মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ০১:০৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

অবশেষে শাহানাকে খালার হাতে তুলে দিলো তাড়াইল থানা পুলিশ

প্রতিনিধি,তাড়াইল(কিশোরগঞ্জ): কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে হারিয়ে যাওয়া প্রতিবন্ধী শাহানা(১১)কে স্বজনদের হাতে তুলে দিলো তাড়াইল থানা পুলিশ।

জানা গেছে,শনিবার(১৫মে) সন্ধ্যায় উপজেলা সদরের সহিলাটি বাসস্ট্যান্ড এলাকায় শাহানা অসংলগ্নভাবে ঘুরাফেরা করতে দেখে জৈনক ব্যাক্তি থানায় খবর দিলে থানা অফিসার ইনচার্জ মো.মুজিবুর রহমান নিজ হেফাজতে থানায় রেখে স্বজনদের খুঁজাখুজি অব্যাহত রাখে।মেয়েটি কথা বলতে না পাড়ায় ইশারা ইঙ্গিতে নিজ বাড়ীর রাস্তা দেখায়।শাহানার দেখানো রাস্তায় মধ্যরাত পর্যন্ত ওসি মুজিবুর রহমান এদিক ওদিক ঘুরেও স্বজনদের খুঁজে না পাওয়ায় নিজ হেফাজতে থানায় রেখে দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেবু স্ট্যটাস দেয়।ভাইরাল হওয়া স্ট্যটাস দেখে প্রতিবেশি জৈনক ব্যাক্তির মাধ্যমে স্বজনরা জানতে পেরে রবিবার (১৬মে) সকাল সাড়ে ১০টায় হারিয়ে যাওয়া শাহানাকে খালা আমেনার হাতে তুলে দিলো তাড়াইল থানার অফিসার ইনচার্জ মো.মুজিবুর রহমান।
শাহানার খালা আমেনা জানান,বিগত ১৫ দিন আগে নিজ বাড়ি থেকে হারিয়ে যায় শাহানা।কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার বুরুদিয়া ইউনিয়নের শালুয়াদি গ্রামের পিতামাতাহীন এতিম রায়হান ও আয়শা দম্পতির মেয়ে শাহানা খালা আমেনার সাথেই থাকতো।ঘটনার দিন খালা আমেনা দুপুরে উঠোনে ধান শুকানোর কাজে ব্যাস্থ ছিলো।বিকেল থেকে শাহানাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিলো না। তবে বিগত ১৫ দিন শাহানা কোথায় ছিলো তা তিনি বরতে পারেন না।শাহানা হারিয়ে যাওয়ার পর নিজ এলাকাসহ আসেপাশের এলাকায় খোঁজাখুজিসহ মাইকিং করা হয়েছিলো।
তাড়াইল থানার অফিসার ইনচার্জ মো.মুজিবুর রহমান জানান,আমি ব্যাক্তিগতভাবে নগদ ৫শ টাকা এবং একটি নতুন ড্রেস কিনে দিয়েছি শাহানাকে। এ ব্যাপারে তাড়াইল থানায় রবিবার(১৬মে) একটি জিডি করা হয়েছে,জিডি নম্বর ৫৭৬।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com