1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রামগড়ে শান্তিবাহিনীর গণহত্যার ৩৫ বছর, ক্ষতিপূরণের দাবী ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৩:৫৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা মাগুরার শ্রীপুরে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০টি পালস্ অক্সিমিটার হস্তান্তর মীরসরাইয়ে সামীয়া ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা আনোয়ারায় ৩৩৩ নম্বরে ফোনে ত্রাণ সহায়তা পেল কর্মহীন ১৩০ পরিবার ৫০ কেজি গাঁজাসহ পুলিশের এক সদস্য সহ গ্রেফতার ৪ চির নিদ্রায় শায়িত হলেন সাংবাদিক সামসুল আলম ডিপ্টি

রামগড়ে শান্তিবাহিনীর গণহত্যার ৩৫ বছর, ক্ষতিপূরণের দাবী ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের

রামগড় (খাগড়াছড়ি) প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১
  • ২২ বার

খাগড়াছড়ি জেলার রামগড় উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়নের ডাকবাংলা পাড়ায় তৎকালীন পাহাড়ের সন্ত্রাসী সংগঠন শান্তিবাহিনীর দ্বারা গণহত্যা সংঘটিত হয়। গণহত্যার ৩৫ বছর অতিবাহিত হলেও নিহত পরিবারগুলো আজও নিজ ভিটায় ফিরতে পারেনি, পায়নি ক্ষতিপূরণ। গণহত্যার এইদিনে সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ দাবী করেছেন নিহতদের পরিবার ও স্থানীয়রা।

১৯৮৬ সালের ১৩ জুলাই সন্ত্রাসীদের ঘটানো গণহত্যায় নিহতদের গণকবর সংরক্ষণের পাশাপাশি পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ববর্তী সময়ে তিন পার্বত্য জেলায় সংগঠিত বিভিন্ন গণহত্যার নথিপত্রে রামগড়ের পাতাছড়া গণহত্যার ঘটনা প্রকাশ করতে এবং বাস্তুভিটাহীন পরিবার গুলোকে নিজ ভূমিতে ফেরত পাঠানো, প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণসহ পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় গণহত্যার প্রত্যক্ষদর্শী ও নিহতদের স্বজনরা।

পাতাছড়ার বাসিন্দা ও তৎকালীন আনসার সদস্য মোঃ মমতাজ মিয়া সেদিনের বর্বরোচিত ঘটনা সম্পর্কে বলেন, পাহাড়ের তৎকালীন শান্তিবাহিনীর একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসীর এলোপাতাড়ি গুলি ও অগ্নিসংযোগে সেদিন নিহত হয়েছিল ৫ শিশুসহ ৭ জন। কয়েকদিন পর ঘটনাস্থলের খুব কাছ থেকে আরও একজনের মরদেহ উদ্ধার করেছিল স্থানীয়রা। একই বছরের ১৩ আগস্ট আরও এক নিরহ গ্রামবাসীকে গুম করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। প্রথম দিনের ঘটনায় নিহতদের গণকবরে ঠাঁই হলেও পরবর্তীতে নিহতদের কপালে তাও জুটেনি। নিরিহ গ্রামবাসীর ওপর পরপর এমন হামলায় ভয়ে পালিয়ে অন্যত্র চলে গিয়েছিল ২ শতাধিক পরিবার। কয়েক বছর পর নিজেদের বাস্তুভিটায় ফেরার চেষ্টা করলেও তৎকালীন পরিস্থিতি বিবেচনায় প্রশাসন ফিরতে দেয়নি তাদের। সব মিলিয়ে ৩৫ বছরেও ফেরা হয়নি নিজ বসত ভূমিতে।

স্বজন হারা নজরুল ইসলাম বলেন, সেদিনের ঘটনায় ১৪টি গুলিবিদ্ধ হয়ে আমার মায়ের মৃত্যু হয়। সন্ত্রাসীরা আমাদের বাড়ীঘর জ¦ালিয়ে দেয়। আজও আমরা নিজ ভিটায় ফিরতে পারেনাই। প্রয়োজনীয় ক্ষতিপূরণসহ পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করার জন্য সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম