1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কালীগন্জে ত্রানের টাকা আত্মসাত ইউপি চেয়ারম্যানের প্রতি ১২ সদস্যর অনাস্থা | দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০২ অগাস্ট ২০২১, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
হাটহাজারীতে আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসকারীদের মাঝে ত্রাণ বিতরণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক দৈনিক ডাক প্রতিদিনের সম্পাদক আর নেই। বনানীতে টিবিএল ফুডের প্রথম সাধারন সভা অনুষ্ঠিত খুলল শিল্পকারখানা চাপে শ্রমিকরা __ দ্রুত শ্রমিকদের টিকা দিতে হবে শ্রীনগরে মসজিদের টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে সাংবাদিক হাবিব আল জালালের ইন্তেকাল শ্রীনগরে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মসিউর রহমান মামুন আশুরোগ মুক্তি কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল চৌদ্দগ্রামে সাংবাদিক সিরাজুল ইসলাম ফরায়েজীর ভাই রফিকুল ইসলামের ইন্তেকাল চৌদ্দগ্রামে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান হাটহাজারী গুমানমর্দ্দন ইউনিয়নে নজরুল সংঘ কমিটি গঠন

কালীগন্জে ত্রানের টাকা আত্মসাত ইউপি চেয়ারম্যানের প্রতি ১২ সদস্যর অনাস্থা

লাভলু শেখ, স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ২৬ বার

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে হতদরিদ্রদের জন্য করোনায় জেনারেল রিলিফ (জিআর) নগদ অর্থ বিতরনে নয়ছয় করে কৌশলে অর্থ আত্মসাত করার অভিযোগ উঠেছে ৪ নং দলগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান রাবিন্দ্রনাথ বর্মনের বিরুদ্ধে।
এ ঘটনায় চেয়ারম্যানের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির ফিরিস্তি তুলে ধরে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন । একইসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর চেয়ারম্যানের অপসারণ দাবি করে ৮ জুলাই অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের নির্বাচিত ১২ জন ইউপি সদস্য।

জানা গেছে, করোনায় হতদরিদ্রের জন্য জিআর বরাদ্দে দলগ্রাম ইউনিয়নে ৫৫০ জন সুবিধাভোগীর প্রত্যেককে ৫০০ টাকা করে প্রদানের নির্দেশ থাকলেও অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এর ভিন্ন চিত্র।
তালিকা অনুযায়ী বেশ কিছু সুবিধাভোগী পরিষদে যাওয়ার আগেই চেয়ারম্যান তার লোকদেরকে দিয়ে নামের তালিকায় জাল টিপে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেন।
তালিকায় নাম থাকা ৩ নং ওয়ার্ডের উঃ দলগ্রাম এলাকার রনজিৎ কুমার ও তার স্ত্রী স্বপ্না রানী বলেন, মাষ্টার রোলে আমাদের নাম আছে কিন্তু টাকা পাইনি। এভাবে টাকা আত্মসাত হওয়ার ঘটনা টের পাননি তালিকায় নাম থাকা আরও অনেকেই।

মাষ্টার রোলে থাকা ৩ নং ওয়ার্ডের ১৮ টি নামের টাকা উত্তোলন করেন কালভৈরব বাজারের পল্লী চিকিৎসক ললিত মোহন রায়। এ বিষয় জানতে চাইলে ওই পল্লী চিকিৎসক জানান, চেয়ারম্যান ১৮ টি নামের টাকা দিয়েছে বাজারে রাস্তার কাজ করার জন্য। তালিকায় হতদরিদ্রদের নাম আছে অথচ টাকা নেই। ফলে কৌশলে এ টাকা আত্মসাত করেন চেয়ারম্যান।
অনাস্থা প্রস্তাবে উল্লেখ করেন গত ২৮ জুন করোনাকালীন জিআর বরাদ্দের টাকা বিতরনে চেয়ারম্যান একেকজনকে দিয়ে একাধিক নামের টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন এবং ৫ নং ওয়ার্ডের তালিকায় নাম আছে টাকা পায়নি অনেকেই। ২০১৯-২০ ও ২০২০-২১ অর্থবছরে নামসর্বস্ব বিভিন্ন প্রকল্প দেখিয়ে চেয়ারম্যান প্রায় ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। জন্ম নিবন্ধন সনদ দিতে ৪শ’ থেকে ৫শ টাকা, প্রত্যায়নপত্র দিতে ৫০ টাকা, ভূমিহীন সনদ দিতে ৫শ’ থেকে ১ হাজার টাকা আদায় করেন। এছাড়া পরিষদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সদস্যদের সাথে সমন্বয় না করে তিনি একক সিদ্ধান্তেই সব কার্যক্রম চালান।

তদন্ত করলেই অনাস্থা প্রস্তাবের কারণ হিসেবে উল্লেখ করা বিষয়গুলোর সত্যতা পাওয়া যাবে বলে দাবি করেন ওই পরিষদের একাধিক সদস্য।
এ বিষয় ইউপি চেয়ারম্যান রবিন্দ্রনাথ বর্মন বলেন,আমার বিরুদ্ধে যড়যন্ত্রমুলক ইউপি সদস্যরা অভিযোগ করেছেন। যাহা ভিত্তিহীন।
এ বিষয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আব্দুল মান্নান চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব প্রাপ্তির কথা নিশ্চিত করে জানান,বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম