বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ০৫:১৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

শুখানো দিঘী থেকে পরিত্যক্ত একটি হ্যান্ড গ্রেনেড উদ্ধার

এম,এ মান্নান, কুমিল্লা বিশেষ প্রতিনিধি

কুমিল্লা লাকসামে শুখানো দিঘী থেকে পরিত্যক্ত একটি হ্যান্ড গ্রেনেড উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার সন্ধায় দিকে পৌরশহরে ডুরিয়াবিষ্ণপুর গ্রামের ডুরিয়া নামে দিঘীত থেকে পরিত্যক্ত গ্রেনেড সদৃশ বস্তুটি উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয়রা জানায়,পৌরসভার ২ নং ওয়ার্ড ডুরিয়াবিষ্ণপুর গ্রামের ডুরিয়া নামে পুরাতন একটি দিঘীতে কয়েকদিন ধরে খনন করেন স্থানীয়রা। মাটি কাটা শেষে শুকনো দিঘীতে ওই দিন বিকালে কয়েকজন শিশুরা খেলা করছিল এসময় গ্রেনেড সদৃশ বস্তুটি চোখে পড়ে তাদের। শিশুরা গ্রেনেডটি বল মনে করে সেটি নিয়ে খেলা সময় পাশে থাকা অন্য শিশুরা সেটা দেখতে পেয়ে স্হানীয়দের খবর দেয়। স্থানীয়রা এসে দেখলে এটি গ্রেনেড বলে জানালে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে পুরো এলাকাজুড়ে পরে তারা জরুরি সেবা ৯৯৯ নাম্বারে কল করেন। খবের পেয়ে লাকসাম থানার পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থল গিয়ে গ্রেনেডটির চারপাশে নিরাপত্তা বেস্টনি দিয়ে ঘিরে রাখে। ওই গ্রেনেডটি গায়ে (পি এপ ৬৭) লেখাও রয়েছ।

ঘটনার স্হলে পরিদর্শনে আসেন কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাকসাম সার্কেল ও লাকসাম থানার ওসি। পরিদর্শন শেষে অবিস্ফোরিত পরিত্যক্ত হ্যান্ড গ্রেনেডটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লাকসাম সার্কেল মুহিতুল ইসলাম শ্যামল বাংলাকে বলেন, গ্রেনেড সদৃশ বস্তুটি উদ্ধার করা হয়েছে। এখন বিশেষজ্ঞ টিম এসে দেখবে এটা কি। তবে যতটুকু ধারণা করা হচ্ছে, গ্রেনেডটি হয়ত মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ব্যবহারিত হয়েছিলো। উদ্ধার করা গ্রেনেডটি থানায় এনে বালু চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, গ্রেনেডটিতে মরিচাপড়া ধারণা করা হচ্ছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কিংবা বাংলাদেশের স্বাধীনযুদ্ধের সময় গ্রেনেডটি অবিস্ফোরিত অবস্থায় থেকে যায়।তিনি আরও জানান, গ্রেনেডটি বিস্ফোরণের জন্য সেনাবাহিনীকে চিঠি দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত বলা যাবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com