বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ১১:৩৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

রংপুরের হাঁড়িভাঙা আম গাছটি আজও বেছে আছে

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু,বিশেষ প্রতিবেদকঃ

রংপুরের হাঁড়িভাঙা গাছটি পাওয়া গেছে। যে গাছটি থেকেই লাখো গাছের জন্ম সেই গাছটি ২৮বছর পরে পাওয়া গেছে। সেই গাছ থেকেই লাখো গাছের জন্ম নিয়েই আজ বিক্রি হচ্ছে শত শত কোটি টাকার হাঁড়িভাঙা আম। সেই হাঁড়িভাঙা আম গাছটি আজও দাঁড়িয়ে আছে। আজ থেকে প্রায় ৭৫ বছর পূর্বে হাঁড়িভাঙা আমের যাত্রা শুরু হলেও ব্যাপক সম্প্রসারণ শুরু হয়েছে নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে । হাঁড়িভাঙার নামকরণ প্রসঙ্গে রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের তেকানি গ্রামের আমজাদ হোসেন জানান, আজ থেকে প্রায় ৭৫ বছর আগে তার বাবা নফল উদ্দিন হাঁড়িভাঙা আম গাছটি রোপণ করেছিলেন।

তিনি হাঁড়িভাঙা আম গাছটির প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, একশত বছর পূর্বে মিঠাপুকুর উপজেলার বালুয়া মাসুমপুরের জমিদার ছিলেন তাজ বাহাদুর সিংহ, তিনি খুবই শৌখিন মানুষ ছিলেন। তার ফলের বাগান ছিল। বাগানে বিভিন্ন প্রজাতির ফলের গাছ ছিল। সে সময় কিছু পেশাদার আম ব্যবসায়ী তার বাগান থেকে পাইকারী দামে আম কিনে নিয়ে পদাগঞ্জ হাটে বিক্রি করতো। সেই বিক্রি করা হাঁড়িভাঙা আম তার বাবা ক্রয় করে। আমটি খুবই সুস্বাদু হওয়ায় তৎকালীন সময় পাঁচটাকা দামে ১০০ আম কিনে আনেন। সেই আম খাওয়ার পরে আমের আঁটি থেকে চারা একটি পরিত্যাক্ত ভাঙা হাঁড়ির টুকরোর মাঝখানে গাছটি জন্মেছিল বলে গাছটির নামকরণ করা হয় হাঁড়িভাঙা।

তখন থেকেই ওই এলাকার মানুষ হাঁড়িভাঙা আম নামে চিন্তেন। পরবর্তিতে ওই আমটি জনপ্রিয় হয়ে উঠায় ওই অঞ্চলে হাঁড়িভাঙা আমের যাত্রা শুরু। সেই থেকে হাঁড়িভাঙা আম গাছটি এখনো জীবিত আছে এবং ফলও দিচ্ছে। অন্যদিকে হাঁড়িভাঙা আমের জনক হিসেবে আমজাদ হোসেন নামের এক বাগান মালিক তার বাবার স্বীকৃতি দাবি তুলেন। জানাযায় ১৯৯২ সাল থেকেই রংপুর অঞ্চলে হাঁড়িভাঙা আমের সম্প্রসারণ শুরু হয়। আবদুস ছালাম নামের এক কৃষকও নিজেকে হাঁড়িভাঙা আমের সম্প্রসারক হিসেবে নিজেকে দাবি করেন। তার দাবি, তিনি ১৯৯২ সাল থেকে হাঁড়িভাঙা আমের চাষ শুরু করেন। তারই দেখাদেখি এখন রংপুরে কয়েক লাখ হাঁড়িভাঙা আমের গাছের জন্ম ।

রংপুর কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে,রংপুর জেলায় এবারের আমের ফলন ৩ হাজার ৫ হেক্টর জমিতে হয়েছে। তারই মধ্যে হাঁড়িভাঙার ফলন ১ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে। গত বছরের তুলনায় এবছরে প্রতি হেক্টরে ফলন হয়েছিল ৯ দশমিক ৪ মেট্রিক টন। আশা করা হচ্ছে গত বছরের চেয়েও এবারের ফলন বেশি হওয়ার আশাবাদী । সেই তুলনায় শুধু হাঁড়িভাঙা আম এবারে উৎপাদন হতে পারে ১৫ হাজার মেট্রিক টনের বেশী । আমের মৌসুমের শুরুতে দাম কিছুটা কম থাকলেও কেজি প্রতি হাঁড়িভাঙা আম ৮০ থেকে ১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। রংপুর অঞ্চলের আম চাষীরা আম বিক্রি করে ২০০ কোটি টাকারও বেশি টাকা ঘরে তুলেন।।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com