1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কোরবানী সামনে হলেও কাজ না থাকায় ভালো নেই ভোলার কামাররা | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৫:৩০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
চৌদ্দগ্রামের কাশিনগরে ভূমিহীনদের মাঝে ১১টি ঘর হস্তান্তর খুটাখালীর বৃহত্তর ৬ নং ওয়ার্ডে এবার মেম্বার প্রার্থী হচ্ছেন শাহাব উদ্দীন আরমান নোয়াখালীর ঐতিহ্য নোয়াখালী টাউনহলের আধুনিকীকরনের জোর দাবী জেলার বাসিন্দাদের ঝিনাইদহে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত, আহত-৫ নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা

কোরবানী সামনে হলেও কাজ না থাকায় ভালো নেই ভোলার কামাররা

খলিল উদ্দিন ফরিদ।।ভোলা জেলা প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১
  • ২০ বার

কোরবানীতে যেখানে দম ফেলার সুযোগ থাকে না, সেখানে একরকম অলস সময় কাটাচ্ছে ভোলার কামালীরা। কাজ না থাকায় খেয়ে না খেয়ে কোন রকম জীবন কাটছে এই শিল্পর সাথে জড়িতরা। কোরবানীর সময় বেশি না থাকলেও মানুষের এবছর পশু জবাই,মাংস বানাতে চাপাডি,চাকু,দাসহ কোন কিছুরই প্রতি যেন আগ্রহ নেই এবছর। তাই ভালো নেই এই শিল্পের সাথে জড়িতরা।

সারাদেশে লকডাউন চলছে। তা থেকে বাদ নেই দ্বীপ জেলা ভোলা।তার পরেও শহরের দোকানপাট বন্ধ থাকলেও কোন রকম খুলেছে সদর উজেলার ইলিশা হাটের কয়েকটি দোকান। এখানে প্রতি বছর পশুরহাট বসে। এবছর একবার বসলেও পরে প্রশাসনের নির্দেশে পরবর্তিতে আর বসেনি। তবে কাঁচাবাজার এর সাথে ২/৪টি কামারের দোকান খুলেছে। দা,বটি,ছুড়ি বানিয়ে বসলেও কোন ক্রেতা নেই। ২/১ জন আসেন পুরনো কাচিঁতে একটু ধার দেয়াতে। সারাদিন কিছুই বিক্রি করতে পারেনি কামাল শিল্পের পুরনো কারিগড় তপন কর্মকার। ইলিশাতে বাড়ি তার। পূর্ব পুরুষরা সকলেই এই শিল্পের সাথে জড়িত বলে সেও কাজ করছে। কোরবানী চলে এসেছে কোন ক্রেতা নেই। সারাদেশের লকডাউন চলে তাই দুর থেকেও লোকজন আসছে না। খেয়ে না খেয়ে কাটছে এদের জীবন,এভাবেই বলছিলেন তিনি। শুধু তপন কর্মকার নয় রিপন ভক্ত ও মোঃ খলিল মিয়ার একই অবস্থা। সবকিছু সাজিয়ে বসলেও ক্রেতা না থাকায় হতাশ তারা। এভাবে চললে না খেয়ে মরতে হবে এমনটাই ক্ষোভ প্রকাশ করলেন তারা।
এদিকে ভোলা শহরের কালীনাথ রায়ের বাজার এলাকা ঐতিজ্যবাহি কামাল শিল্পের জন্য পরিচিত এক স্থান। লকডাউন থাকায় সেখানেও রয়েছে সব বন্ধ। ১৫/১৬টি দোকান থাকলেও দীর্য দিন ধরে বন্ধ থাকায় বিপাকে পরেছে সাধারন মানুষ। পশু জবাই করার জন্য দা,বটি,চাকু ও চাপাডি ক্রয় করতে পারছে না। মোঃ সোলায়মান বল্লেন,আমরা কোরবানী দিব। গত বছর চাপাডি,চাকু ক্রয় করে রেখেিেছ। এবছর একটু ধার দিব তা পারছি না। এভাবে চল্লে কোরবানী দেয়া কস্ট হয়ে যাবে বলেও মন্তব্য করেন এই লোক। তাই কোরবানীর সাথে জড়িত কিছু প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমতি দেয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

ছবির ক্যাপসনঃ ভোলার ইলিশা জশংন বাজারে কামাররা সাজিয়ে বসলেও ক্রেতা শুন্য

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম