1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঈদুল আজহা ও কোরবানি | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

ঈদুল আজহা ও কোরবানি

মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২১ জুলাই, ২০২১
  • ৫৪ বার

ঈদুল আযহা’ সবাইকে ঈদ মুবারক। ঈদুল আজহার সঙ্গে রয়েছে কোরবানির সম্পর্ক। যে কারণে আমাদের দেশে ঈদুল আজহা কোরবানির ঈদ নামে পরিচিত।

রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, কোরবানি হচ্ছে হজরত ইবরাহিম (আ.)-এর সুন্নত। হজরত জায়েদ ইবনে আরকাম (রা.) বর্ণনা করেন, ‘আমি আরজ করলাম ইয়া রসুলুল্লাহ! এ কোরবানি কী? তিনি ইরশাদ করলেন তোমাদের পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.)-এর সুন্নত। ’ আবু দাউদ। আল কোরআনে কোরবানিকে কেন্দ্র করে সংঘটিত হজরত ইবরাহিম ও ইসমাইল (আ.)-এর ঘটনাও উল্লেখ করা হয়েছে, ‘এরপর সে যখন তার পিতার সঙ্গে কাজ করার মতো বয়সে উপনীত হলো তখন ইবরাহিম বলল, বৎস! আমি স্বপ্নে দেখি যে তোমাকে আমি জবাই করছি, এখন তোমার অভিমত কী বল? সে বলল, হে আমার পিতা! আপনি যা আদিষ্ট হয়েছেন তা করুন। আল্লাহ ইচ্ছা করলে আপনি আমাকে ধৈর্যশীল পাবেন। যখন তারা উভয়ে আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইবরাহিম তার পুত্রকে কাত করে শোয়াল তখন আমি তাকে আহ্বান করে বললাম, হে ইবরাহিম! তুমি তো স্বপ্নাদেশ সত্যই পালন করলে! এভাবেই আমি সৎকর্মপরায়ণদের পুরস্কৃত করি। ’ সুরা সাফফাত, ১০২-১০৫।

হজরত ইবরাহিম (আ.) স্বপ্নে আল্লাহর নির্দেশপ্রাপ্ত হয়ে নিজ পুত্র ইসমাইলকে কোরবানি করার মানসিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। এ উদ্দেশ্যে তিনি ইসমাইলকে নিয়ে মিনার একটি নির্জন স্থানে যান এবং তাঁর চোখ বেঁধে মাটিতে শুইয়ে দেন। এরপর কোরবানির জন্য পুত্রের গলায় ছুরি চালান। কিন্তু আল্লাহ তাঁর নির্দেশ পালনের প্রতি পিতা এবং পুত্রের অপরিসীম ত্যাগ স্বীকারে খুশি হন এবং হজরত ইসমাইলকে (আ.) রক্ষা করেন। আর আল্লাহর তরফ থেকে প্রেরিত একটি মেষ বা দুম্বাকে ইসমাইল (আ.)-এর পরিবর্তে কোরবানি করা হয়।
হাদিসে এসেছে, ‘রসুল (সা.) হজরত ফাতিমা (রা.)-কে তাঁর কোরবানির সময় উপস্থিত থাকতে বলেন এবং ইরশাদ করেন, এ কোরবানির প্রথম রক্তবিন্দু প্রবাহিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহতায়ালা তোমার গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসুলুল্লাহ! এটা শুধু আহলে বাইতের জন্য নাকি সব মুসলিমের জন্য? উত্তরে তিনি ইরশাদ করেন, এ ফজিলত সব মুসলিমের জন্য। ’ মুসনাদে বাজজার, আত্তারগিব ওয়াত্তারহিব।

যারা সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও এ ইবাদতটি পালন করে না তাদের ব্যাপারে বলা হয়েছে, ‘যে ব্যক্তির কোরবানির সামর্থ্য রয়েছে কিন্তু কোরবানি করে না সে যেন আমাদের ঈদগাহে না আসে। ’ মুস্তাদরাকে হাকেম, আত্তারহিব।

কোরবানির প্রয়োজনীয় কিছু মাসালা : ক. ১০ জিলহজ ফজর থেকে ১২ জিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত কোনো প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ মস্তিষ্ক নর-নারীর কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত সাড়ে ৫২ তোলা রুপার মূল্য পরিমাণ সম্পদ থাকলে তার কোরবানি করা ওয়াজিব।

খ. কোরবানির নিসাব পুরো বছর থাকা জরুরি নয়; বরং কোরবানির দিনগুলোয় থাকলেই তা ওয়াজিব হবে। সূত্র : বাদায়েউস সানায়ে, রদ্দুল মুহতার। নাবালেগ সন্তানাদি নিসাবের মালিক হলেও ওদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব নয়। বাদায়েউস সানায়ে, রদ্দুল মুহতার। গরিব ব্যক্তির ওপর কোরবানি করা ওয়াজিব নয়; তবে সে যদি কোরবানির নিয়তে কোনো পশু কেনে তাহলে তা কোরবানি করা ওয়াজিব হয়ে যায়। বাদায়েউস সানায়ে।

গ. মোট তিন দিন কোরবানি করা যায়। জিলহজের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত। তবে সম্ভব হলে জিলহজের ১০ তারিখেই কোরবানি করা উত্তম। মুয়াত্তা মালিক, বাদায়েউস সানায়ে, আলমগিরি।

ঘ. কেউ যদি কোরবানির দিনগুলোয় ওয়াজিব কোরবানি দিতে না পারে তাহলে পরে তার ওপর কোরবানির উপযুক্ত একটি ভাগের মূল্য সদকা করা ওয়াজিব । বাদায়েউস সানায়ে, কাজিখান । উট, গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা, দ্বারা কোরবানি করা জায়েজ । এসব গৃহপালিত পশু ছাড়া অন্যান্য পশু যেমন – হরিণ, বন্য গরু, ইত্যাদি দ্বারা কোরবানি করা জায়েজ নয় । ( কাজিখান – বাদায়েউস সানায়ে -)। কোরবানির উট কমপক্ষে দুই বছরের হতে হবে । গরু ও মহিষ কমপক্ষে দুই বছরের হতে হবে।
আর ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা কমপক্ষে এক বছরের কিছু কমও হয় কিন্তু এমন হৃষ্টপুষ্ট যে তা দেখতে এক বছরের মতো মনে হয় তাহলে তা দ্বারা কোরবানি জায়েজ । অবশ্য এ ক্ষেত্রে কমপক্ষে ছয় মাস বয়সের হতে হবে । ( কাজিখান – বাদায়েউস সানায়ে -)। একটি ছাগল, ভেড়া বা দুম্বা দ্বারা শুধু একজনই কোরবানি দিতে পারবেন । আর উট, গরু, মহিষে, সর্বোচ্চ সাতজন শরিক হতে পারবেন। ( মুসলিম -)।

ঙ- সাতজ মিলে কোরবানি করলে সবার অংশ সমান হতে হবে । উট, গরু, মহিষ, সাত ভাগে এবং সাতের কমে যে কোনো সংখ্যা যেমনঃ দুই, তিন,
চার, পাঁচ, ও ছয় ভাগে কোরবানি করা জায়েজ । ( মুসলিম – বাদায়েউস – সানায়ে)
যদি কেউ আল্লাহ তায়ালার হুকুম পালনের উদ্দেশ্যে কোরবানি না করে শুধু গোশত খাওয়ার নিয়তে কোরবানি করে বা লোক দেখানোর নিয়তে কোরবানি করে তাহলে কারও কোরবানি হবে না । ( বাদায়েউস – সানায়ে – কাজিখান -)

এদিকে আরেকটি তাৎপর্য ও বর্ণনা হচ্ছে__# কোরবানিঃ আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের অন্যতম মাধ্যম #

