সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
জুলাই থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ২০ হাজার টাকা মৌলভীবাজার জেলা সদর উপজেলা ১২ নং গিয়াসনগর ইউনিয়ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সৈয়দ গৌছুল হোসেন জনপ্রিয়তায় এগিয়ে। ভোলায় প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেলেন ৩৭১ ভূমিহীন পরিবার নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ৬০০ পিচ ইয়াবা সহ আটক ২ নজরপুর ইউনিয়নে জনমত জরিপে এগিয়ে যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম জহির মুজিববর্ষের উপহার : ভূমিসহ ঘর পেলো হাটহাজারীর ২৬ পরিবার একাধিক হত্যা মামলার আসামী সোমেদ আলী গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১ নরসিংদী মডেল থানার অভিযানে শীর্ষ সন্ত্রাসী সুজন সাহা আটক আক্রান্তের নয়া রেকর্ড আনােয়ারায় ২৫ গৃহহীন পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রী’র ঘর উপহার

এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ২৫% উৎসব ভাতার পরিবর্তে ১০০ ভাগ উৎসব ভাতার দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক : এমপিওভুক্ত বেসরকারী শিক্ষকগণ ২০০৪ সালে ২৫% বোনাস প্রাপ্তির অধিকার অর্জন করেন, যা ২০২১ সাল পর্যন্ত চলমান আছে। উৎসবভাতা বৃদ্ধির বিষয়টি বিগত দিনে শিক্ষক সংগঠনগুলো বহুবার সরকারের শিক্ষা ও অর্থ মন্ত্রণালয়সহ মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে অবগত করেছে যা আদৌ আলোর মুখ দেখেনি।

সরকারের এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য যে জনবল কাঠামো রয়েছে তা ২০২১ সালে সংশোধন পূর্বক ১১.৭ ধারার (ঙ) উপধারায় এমপিওভুক্ত শিক্ষকদেরকে শতভাগ বোনাস প্রদান সিদ্ধান্ত নিয়েছে, কিন্তু ঈদ-উল-ফিতরের পূর্বে শতভাগ বোনাস প্রদান না করায় এমপিওভুক্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০টি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ঈদ-উল-ফিতরের দিনে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নামাজ আদায় ও মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে।

তবে প্রেসক্লাবের সামনে নামাজ আদায় করতে পুলিশ বাধা প্রদান করায় শিক্ষকগণ শিক্ষা ভবনের মসজিদে নামাজ আদায়ের পর জুম্মার নামাজের পূর্ব পর্যন্ত প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কমূসূচী পালন করেন। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির মহাসচিব ও শতভাগ উৎস ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক জসিম উদ্দিন আহম্মেদ তার বক্তব্যে বলেন, ২০১৮ সালে এই প্রেসক্লাবের সামনে আমরা আন্দোলন করায় প্রধানমন্ত্রী বেসরকারী এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ৫% প্রবৃদ্ধি ও ২০% বৈশাখী ভাতা প্রদান করেন, মূলতঃ আমাদের আন্দোলন ছিল এমপিওভুক্ত শিক্ষা সরকার যেন জাতীয়করণ করেন।

এখন এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ করতে বাকী আছে অবশিষ্ট ৭৫% বোনাস প্রদান, ১০০০ টাকা বাড়ি ভাড়া, ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতার পরিবর্তন এবং ১০০ মাসের অবসর-কল্যাণ ভাতার পরিবর্তন পূর্বক স্থায়ী অবসর-কল্যাণ প্রদানের ব্যবস্থাসহ আনুসাঙ্গিক সুবিধাদি প্রদানের ব্যবস্থাকরণ।

