সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

ঈদগাঁওতে কন্যার সামনে মারধর প্রবাসীর মৃত্যু, মামলা দায়ের, আটক-৮

সেলিম উদ্দীন,কক্সবাজার:
লাঠি দিয়ে পিটিয়ে জখম করার একটি ভিডিও গতকাল শুক্রবার ভাইরাল হয়েছিল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। স্ত্রী ও শশুর বাড়ির লোকজনের হাতে নির্মম নির্যাতনের শিকার প্রবাসী মঞ্জুর আলম (৪৫) অবশেষে মৃত্যুর কাছে হার মেনেছেন।

শনিবার (২২ মে) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। মঞ্জুর আলম কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডি নতুন মহাল গ্রামের মৃত আব্দুল গনির ছেলে।

ঘটনায় জড়িত ৮ জন এজাহার নামীয় ও পলাতক কয়েকজনের নামে মামলা দায়ের করেছে নিহতের ভাই বদিউল আলম। এ মামলায় আটককৃতদের আদালতে সোপর্দ করেছে পুলিশ। এদিকে মৃত্যুর সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে জনতা বিক্ষুব্ধ হয়ে বাড়ীর সীমানা প্রাচীর ভাংচুর চালায় পরে চেয়ারম্যান পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। পরপরই ঈদগাঁও থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অবস্থান নিয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঈদগাঁও থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবদুল হালিম জানান, এ ঘটনায় নিহত মঞ্জুর আলমের দ্বিতীয় স্ত্রী রুনা আক্তার, শশুর, শাশুড়ি, শ্যালকসহ ৮ জনকে আটক করা হয়েছে।

গত শুক্রবার দুপুরে কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও মাইজপাড়ায় দ্বিতীয় স্ত্রী রুনা আক্তারের বাবা, মা, ভাই, বোনসহ বেশ কয়েকজন মিলে মঞ্জুর আলমকে নির্যাতন করে গুরুতর আহত করে।

ঈদগাঁও থানার ওসি আবদুল হালিম জানান, মঞ্জুর আলমকে নির্যাতনের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশে ঘটনার দিন রাতেই নির্যাতনকারী স্ত্রী রুনা আক্তারসহ ৮ জনকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় নিহত মঞ্জুর আলমের বড় ভাই শুক্রবার রাতে একটি এজাহার দায়ের করেছেন। শনিবার দুপুরে সেটি হত্যা মামলা হিসেবে রুজু করা হয়েছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নিহত মঞ্জুর আলম দীর্ঘদিন প্রবাসে কাটিয়েছেন। ছুটিতে এসে আর বিদেশ যাওয়া হয়নি। প্রবাস জীবনের আয় পাঠাতেন তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী রুনা আক্তারের নামে। স্ত্রী নিজের নামে কিনেছেন জমি, বানিয়েছেন বহুতল ভবন। এরই মধ্যে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহ দেখা দেয়।

শুক্রবার স্ত্রী রুনা আক্তার তার বাবা-মা, ভাই-বোন মিলে দিনদুপুরে মঞ্জুর আলমকে নির্মমভাবে নির্যাতন করে। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে শনিবার চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com