মিশ্র ফল বাগান করে সফল সৌখিন চাষি যুবলীগ নেতা আছু বিশ্বাস।

মোঃ সাইফুল্লাহ ;

প্রধান মন্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে মাগুরায় মিশ্র ফল বাগান করে সফলতা অর্জনের পাশাপাশি করোনা প্রতিরোধে প্রসংশনীয় ভূমিকা রেখেছেন মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার মদনপুর গ্রামের মোঃ মোবারক আলী বিশ্বাসের পুত্র সৌখিনচাষি যুবনেতা আছু বিশ্বাস।
তাঁর দেখাদেখি মিশ্র বাগান করার প্রতি ঝুঁকে পড়ছেন এলাকার অনেক বেকার যুবক।
আছু বিশ্বাস একজন মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান হলেও
তিনি প্রায় সময় গরীব দুঃখী মানুষের বিপদ আপদে তাদের পাশে দাঁড়ান। ব্যস্ত থাকেন সামাজিক কাজ কর্মসহ বিভিন্ন প্রর্যায়ের মানবতার সেবায়, তাইতো আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে লড়তে চান শ্রীপুর সদর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডে।
আছু বিশ্বাস বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণের সময় একটি মহতী কাজ করেছেন।
তারই এই মহতী কাজে খুশি হয়েছেন এলাকার অনেক জনগন।
সম্প্রতি আওয়ামী যুব লীগের এই নেতার সঙ্গে আমাদের প্রতিনিধির কথা হয় তাঁর বাগানে, তিনি বলেন আমি করোনা কালীন সময় যখন আমার নেত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন যে আপনারা কেউ বসে না থেকে যেটুকু জায়গা জমি আছে, সেখানে চাষাবাদ করুন এবং বাগান করুন, দেশের উপকার আসুন।
এ কথা শুনার পর পরই আমি
মাগুরা সদর উপজেলার আঠারোখাদা ইউনিয়নের কামারবাড়ি এলাকার চন্দ্রন প্রতাপ গ্রামে আমার নিজের ১৭০ শতক জমিতে ২০০টি কাগুজে লেবু গাছ, ২০০টি আম গাছ, ৫০টি কদবেল গাছ, ১৫ টি ছবেদা গাছ কলা ও পেঁপেসহ বিভিন্ন প্রকারের ফলের গাছ লাগাই।

তিনি আরো জানান -করোনা কালীন সময় আমার প্রতিটি লেবু গাছে প্রচুর পরিমাণ লেবু ধরেছিলো।
আমি করোনা কালীন সময় দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকা লেবু অনেক মানুষের বাড়িতে বাড়িতে এবং বেশ কিছু সরকারি অফিসে তা পৌঁছে দিয়েছি।
মানুষের উপকার করার জন্য আমি একটা লেবুও বিক্রি করিনি।
আল্লাহ ভরসা গতবারে বিনামূল্যে বেশি বেশি মানুষের দেওয়াতে এবার আমার সকল গাছে প্রচুর পরিমাণ ফল ধরেছে।
ইনশাআল্লাহ এবারো অনেককেই দিবো সেই সাথে,আমি বেশ লাভের মুখও দেখতে পাবো বলে আশা করছি ।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন মাগুরার কৃষি বিভাগ থেকে এ পর্যন্ত কোনো সহযোগিতা পাইনি, যদি মাগুরা কৃষি বিভাগ আমাকে একটু পরামর্শ দিয়ে হলেও সাহায্য করতেন তাহলে আমি আরো অনেক ভালো করতে পারতাম।

চন্দনপ্রতাপ গ্রামের অসীম দাস জানান – আছু বিশ্বাসের মিশ্র ফলের বাগান খুব ভালো হয়েছে, এবার ফল ধরেছে প্রচুর। তার এই মিশ্র ফল বাগান করার সফলতা দেখে আমরাও মিশ্র ফল বাগান করা শুরু করেছি। আছু বিশ্বাসসহ আমরা যদি কৃষি বিভাগের সহযোগিতা পেতাম তাহলে আরো অনেক ভালো হতো৷

মাগুরা সদর উপজেলার উপসহকারী কৃষি অফিসার তানজীর আহমেদ মোবাইলে আমাদের প্রতিনিধিকে বলেন সম্প্রতি আমি আছু বিশ্বাসের মিশ্র বাগান পরিদর্শন করেছি।আসলেই তাঁর বাগান খুব ভালো, সেখানে না গেলে বুঝাই যাবেনা যে কত সুন্দর বাগান। আর বাগানের মালিকের বাড়ি অন্য উপজেলাতে হওয়ায়, বাগানে যেয়ে তাঁকে আমি পাইনি। অবশ্য এখন থেকে তাকেসহ যারাই বাগান করছে কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাদেরকে সকল প্রকার পরামর্শ ও সার্বিক সহযোগিতা করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।
আছু বিশ্বাসের ন্যায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের যুবকেরাও যদি কৃষি কাজে আরো এগিয়ে আসে তাহলে কৃষিতে বিপ্লব ঘটানো সময়ের ব্যাপার মাত্র বলে মনে করেন অনেকেই।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.