সরকার বর্তমানে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য বছরে খরচ করে প্রায় ২২/২৩ হাজার কোটি টাকা, তার সাথে এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আয় সরকারী কোষাগারে জমা নিলে জাতীয়করণ করতে তেমন অর্থের ঘাটতি সরকারের হবে না। তারপরও সরকার হিসাব-নিকাশ করে অর্থের ঘাটতি থাকলে তার সমাধানের প্রস্তাবও করেন জসিম উদ্দিন আহম্মেদ। তিনি বলেন ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতে ৩য়-৫ম শ্রেণির মাসিক বেতন ৮টাকা, ৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণির ১২ টাকা, ৯ম-১০ম শ্রেণির বেতন ১৮ টাকা এবং কলেজ শাখার বেতন-২৫টাকা। বর্তমান সময়ে এই বেতন কাঠামো পারিবর্তন অত্যাবশ্যক। যদি করা হয় তয়-৫ম শ্রেণির বেতন ২০টাকা, ৬ষ্ঠ-৮ম শ্রেণির বেতন ৩০টাকা, ৯ম-১০ম শ্রেণির বেতন ৪০টাকা এবং কলেজ শাখার বেতন-৫০টাকা তাহলে প্রতি অর্থ বছরে এ খাতে সরকারের অতিরিক্ত অর্থ আয় হবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।

তারপরও এক্ষেত্রে সমস্যা হলে সরকার অর্থের যোগান হিসেবে প্রতিবছর শিক্ষার্থী ভর্তির সময় সেশন ফি থেকে শিক্ষার্থী প্রতি ২০০টাকা এবং পরীক্ষার ফি থেকে জন প্রতি ৫০ টাকা করে নিলে সরকারের কোনই আর্থিক ক্ষতি হওয়ার সুুযোগ নেই। বঙ্গঁবন্ধু তাঁর ৭৬৮ কোটি টাকার বাজেটে ১৯৭৩সালে ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করন করেছেন এবং বেসরকারি শিক্ষকদের বেতন বাড়িয়েছেন। আর এখন ৫লক্ষ ৯৩ হাজার কোটি টাকার বাজেটের শিক্ষকদের বোনাস শতভাগ হয় না তা মেনে নেয়া যায় না।

তাই শিক্ষকগণের দাবী, ২০২১-২২ এর অর্থ বছরে শিক্ষাখাতে বাজেট বৃদ্ধি করে আগামী ঈদ-উল- আযাহার পূর্বে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের শতভাগ বোনাস প্রদান করতে হবে। যদি তা না হয়, শিক্ষকগণ বড় ধরনের আন্দোলন বাজেট উত্তর করবে বলে সরকারের প্রতি হুশিয়ারি প্রদান করেন।

বিশেষভাবে উল্লেখ্য, সরকার ২০১০ সালে জাতীয় সংসদে জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ পাশ করেছে, যেখানে বলা আছে সরকারী ও বেসরকারী শিক্ষায় পর্যায়ক্রমে বৈষম্য কমিয়ে আনা হবে কিন্তু বর্তমান সরকার এ পর্যন্ত ১২ বছরের ক্ষমতামলে কতটুকু বৈষম্য কমিয়েছে তা-ই এখন পর্যালোচনার বিষয়। ইতোমধ্যে আইএলও, ইউনেস্কো ও জাতিসংঘ বাংলাদেশের শিক্ষাখাতের বাজেট বাড়ানোর জন্য সরকারকে আহবান জানিয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রত্যেক সংগঠন থেকে নেতৃবৃন্দ বক্তব্য প্রদান করেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষক-কর্মচারী ফোরামের সভাপতি মুহাম্মদ দেলাওয়ার হোসেন আজিজী।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেনঃ শেখ মোঃ জসিম উদ্দিন, উপাধ্যক্ষ মোঃ আবদুর রহমান, মোঃ জাফর উল্লাহ, ইউসুফ আলী মিয়া শামীম, মোহাম্মদ মোস্তফা ভূঁইয়া, আবুল বাশার নাদিম, মোঃ সাহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ মতিউর রহমান দুলাল, মোঃ মামুনুর রশিদ, এইচ, এম রবিউল ইসলাম, অধ্যাপক-হারুন-রশিদ হাওলাদার, মোঃ আতিকুল ইসলাম, মোঃ ইসমাইল হোসেন, ফরিদ আহম্মেদ, মোস্তফা কামাল, নাজমুল হাসান, রুহুল আমিন সরকার, এস.এম মহিব উল্লাহ মুজাহিদ, আবু বকর সিদ্দিক, মোস্তাফিজুর রহমান, রতন কুমার দেবনাথ,মাও. আব্দুল আহাদ, অহিদুল ইসলাম, আব্দুর রহমান, মোঃ মহসিন প্রমুখ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com