1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রামেক হাসপাতালে হাই ফ্লো ক্যানুলা সংকট চরমে সাধারণ ওয়ার্ডের রোগীর বেশি মৃত্যু - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০১:১৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
রাউজানে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু আনোয়ারা প্রেস ক্লাবের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রাউজানে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গাপূজা অসুর শক্তিকে ধ্বংস করে করে আওয়ামীলীগ আজ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় : এমপি হানিফ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীর শাকিল হত্যা মামলার আসামি এক মাস ধরে পলাতক, ইউপি চেয়ারম্যানকে খুঁজছে পুলিশ ! উন্নয়নের সুষম বণ্টনই আমার প্রধান লক্ষ্য : নিবাচনী প্রচারণায় ভার্ড কামাল বিএসএফ’র গুলিতে বাংলাদেশী যুবক আহত । ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে বৈদ্যুতিক স্পর্শে প্রাণ গেল যুবকের! ঠাকুরগাঁও থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্রী গাজীপুর থেকে উদ্ধার —আসামীরা পলাতক ! ১০ বছরেও সংস্কারের মুখ দেখেনি শীলকূপ-গন্ডামারা সড়ক, খানাখন্দে বেহাল জনদুর্ভোগ

রামেক হাসপাতালে হাই ফ্লো ক্যানুলা সংকট চরমে সাধারণ ওয়ার্ডের রোগীর বেশি মৃত্যু

রঈন উদ্দীন:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ১০৩ বার

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে জুলাই মাসের ৫দিনে ৮২জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। তাদের বেশির ভাগই করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাচ্ছে। এছাড়া গত মাসে (জুন) ৪০৫ জন রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ৮০ জনের মতো রোগী মারা গেছে ইনসেনসিভ কেয়ার ইউনিটে। আর বাকিরা মারা গেছে সাধারণ ওয়ার্ডে, যাদের অনেকেই অক্সিজেন তো দূরের কথা, হাসপাতালের শয্যাও পায়নি। আবার শয্যায় থেকেও অনেকেই হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা মেশিনের অভাবে মারা গেছে।

হাসপাতালের আইসিইউ ইনচার্জ চিকিৎসক আবু হেনা মোস্তফা কামাল জানান, হাসপাতালে মোট ৬৯টি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা মেশিন রয়েছে। এর মধ্যে ২১টি রয়েছে আইসিইউতে। আর ২০টি রয়েছে ২৯ ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে। আর অন্য ২৮টি দেওয়া আছে হাসপাতালের করোনার ১০টি ওয়ার্ডে। তবে চারটি মেশিন নষ্ট আছে। ফলে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৬০টি হাই ফ্লো মেশিনের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করা যাচ্ছে। কিন্তু আইসিইউতে রোগীদের যে চাপ তাতে আরো ৪০টি শয্যা করা হলেও এই চাপ সামলানো কঠিন হবে।

রাজশাহী হাসপাতাল থেকে দেওয়া তথ্য মতে, এখন প্রতিদিন হাসপাতালের রোগীদের জন্য আট হাজার লিটার অক্সিজেন সরবরাহ করা হচ্ছে, যার বেশির ভাগই ব্যবহৃত হচ্ছে আইসিইউ ও এইচডিইউ ওয়ার্ডের রোগীদের জন্য। কারণ এসব ওয়ার্ডে প্রায় ৬০টি হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা মেশিনের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহ করতে হচ্ছে। একেকটি রোগীকে প্রতি মিনিটে ৬০-৮০ লিটার পর্যন্ত অক্সিজেন সরবরাহ করতে হচ্ছে। ফলে সাধারণ শয্যায় বা মেঝেতে যেসব রোগী ভর্তি আছে, তাদের পেছনে অর্ধেক অক্সিজেনও সরবরাহ করা যাচ্ছে না হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা মেশিন না থাকায়। আর যেসব রোগীর আইসিইউ প্রয়োজন হচ্ছে, কিন্তু সেই সুবিধা দেওয়া যাচ্ছে না বা হাই ফ্লো অক্সিজেন সরবরাহ করা যাচ্ছে না, করোনার সেসব সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রোগীরাই বেশি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে।
হাসপাতালের দেওয়া প্রতিদিনের তথ্যচিত্রেও সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রোগীদেরই বেশি মৃত্যু হচ্ছে। এমনকি রোগীর স্বজনরাও দাবি করছে, আইসিইউ সুবিধা না এবং হাই ফ্লো অক্সিজেন সরবরাহ সুবিধা না পেয়েই মারা যাচ্ছে বেশির ভাগ রোগী।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার শামীম ইয়াজদানী জানান, গত জুন মাস এবং চলতি মাসে করোনা ওয়ার্ডে মোট রোগী মারা গেছে ৪৮৭ জন। এদের মধ্যে অনেকেই মারা গেছে সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায়, যারা সবাই উচ্চ শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি ছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম