মঙ্গলবার, ১৫ Jun ২০২১, ০১:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
হত্যাকান্ডের ৯ দিন পর খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে র্্যাব মাগুরা শ্রীপুরের জনপ্রিয় শিক্ষক আমিরুজ্জামান সেলিমের ইন্তেকাল বাকলিয়ার সন্ত্রাসী এয়াকুবসহ চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের গ্রেফতার দাবি চট্টগ্রামে বায়েজিদ লিংক রোডে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাহাড়ের বসতিদের উচ্ছেদ অভিযান শুরু পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টায় নাসির উদ্দিন গ্রেফতার রাউজানের গণি পাড়ার মেয়ে কিংবদন্তি শাবানার গ্রামের বাড়িতে বছরে পর বছর ঝুলছে তালা র‌্যাব ক্যাম্পের অভিযান : দুই মাদক কারবারি আটক সদ্য নবনির্বাচিত দিনাজপুর চেম্বারের রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী (শামীম) পরিষদের বিজয়ীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানালো পরিবেশক সমিতি দিনাজপুর কোম্পানীগঞ্জে সিএনজি ধর্মঘটের ঘোষণা পৌর মেয়র কাদের মির্জা’র চট্টগ্রামের বাকলিয়ার এয়াকুব আলী বাহিনীর চিহ্নিত অস্ত্রধারীদের অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে সাংবাদিক সম্মেলন

আটককৃত গাঁজা ছিনিয়ে নিলো মাদক ব্যবসায়ীরা

আব্দুর রকিব, মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

শ্রীনগরে এলাকাবাসীর আটককৃত প্রায় ৪ কেজি গাঁজা ভয়ভীতি দেখিয়ে ছিনিয়ে নিলো মাদক ব্যবসায়ীরা। গত মঙ্গলবার
রাত ৮ টার দিকে উপজেলার ষোলঘর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের পুরহিত পাড়ায় এই
ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, পুরহিত পাড়া আলী আকবরের বাড়ির পাশে একটি বসতঘরের
পাটাটনের নিচে কাগজে মোড়ানো প্যাকেট দেখতে পায় রিফাত নামে এক যুবক।
পরে রিফাতসহ রনি, মেহেদী, অন্তর, ইমরান ও আলী ইসলামসহ কয়েকজন প্যাকেট খুলে
দেখতে পায় এতে গাঁজা রয়েছে। বিষয়টি জানাজানি হলে তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে
হাজির হয় ওই এলাকার জজ বাড়ির সদানন্দ দাসের ছেলে সাধন দাস (৩৬)। সাধন দাস
দাবি করে প্যাকেটগুলো তার। এসময় সাধনের সহযোগী একই এলাকার সাবেক
ইউপি সদস্য মরহুম সিদ্দিকের দুই ছেলে শাহাদাত ও লাইউম ভয়ভীতি ও হুমকি ধমকি
দিয়ে গাঁজা ছিনিয়ে নেয়।

মো. আওয়াল, নজরুল, সালাউদ্দিন, শফিকুলসহ অনেকেই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে
বলেন, রিফাতসহ তার বন্ধুরা বিয়ের অনুষ্ঠানে যায়। ওই বাড়ির পাশে গাঁজার
প্যাকেটগুলো আটক করে তারা। তার কিছুক্ষণ পরেই সাধনসহ তার সহযোগীরা
ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে গাঁজা নিয়ে যায়। বিষয়টি স্থানীয়
ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আীকে জানানো হলেও কোন কাজে আসেনি। তারা আরো
বলেন, সন্ধ্যার পরেই ষোলঘরের সমসাবাদ ও কালীবাড়ি লঞ্চঘাটে মাদক কারবারি ও
সেবনকারীদের আনাগোনা বেড়ে যায়। তাদের ভয়ে স্থানীয়রা সেখান দিয়ে যেতেও
সাহস পায়না। ষোলঘর মাদকমুক্ত করতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন
তারা।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলীর কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন,
এঘটনায় আমাকে তারা ফোন করেছিল। আমি অসুস্থ ছিলাম। আমি বলেছি
আপনার যে ব্যবস্থা নেওয়ার নেন।
স্থানীয় যুবক মো. রিফাত বলেন, তারা আমাকে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে, গাঁজার বিষয়ে
যেন মুখ না খুলি।

সাধন দাস, লাইউম ও শাহাদাতের কাছে এবিষয়ে জানার চেষ্টা করা হলেও তাদের
মোবাইল নম্বরগুলো বন্ধ পাওয়া গেছে।
এব্যাপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হেদায়াতুল ইসলাম ভূঞা
জানান, বিষয়টি আমি অবগত নই। তবে দ্রুত পুলিশ পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com