম স্বজন, বন্ধু ও একান্ত প্রিয় সাজু ভাই। এবি পার্টির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং যুগ্ম আহ্বায়ক।
তরুণ বয়সে ছিলেন লালমনিরহাট ও রংপুর স্টেডিয়ামের তুখোড় ফুটবলার। খেলেছেন জাতীয় পর্যায়ে। তাঁর বাবা ছিলেন ১৮ বছর ধরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। ৭১ সনের মহান মুক্তিযুদ্ধে তাদের পৈত্রিক ভিটায় স্থাপিত হয়েছিল ৬ নম্বর সেক্টর। সে কারণে সাজু ভাইদের পুরো পরিবারই ছিল রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় ও বিখ্যাত। ছাত্রজীবনে জাসদ ছাত্রলীগ করেছেন। এরশাদের হাত ধরে এলাকার উন্নয়নের জন্য যোগ দিয়েছিলেন জাতীয় পার্টিতে। এরশাদ তাঁকে ‘মিতা’ বলে সম্বোধন করতেন। পরবর্তীতে ধর্মপরায়নতায় নিবিষ্ট হলে যুক্ত হন জামায়াতে ইসলামীতে। মানুষের সেবা ও অসহায় জনগণের দূ:খ লাঘবে তিনি ছিলেন নিবেদিত প্রাণ। জীবনের শেষ সময়ে তিনি শামীল হন ‘জন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশ’ নামক নতুন রাজনৈতিক উদ্যোগে। আমাদের সবার সাথে হাত মিলিয়ে গড়ে তোলেন নতুন ধারার রাজনৈতিক দল ‘এবি পার্টি’।
উপজেলা চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য পদে নির্বাচন করেছেন বেশ কয়েকবার। ২০০৮ সালের নির্বাচনে তাকে প্রাথমিক ফলাফলে নির্বাচিত ঘোষনা করা হলেও পরক্ষণে চক্রান্ত করে ফলাফল পাল্টিয়ে পরাজিত দেখানো হয়।

সাজু ভাইয়ের সাথে আমার পরিচয় ও হৃদ্যতা মাত্র কয়েক বছরের। আমার ঘনিষ্ঠ শুভাকাঙ্খী রংপুর অঞ্চলের মহতপ্রাণ মানুষ তাজুল ইসলাম ভাইয়ের মাধ্যমে তাঁর সাথে প্রথম পরিচয়। প্রথম দিনেই সাজু ভাইয়ের হাসি, অন্তরঙ্গ আলাপ চারিতায় মুগ্ধ হয়ে যাই। সাক্ষাতের বেশ কয়েক মাস পর কক্সবাজারে এবি পার্টির প্রথম কেন্দ্রীয় কর্মশালায় অনেকটা নাটকীয়ভাবে উপস্থিত হয়ে তিনি ‘জন আকাঙ্ক্ষার বাংলাদেশে’ যোগ দেন। কর্মশালায় বিশিষ্ট রাজনীতি বিজ্ঞানী প্রফেসর ড. দিলারা চৌধুরী সহ জাতীয় পর্যায়ের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। ভার্চুয়ালি যুক্তরাজ্য থেকে সে সভায় বক্তব্য রাখেন ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক। সেখানে বিবিসি, ভয়েজ অব আমেরিকা সহ জাতীয় পর্যায়ের প্রায় সকল মিডিয়ার সাংবাদিকেরা ছিলেন উপস্থিত। সাজু ভাইয়ের বক্তব্য আমি আগে কখনো শুনিনি। তাই সে রকম গুরুত্বপূর্ণ সভায় তাকে বক্তব্য দিতে দিব কিনা এ নিয়ে একটু দ্বিধাগ্রস্ত ছিলাম। বলা যায় দ্বিধা সংকোচের দোলাচালে তাঁকে ২ মিনিটের জন্য শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখতে অনুরোধ করেছিলাম সেদিন।
সাজু ভাই দেড় মিনিট বক্তব্য রাখার পর যখন কথা শেষ করতে চাইলেন পুরো সভা না না বলে আপত্তি জানালো। সবার অনুরোধে সাজু ভাই তাঁর অসাধারণ সুমধুর বক্তব্য চালিয়ে যেতে বাধ্য হলেন। প্রধান অতিথি ড. দিলারা চৌধুরী দাঁড়িয়ে সবার সামনে সাজু ভাইকে সম্মান জানিয়ে করতালি দিয়ে উৎসাহিত করে বললেন আপনি যতক্ষণ খুশী বক্তব্য রাখুন আমরা আপনার কথা শুনতে চাই। ড. দিলারা পরবর্তীতে বক্তব্য রাখার সময় আমাকে উদ্দেশ্য করে বললেন সাজু সাহেব থেকে তোমাকে বক্তব্য ও রাজনীতি শিখতে হবে। দিলারা আপার সেই রিকমন্ডেশন অনুসরণ করে আমি পরবর্তী সময়ে সাজু ভাইকে সবসময় ‘ওস্তাদ’ বলে সম্বোধন করতাম।

আমার ওস্তাদ সাজু ভাই আর নেই। আমার নেতা, বন্ধু, সুহৃদ এরশাদ হোসেন সাজু চিরতরে ঘুমিয়ে গেছেন। যেই মসজিদে নামাজরত অবস্থায় তিনি প্রভুর ডাকে সাড়া দিয়েছেন সেই মসজিদের সামনেই হল তার চিরদিনের আবাস।
গতকাল ৬ এপ্রিল রাত ১১ টায় চোখের জলে বুক ভাসিয়ে “মিনহা খালাকনাকুম,
ওয়া ফিহা নুয়িদিকুম,
ওয়া মিনহা নুখরিজুকুম
তা’রাতান উখরা।”
অর্থঃ “এই মাটি থেকেই তোমাদের
সৃষ্টি করা হয়েছে,এই মাটিতেই
তোমাকে ফিরিয়ে নেয়া হবে,এবং
এই মাটি থেকেই পুনঃরায় আবার
তোমাকে জীবত করা হবে।— এই দোয়া পড়তে পড়তে
তাঁকে শুইয়ে দিয়ে এসেছি।

প্রফেসর ডা. আব্দুল ওহাব মিনারের নেতৃত্বে আমি, বিএম নাজমুল হক ও আনোয়ার সাদাত টুটুল ঢাকা থেকে সকাল ১০ টায় রওয়ানা দিয়ে রাত সাড়ে ৮ টায় যখন বুড়িমারী বাজারে পৌঁছালাম তখন হাজার হাজার মানুষের স্রোত শ্রীরামপুর স্কুল মাঠের দিকে। এবি পার্টির কর্মীরা অনেক কষ্টে পথ তৈরী করে যখন আমাদেরকে মাঠে নিয়ে গেলেন তখন সেখানে লোকে লোকারণ্য। আমরা গাড়ী থেকে নামতেই চতুর্দিক থেকে হাউমাউ করে আর্তনাদ, কান্না ও বিলাপের ঢেউ এসে আছড়ে পড়লো আমাদের উপর। এর আগে লাখো মানুষের উপস্থিতিতে আরো দুটি জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। একটি হয় রংপুর শহরে, অপরটি হয় পাটগ্রাম স্টেডিয়ামে। পাটগ্রামের ইতিহাসে সবচাইতে বড় জানাজা হয় সাজু ভাইয়ের। সারা পথে বার বার নিজেকে শান্ত রাখার চেষ্টা করলেও কিছুতেই পারছিলাম না নিজেকে সংবরণ করতে।

সাজু ভাইয়ের কফিনের সামনে গিয়ে নিথর হয়ে গেলাম। না সাজু ভাই কিছুতেই মারা যেতে পারেনা। মনেহচ্ছে এক্ষুনি ভালো করে ডাকলে জেগে উঠবেন। তিনদিন আগে আমি যখন রাজশাহী গেলাম তখন ফোন করে বলেছিলেন একটু কষ্ট করে রংপুর ঘুরে যাবার জন্য। তাদের আঞ্চলিক বৈঠকে আমাকে থাকার জন্য খুব রিকোয়েস্ট করলেন। অনেক বুঝিয়ে তাঁকে রাজী করালাম যে আমি ভার্চুয়াললি এটেন্ড করবো।
ইচ্ছে হচ্ছিল চিৎকার দিয়ে বলি সাজু ভাই আমি এসেছিতো। ওস্তাদ আমি এসেছিতো। প্লিজ সাজু ভাই আপনি এভাবে যাবেন না। আমরা খুব শূন্য হয়ে যাবো। মারজান ভাই সাথী হারা হয়ে যাবে। ব্যারিস্টার সানী অনেক কষ্ট করে খুব বড় আশা নিয়ে লন্ডন থেকে একেবারে চলে এসেছে। আসাদ ভাই অভিভাবক হারা হয়ে যাবে। আপনার স্নেহের সেলিম, আল আমিন, মিঠুন, রানা কে ওদের আগলে রাখবে?
দিলারা আপাকে নিয়ে আপনি বড় অনুষ্ঠান করবেন বলেছিলেন। সাকীব ছোঁয়া কে নিয়ে আপনার বাড়ীতে বেড়াতে আসতে চেয়েছিল। চট্টগ্রামের মিজানুর রহমান চৌধুরী ভাই আগামী কুরবানী ঈদে আপনাকে সাথে নিয়ে চরের গরীব লোকদের সাথে কুরবানী করার কথা ছিল। ডা. মিনার ভাইয়ের হেলথ্ ক্যাম্প গুলো কে করবে এখন? বৃটেন থেকে জুম্মা দিন গুনছে কবে এসে আপনার সাথে পথে প্রান্তরে ঘুরে

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.