কোরবানি হলো মুসলিম জাতির অন্যতম একটি ইবাদত যা প্রতি বছর নিদিষ্ট সময়ে বিত্তবানবানদের উপর আরোপিত হয় এবং মুসলিম উম্মাহ কোরবানি নামক ইবাদাতের মাধ্যমে মহান আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য লাভ করে থাকে । কোরবানি হচ্ছে নিদিষ্ট দিনে নিদিষ্ট ব্যক্তির পক্ষ থেকে আল্লাহর সন্তুষ্টি ও পুরস্কার লাভের আশায় নিদিষ্ট পশু জবেহ করা । অর্থাৎ নিদিষ্ট জন্তকে একমাত্র আল্লাহ পাকের নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে নিদিষ্ট সময়ে নিধারিত নিয়মে মহান আল্লাহ পাকের নামে জবেহ করাই হলো কোরবানি ।
আদি পিতা আদম আ.-এর দুই পুত্র কাবীল ও হাবীলের দেওয়া কুরবানি থেকেই কুরবানির ইতিহাস শুরু। তারপর থেকে সকল মুসলিম উম্মাহর উপর তা জারী হয়েছে। আমাদের উপর যে কুরবানির নিয়ম নির্ধারিত হয়েছে, তা মূলতঃ ইবরাহীম আ. কর্তৃক শিশু পুত্র ইসমাঈল আ.-কে আল্লাহর রাহে কুরবানি দেওয়ার অনুসরণে ‘সুন্নাতে ইবরাহিমী’ হিসাবে চালু হয়েছে। সুন্নাতে ইবরাহিমী কুরবানির দিনকে ইয়াওমুন নাহর বা ঈদুল আজহা বলা হয়। বাংলা ভাষাভাষী মানুষসহ পাশ্ববর্তী দেশগুলোতে এ দিনটি কুরবানির ঈদের দিন হিসেবে পরিচিত।
যিলহজ্জ মাসের ১০ থেকে ১২ তারিখের মধ্যে এই ইবাদত পালন করতে হয়। পবিত্র কুরআন মজিদে কুরবানি সম্পর্কে বলা হয়েছে- ‘আর কুরবানীর পশু সমূহকে তোমাদের জন্য আল্লাহর নিদর্শন সমূহের অন্তর্ভুক্ত করেছি। এর মধ্যে তোমাদের জন্য কল্যাণ রয়েছে’। (আল কুরআন; ২২ : ৩৬)
অন্যত্র এরশাদ হয়েছে- হে নবি আপনি বলুন! আমি তাঁর (ইসমাঈলের) পরিবর্তে যবহ করার জন্য দিলাম একটি মহান কুরবানি । আর এটিকে পরবর্তীদের মধ্যে রেখে দিলাম’।(আল কুরআন; ৩৭ : ১০৭-১০৭)
অন্যত্র এরশাদ হয়েছে- ‘তুমি তোমার প্রতিপালকের উদ্দেশ্যে সালাত আদায় কর এবং কুরবানি কর’।(আল কুরআন; ১০৮ : ২)
কাফির-মুশরিকরা তাদের দেব-দেবী ও বিভিন্ন কবর ও বেদীতে পূজা দেয় এবং মূর্তির উদ্দেশ্যে কুরবানি করে থাকে। তার প্রতিবাদ স্বরূপ মুসলমানকে আল্লাহর জন্য সালাত আদায়ের ও তাঁর উদ্দেশ্যে কুরবানি করার হুকুম দেওয়া হয়েছে।
এটি ইসলামের অন্যতম একটি ইবাদাত হওয়ায় রাসূলুল্লাহ সা. নিজে মদীনা জীবনে প্রতি বছর কুরবানি আদায় করেছেন এবং সাহাবীগণও নিয়মিতভাবে কুরবানি আদায় করেছেন। অতঃপর অবিরত ধারায় মুসলিম উম্মাহ সামর্থ্যবানদের মধ্যে এটি চালু রয়েছে।
মানুষ কুরবানির মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য লাভে ধন্য হতে চায়। আল্লাহ তায়ালার জন্য মানুষ তার সবচেয়ে প্রিয় জিনিস ত্যাগ করার বিশেষ একটি পরীক্ষা হলো কুরবানি। কুরবানি আমাদেরকে সেই পরীক্ষার কথাই বারবার স্মরণ করিয়ে দেয়। ইবরাহীম আ. এর কাছে আল্লাহর পরীক্ষাও ছিল তাই। আমাদেরকে এখন আর পুত্র (সন্তান) কুরবানি দেওয়ার মত কঠিন পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হয় না। একটি হালাল পশু কুরবানি করেই আমরা সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারি।
মুসলিম জাতির জন্য আল্লাহর কাছে কুরবানীর দিনে রক্ত প্রবাহিত করার চাইতে অধিকতর প্রিয় আর কিছুই নয়। কুরবানির রক্ত মাটি স্পর্শ করার পূর্বেই আল্লাহর কাছে তার সওয়াব গ্রাহ্য হয়ে যায়। আল্লাহ দ্ব্যর্থহীন ভাষায় কুরবানিদাতাকে সাবধান করে দিয়েছেন, ‘কুরবানির পশুর রক্ত গোশত কোন কিছুই আল্লাহর কাছে পৌঁছে না, পৌঁছে কেবল তোমাদের তাক্বওয়া’। (আল কুরআন; ২২: ৭) অর্থাৎ কুরবানিদাতা যেন আল্লাহর ভয়ে ভীত হয়ে তাঁর সন্তুষ্টির জন্যই কুরবানি করে।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায়, ‘তোরা ভোগের পাত্র ফেলরে ছুঁড়ে, ত্যাগের তরে হৃদয় বাঁধ’। মানুষ আল্লাহর জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করবে, এই শিক্ষাই ইবরাহীম আ. আমাদের জন্য রেখে গেছেন। মহানবি সা. আমাদের জন্য ঐ ত্যাগের আনুষ্ঠানিক অনুসরণকে বিশেষ মর্যাদা দিয়েছেন। আর কুরবানির মূল আহবান হ’ল সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর প্রতি একনিষ্ঠ আনুগত্য প্রকাশ করা।
আল্লাহ তায়ালা কুরবানির মাধ্যমে আমাদেরকে তাঁর নৈকট্য অর্জনে তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : বিশেষ প্রতিবেদক শ্যামল বাংলা ডট নেট | ও সদস্য ডিইউজে |

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম