সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

কক্সবাজার রেলে ভ্রমণ স্বপ্ন নয় বাস্তব

এম আর আমিন, চট্টগ্রাম

কক্সবাজার-দোহাজারী ১২৮ কিমি রেল পথের ৫৭ ভাগ কাজ শেষ, এই প্রকল্পের কক্সবাজার অংশে রেল ট্র্যাক বসানোর পাশাপাশি এখন সিগনেলিং তার টানা হচ্ছে। কক্সবাজার সদর এলাকায় ৩ কিলোমিটার রেললাইন এখন দৃশ্যমান। ১০২ রুট কিলোমিটার এবং ১২৯ ট্র্যাক কিলোমিটার দীর্ঘ এই রেললাইনের বাকি অংশেও কাজ চলছে পুরোদমে। সব মিলিয়ে প্রকল্পের অগ্রগতি ৫৭ শতাংশ।

এই প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কক্সবাজার সদরের এলাকায় বসানো রেল ট্র্যাকে থেকে সিগনেলিং তার টানার কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে প্রায় ২ কিলোমিটার রেল ট্র্যাকে সিগনেলিং তার টানার কাজ শেষ হয়েছে।
কিছুটা বেগ পেতে হচ্ছে রেল ট্র্যাক স্থাপনের কাজটি কঠিন। বর্ষার পর শুরু হবে চট্টগ্রাম অংশে রেল ট্র্যাক বসানোর কাজ।

প্রকল্পের অধীনে ৩৯টি মেজর ব্রিজ নির্মাণ করা হচ্ছে। এরমধ্যে ১৫টি ব্রিজে সিভিল ওয়ার্ক শেষ করে গার্ডার বসানো হয়েছে। ২০টি ব্রিজের সিভিল ওয়ার্ক শেষ। এখন গার্ডার বসানো হবে। বাকি ৪টিতে সিভিল ওয়ার্কের কাজ চলছে। এছাড়া দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইনে আন্ডার পাস, ওভার পাস, কালভার্ট ও মাইনর ব্রিজ নির্মাণ করা হচ্ছে ২২৩টি। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত কাজ শেষ হয়েছে ৭৬টির। বাকিগুলোর কাজ চলছে বলে প্রকল্প পরিচালক মফিজুর রহমান জানান, সাতকানিয়ায় ছাড়া বাকি জায়াগাগুলোতে মাটি ভরাটের কাজ প্রায় ৭৫ শতাংশ শেষ।

দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইনে মোট ৯টি রেল স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। এরমধ্যে ডুলাহাজরা রেল স্টেশনের কাজ শেষের দিকে। দোহাজারী, লোহাগাড়া, হারবাং, চকরিয়া, ঈদগাঁও এবং কক্সবাজারে রেল স্টেশন নির্মাণের কাজ চলছে। তবে সাতকানিয়া এবং রামুতে রেল স্টেশন নির্মাণের কাজ এখনো শুরু হয়নি।

প্রকল্প পরিচালক মফিজুর রহমান বলেন, স্টেশন নির্মাণ, মাটি ভরাট, ছোট-বড় সেতু নির্মাণ, রেল ট্র্যাক স্থাপন কাজ সমানতালে চলছে। সব মিলিয়ে প্রকল্পের অগ্রগতি ৫৭ শতাংশ।

তিনি আরো বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে দেওয়া লকডাউনেও আমরা প্রকল্পের কাজ বন্ধ রাখিনি।

তবে প্রকল্পে জন্য এখন কাটা হয়ে রয়েছে কর্ণফুলী নদীর কালুরঘাট সেতু। ১৯৩১ সালে নির্মিত এই সেতু চার দশক আগে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে রেলওয়ে।

এ প্রসঙ্গে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের অতিরিক্তি প্রকৌশলী মো. আহসান জাবীর বলেন, কালুরঘাট সেতুর নতুন করে ফিজিবিলিটি স্টাডির সিদ্ধান্ত হয়েছে। সেতুটি সিঙ্গেল ট্র্যাক রেল-কাম সড়ক সেতু হবে নাকি, ডাবল ট্র্যাক রেল-কাম সেতু হবে তা সমীক্ষার ওপরই নির্ভর করছে।

৬ মাসের মধ্যে ফিজিবিলিটি স্টাডি শেষ করতে সময় লাগে। আর নতুন ডিজাইনে সেতুর ব্যয় কত হবে তা নতুন সমীক্ষার পর নির্ধারণ হবে।
এরপর সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হলে তিন থেকে চারবছর সময় লাগতে পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com