সোমবার, ১৪ Jun ২০২১, ০২:২৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনামঃ
বিএফইউজে-ডিইউজে বিক্ষোভ সমাবেশে নেতৃবৃন্দ গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা রক্ষায় বিচার বিভাগের নিরপেক্ষ ভূমিকা জরুরি আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে পুলিশের ধাওয়ায় এক নারী শ্রমিকের মৃত্যু তিতাস তাকওয়া ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল, সম্পাদক ফারুক ও সাংগঠনিক সজীব থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা গ্রহণ করেনি মাগুরায় ১৭ জন নতুন করোনা রোগী শনাক্ত! জেলা শহরে ও মহম্মদপুরে লকডাউন ঘোষনা উত্তরা আধুনিক মেডিকেলে ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারিদের ইনজেকটিং ড্রাগ্সের রমরমা ব্যবসা স্বাস্থ্যবিধি মেনে কুবিতে সশরীরে পরীক্ষা শুরু খুটাখালীতে ইজিবাইক উল্টে গৃহবধুর মৃত্যু রংপুরে ঘাঘট নদীতে দুই ভাইবোনের মৃত্যু বাঁচতে চায় কাজল রেখা, কিন্তু পরিবারের সাধ্য নেই

বাইপাইল পাইকারী কাপড়ের মার্কেট পানি বন্দি,কয়েক কোটি টাকার ক্ষতির আসংখ্যা

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু,বিশেষ প্রতিনিধিঃ

সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানার বাইপাইল মোরে অবস্হিত পাইকারি কাপড়ের মার্কেট বৃষ্টির পানি ড্রেনেজ ব্যাবস্হা কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারণে প্রায় ২কোটি টাকার বেশি ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন মার্কেটের ব্যাবসায়ীরা।

১লা জুন রোজ মঙ্গলবার সকালে আশুলিয়ার বাইপাইল মোরে অবস্থিত মার্কেটের ভিতরে হাটু পানি জমেছে । ব্যবসায়িরা জানান বাইপাইলে বৃষ্টির পানি নিস্কাশনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা সচল না থাকায় আমাদের আজকে এই পরিণতি। মহামারী করোনাভাইরাস এর কারণে আমরা ব্যবসা নিয়ে সংকটে আছি।

ঈদের পরে নতুন করে স্বপ্ন দেখেছিলাম ব্যবসা করার। কিন্তু আজকের বৃষ্টিতে আমাদের সেই স্বপ্ন ধুয়ে মুছে গেছে।
চোখে পড়ে দোকানীরা হাটু সমান ময়লা পানিতে ভিজে কাপড়ের থান স্হানান্তর করে শুকানোর চেষ্টা করছেন।

ব্যবসায়ীরা জানান, আজ সকালের মুষলধারে বৃষ্টিতে মার্কেটে পানি ঢুকে প্রায় ১০-১৫ কোটি টাকার কাপড় ভিজে যায়। আমরা দোকান থেকে কাপড় বের করে শুকাতে দিয়েছি। এই কাপড় শুকিয়ে বিক্রি করলে প্রায় দু’থেকে আড়াই কোটি টাকার লোকসান গুনতে হবে আমাদেরকে।

এসএস এন্টারপ্রাইজের মালিক আহসান উল্লাহ বলেন, রাতে আমার দোকানে এক ছোট ভাই থাকে, সে ভোরে আমাকে খবর দেয় দোকানে পানি ঢুকেছে।

আমি দোকানে এসে কাপড় গুলো টেনে বের করি এবং তা শুকাতে দেই। এই পানিতে আমার ১৬ হাজার টাকা দামের ৪০-৫০টি থান ভিজে গেছে। এছাড়াও প্রায় শতাধিক ওয়ানপিচ ভিজে গেছে, যার দাম আছে ২০০-২৫০ টাকা। সব মিলিয়ে আমার ৭-৮ লাখ টাকার কাপড় ভিজে গেছে।

ভুইয়া বস্ত্র বিতানের মালিক সেলিম ভূইয়া জানান আমার ছাপা ও এক কালারের প্রায় ৮-১০ লাখ টাকার কাপর ভিজে গেছে, যা শুকিয়ে কমদামে বিক্রি করলেও ২-৩ লাখ টাকার ক্ষতি হবে।

আল সাদিয়া বস্ত্রালয়ের প্রোপাইটার মোঃ আনিস বলেন, আমার পপলিন কাপড়ের প্রায় ৪০০ থান ভিজে গেছে, যার দাম ১৫০০ টাকা করে। কালার কাপরের প্রায় ৫০০ থান ভিজেগেছে, যার দাম ১৬০০ টাকা করে। তাতে সব মিলিয়ে ১২-১৫ লাখ টাকার কাপড় ভিজে গেজে। যদি শুকিয়ে বিক্রি করতে পারি, তাহলে হয় তো ৩-৪ লাখ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হবে। আর বিক্রি করতে না পারলে পুরোটাই ক্ষতি হবে।

মার্কেটের চেয়ারম্যান আওলাদ হোসেন সাংবাদিকদের জানান, সকালে মার্কেটে পানি উঠার খবর পেয়ে ছুটে আসি। এসে দেখি মার্কেটের ১০৩টি দোকান বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। সব দোকানীদের ১০-১৫ লাখ টাকার কাপড় ভিজে গেছে। যদি এই কাপড় শুকিয়ে বিক্রি করতে পারে। তাহলে হয় তো ক্ষয়-ক্ষতি কিছুটা কম হবে। তারপরেও সব দোকান মিলিয়ে দুই থেকে আড়াই কোটি টাকার লোকসান গুনতে হবে।

কাপর ব্যাবসায়ীসহ স্হানীয় বাসিন্দাদের দাবী পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থা করে দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। তা না হলে আমরা আরও বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পরবো। তারা দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে সংস্লিস্টদের প্রতি জোর দাবি করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
Design & Developed BY TechPeon.Com