সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

ধামরাইয়ে শিশু ধর্ষককে থানা হতে ছাড়িয়ে নিতে চেয়ারম্যানের চাপ

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু,বিশেষ প্রতিবেদকঃ

ঢাকা জেলার ধামরাইয়ের সোমভাগ ইউনিয়ন বাদিগাওয়াইল এলাকায় শিশু ধর্ষণের অভিযুক্তকে ছাড়িয়ে নিতে চেয়ারম্যানের চাপ।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগির পরিবার জানায়, প্রথমবার ধর্ষণের অভিযোগে সাধারণ ক্ষমাও করেন ভুক্তভোগীর পরিবার। পরে আবারো একই শিশুকে দ্বিতীয় বারের মত ধর্ষণ করে, ধর্ষণের অভিযোগে মোহাম্মদ মোমিন(১৮) নামের ওই যুবককে আটক করেছেন ধামরাই থানা পুলিশ। সেই থেকে মোমিনকে থানা হগে ছাড়াতে স্থানীয় চেয়ারম্যান আজহার উদ্দিন শিশুটির পরিবারকে চাপ প্রয়োগ করছেন বলে দাবি ভুক্তভোগী পরিবারটির।

মঙ্গলবার (২৫ মে) দিবাগতরাতে ধামরাইয়ের সোমভাগ ইউনিয়নের বাদিগাওয়াইল এলাকা থেকে মোমিনকে আটক করা হয়। এঘটনায় অভিযোগ দায়ের করায় ভুক্তভোগী পরিবারকে মারধোরসহ বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে।

আটককৃত মোহাম্মদ মোমিন উপজেলার সোমভাগ ইউনিয়নের বাদিগাওয়াইল এলাকার আয়নাল হকের ছেলে ও ভুক্তভোগীর শিশুর চাচাতো ভাই বলে জানা গেছে ।

ভুক্তভোগী ধর্ষিতা ওই শিশুটির বাবা বলেন, এর আগেও আমার শিশু কন্যাকে ধর্ষন করে মোমিন। সেবার আমি ক্ষমা করে দিয়েছিলাম। তিন থেকে চার দিন আগেও একই ঘটনা ঘটায়।

আমি আবারও এঘটনা শুনতে পেরে আজ আর ঠিক থাকতে পারি নি, থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেছি। এর পরেই রাতেই পুলিশ মোমিনকে আটক করে থানায় নিয়ে গেলে মোমিনের বাবা আমাকে মারধর করেন। কে যেন আবার বাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে এলাকাবাসী এসে আগুন নেভানোর চেস্টা করলেও একটা ঘর পুড়ে যায়।

ধর্ষিতার বাবা অভিযোগ করে বলেন, আমাকে ডাক দিয়ে কবির নামে এক ভাই বলেন, তোমার ভাতিজাকে ধরিয়ে দিছো কেন? প্রথমবারেই ধরিয়ে দেওয়া উচিৎ ছিলো বলতেই আমার হাতে মোবাইল দিয়ে কবির বলেন, এই নাও চেয়ারম্যান কথা বলবেন।
মোবাইল কানে ধরতেই চেয়ারম্যান বলেন মোমিনকে থানা থেকে আনতে। রাজি না হলে তিনি বলেন তাহলে কি মোমিন সাজা খাটবো? পরে মোবাইল কবিরের হাতে দিয়ে দেই।

একাধিক ধর্ষণের অভিযুক্ত মোমিনকে ছাড়াতে বাদীর ওপর চাপ প্রয়োগের ব্যাপারে জানতে চেয়ে সোমভাগ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজহার উদ্দীনকে এ প্রতিবেদক একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেন নি।

ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম বলেন, মারধোর ও বাড়িতে আগুন ধরানোর অভিযোগ এখনও পাইনি। তবে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথেই অভিযুক্তকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com