1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
শিক্ষকদের অমর্যাদা করে শিক্ষার উন্নয়ন সম্ভব? | দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৪:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের কাকৈরতলা খন্দকার বাড়ির সামনের রাস্তায় জলাবদ্ধতা, চরম দুর্ভুগে জনজীবন ঘরে ঘরে জ্বর সর্দির রোগি, করোনা টেস্টে অনিহা চরম কষ্টে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষ তিনদিনের টানাবৃষ্টিতে শরণখোলার ১৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি শিক্ষকতা পেশার সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো জরুরি ধর্মপাশায় অগ্নিকান্ডে আড়াই লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি গহিরায় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ইউনিয়ন ভিক্তিক টিকা প্রদানে উৎসাহিত করণ সভা মাগুরার শ্রীপুরে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও ১০টি পালস্ অক্সিমিটার হস্তান্তর মীরসরাইয়ে সামীয়া ট্রেডিং নামে একটি প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা আনোয়ারায় ৩৩৩ নম্বরে ফোনে ত্রাণ সহায়তা পেল কর্মহীন ১৩০ পরিবার ৫০ কেজি গাঁজাসহ পুলিশের এক সদস্য সহ গ্রেফতার ৪

শিক্ষকদের অমর্যাদা করে শিক্ষার উন্নয়ন সম্ভব?

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১১ জুলাই, ২০২১
  • ১৪৭ বার

শিক্ষকদের বলা হয় মানুষ তথা জাতি গঠনের কারিগর। যে দেশের কারিগর যত ভাল, সে দেশ তত ভাল নাগরিক তৈরি করতে পারবে।শিক্ষকদের অমর্যাদা করে শিক্ষার উন্নয়ন সম্ভব নয়।আমি মনে করি, শিক্ষকতা হচ্ছে পৃথিবীর সর্বশ্রেষ্ঠ পেশা। শিক্ষাদানের মহান ব্রত নিয়ে কাজ করেন একজন শিক্ষক। আর এই শিক্ষকতায় আসা উচিত দেশের সর্বোচ্চ মেধাবীদের, তাহলেই দেশে সুনাগরিক তৈরি হবে, তৈরি হবে ভাল মানুষ।

শিক্ষক ছাত্রছাত্রীদের জীবন ও যুগোপযোগী শিক্ষা দেন। তাদের জ্ঞান অর্জনের পথ দেখান। আমাদের সমাজে এই শিক্ষকদেরকে যথাযথ মর্যাদা দেয়া হয় না, দেয়া হয়না তেমন আর্থিক সুবিধা। সরকারি স্কুল কলেজে আর্থিক সুযোগ সুবিধা যা আছে তা মোটামুটি, তারপরেও শিক্ষকদের আরও আর্থিক সুবিধা দেয়া দরকার, তাহলে তাঁরা চিন্তামুক্ত হয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা দিতে পারবে।

আর বেসরকারি (এম,পি,ও ভুক্ত)স্কুল কলেজে যারা চাকরি করেন তাদের অবস্থা তো খুবই খারাপ, নিবন্ধনী পাশ করা একজন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের প্রারম্ভিক বেতন ১২৫০০ টাকা, তারা ঈদ বোনাস পান বেতনের ২৫ ভাগ অর্থাৎ ৩১২৫ টাকা, যা সরকারি অফিসের একজন পিওনের বেতনের চেয়ে কম।শিক্ষকদের শুধু সম্মান দিলেই হবে না, তাদেরকে আর্থিক সুবিধাও দিতে হবে।
শিক্ষকদের যদি চাকরি করেও সংসার চালানোর জন্য বাড়তি আয়ের চিন্তা করতে হয়, তাহলে তাদের পাঠদানের প্রতি মনোযোগ নষ্ট হয়।

দীর্ঘদিন যাবত এম,পি,ও ভুক্ত স্কুল কলেজের শিক্ষক কর্মচারীরা চাকরি জাতীয়করণের দাবীতে আন্দোলন করে আসছে এবং দীর্ঘ ১৭ বৎসর (২০০৪ সাল থেকে) যাবত প্রাপ্ত এই ২৫ ভাগ বোনাসের পরিবর্তে শতভাগ বোনাস দাবী করছে। এম,পি,ও ভুক্ত সাড়ে পাঁচ লক্ষাধিক শিক্ষক গত ইদুল ফিতরে আশা করেছিল তাঁরা ঈদে পূর্ণ বোনাস পাবে। কিন্তু তা যখন তাঁরা পেল না, তখন কতিপয় শিক্ষক সংগঠন প্রেস ক্লাবে ঈদের দিন ঈদের নামাজ আদায় ও মানবন্ধন করে,পরে সংবাদ সম্মেলন করে বিষয়টি সরকারকে অবহিত করে।সম্প্রতি শেষ হওয়া সংসদ অধিবেশনে বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্য এম,পি,ও ভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীদের শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান ও জাতীয়করণের বিষয়টি উল্লেখ করেন।

সংসদে এম,পি,ও ভুক্ত শিক্ষকদের যৌতিক দাবীর বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রীসহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অবহিত হন। স্বভাবতই এম,পি,ও ভুক্ত শিক্ষক কর্মচারীগন আশা করেছিল, তাঁরা এ ঈদে (ঈদুল আযহা)শতভাগ বোনাস পেতে যাচ্ছে কিন্তু এবারও তাঁরা হতাশ। তার মানে হলো এবারও তাঁরা সেই ১৭ বৎসর আগের সেই ২৫ ভাগই পাবে। এর অবসান কবে হবে? দেশের ৯৭ ভাগ শিক্ষার্থীর শিক্ষার দায়িত্ব যে এম,পি,ও ভুক্ত শিক্ষকদের হাতে, কবে তাঁরা শতভাগ উৎসব ভাতা পাবে? এর কি কোন সমাধান হবে না?
একজন শিক্ষক শিক্ষার্থীদের ভেতর জ্ঞান লাভ, অজানাকে জানা, অদেখাকে দেখা এবং চেনা-জানা বিষয়গুলোকে নতুন করে চেনার আকাঙ্ক্ষা সৃষ্টি ও ভবিষ্যতের দিকনির্দেশনা দেবেন। উৎসাহ, প্রেরণা, শক্তি জোগাবেন। ভালো-মন্দ, ভুল-সঠিকের দৃষ্টিভঙ্গি শেখাবেন। সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবেন।

শুধুমাত্র পুঁথিগত বিদ্যা নয়, মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে ছাত্রছাত্রীদের যা যা প্রয়োজন, তার সব শিক্ষা একজন শিক্ষক তার ছাত্রছাত্রীদের দিবেন।
জাপানে শিক্ষকরা পরম সম্মানিত ও নিবেদিত-প্রাণ। জাপানে সবচেয়ে মেধাবীরাই কেবল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হতে পারেন। শিক্ষকের বেতন সেখানে যে কোনো সরকারি চাকরির চেয়ে বেশি। সর্বজনীন মানসম্মত শিক্ষাকে জাপান উন্নয়নের হাতিয়ার হিসেবে সফলভাবে ব্যবহার করেছে এবং জাতীয় জীবনে যুগান্তকারী পরিবর্তন সৃষ্টি করেছে।
আমাদের দেশে শিক্ষকের মর্যাদা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। শিক্ষকের মর্যাদা শুধু মুখে নয় বাস্তবে সকল ক্ষেত্রে উচ্চ মর্যাদায় আসীন করে নিজদের উন্নত জাতি হিসেবে অধিষ্ঠিত করেছে জাপান, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া ও চীনের মতো দেশগুলো।

অন্যদিকে আর্থিকভাবে বাংলাদেশের শিক্ষকরা সবচেয়ে অবহেলিত। আর্থিকভাবে অবহেলিত থাকার কারণে আমাদের দেশের নাটক/সিনেমায় শিক্ষকদের সামান্য ‘মাস্টার’ হিসেবে তাচ্ছিল্যের সঙ্গে উপস্থাপন করা হয়। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে একজন সরকারি কর্মকর্তাকে যেভাবে সম্মান দেওয়া হয়, সেখানে তার সিকিভাগ সম্মানও কি শিক্ষকদের দেওয়া হয়? জাতি গঠনে যে শিক্ষকরা সবচেয়ে বেশি অবদান রাখেন সেই শিক্ষকরা সামাজিক দিক দিয়ে চরমভাবে অবহেলিত। শিক্ষার ভিত স্থাপনকারী প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষকদের পদমর্যাদা এখনো ৩য় শ্রেণির কর্মচারী! তাহলে আমাদের দেশে শিক্ষকের মর্যাদা কিভাবে সবার উপরে হয়? আমরা শিক্ষকদের বাহ্যিক দিক দেখি কিন্তু কখনো কি তাদের চাপা কান্না অনুভব করার চেষ্টা করেছি? শিক্ষকদের মর্যাদা সবার উপরে—এই কথাটি শুনলে আমাদের দেশের শিক্ষকরা গর্বিত হয় না বরং মনে মনে লজ্জিত হয়।

কবি কাদের নেওয়াজের ‘শিক্ষকের মর্যাদা’ শিরোনামে একটি কবিতা সবারই পড়া। বাদশাহ আলমগীরের ছেলে তার শিক্ষকের পায়ে পানি ঢালছিল। আর শিক্ষক নিজে পা পরিষ্কার করছিলেন। বাদশাহ তা দেখে ফেলায় ভয়ে ছিলেন শিক্ষক। বাদশাহ শিক্ষককে ডেকে পাঠালেন এবং ছেলেকে আদব-কায়দা না শেখানোয় তাকে ভর্ৎসনা করেন। শিক্ষক বুঝতে পারেননি ভুলটা কোথায় হয়েছে। বিস্মিত শিক্ষককে বাদশাহ জানালেন, কেন তার ছেলে নিজ হাতে শিক্ষকের পায়ের ময়লা পরিষ্কার করে দিচ্ছিল না, তাই তিনি মনে ব্যথা পেয়েছেন। কবিতার শেষ চার লাইন তুলে দিচ্ছি এখানে-
‘উচ্ছ্বাস ভরে শিক্ষকে আজি দাঁড়ায়ে সগৌরবে
কুর্নিশ করি বাদশাহে তবে কহেন উচ্চরবে-
আজ হতে চির উন্নত হল শিক্ষাগুরুর শির,
সত্যই তুমি মহান উদার বাদশাহ আলমগীর।’
এই কবিতা থেকে আমরা কী শিক্ষা পেয়েছি? আসলে আমরা উল্টো শিক্ষা পেয়েছি। শিক্ষকের মর্যাদা দিতে পারিনি। পেরেছি শিক্ষকের অমর্যাদা দিতে। যাদের থাকার কথা ক্লাসরুমে। দুদিন পরপরই দেখি সেই শিক্ষকরা আন্দোলনে নামেন।

দাবি আদায়ে কখনও আমরণ অনশন, কখনও অবস্থান ধর্মঘট। দাবি আদায় করতে এসে শিক্ষকরা পুলিশের পিটুনিও খেয়েছেন। সব দেখেশুনে আমার মনে হয়েছে, অর্থে, সম্মানে, মর্যাদায় শিক্ষকতা পেশাটিই আছে তলানিতে। অথচ শিক্ষকদের থাকার কথা সমাজের সর্বোচ্চ মর্যাদার আসনে। মুখে মুখে আমরা যতই শিক্ষকদের মর্যাদার কথা বলি না কেন, বাস্তবে কিন্তু উল্টো। এমন তো নয় যে শুধু মুখে মুখে মর্যাদার কথা বললেই শিক্ষকদের পেট ভরবে, তাদের ভরণপোষণ হবে, সন্তানের পড়ালেখা হবে। তাদেরও তো পরিবার নিয়ে একটা মধ্যবিত্ত জীবনযাপন করার মতো অর্থ লাগবে।

আমরা যদি শিক্ষকদের মর্যাদা দিতে না পারি, তাদের আর্থিক স্বচ্ছলতা দিতে না পারি তাহলে এই পেশায় মেধাবী সন্তানেরা আসবে না ফলে দেশে ভাল নাগরিক তথা ভাল মানুষ তৈরি হবে না। ভাল মানুষ না হলে দেশও উন্নতি করতে পারবে না। তাই ভাল একটা দেশ পেতে হলে আমাদের শিক্ষাক্ষেত্রে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে।একটি দেশকে ধ্বংস করতে হলে আর কিছু দরকার নাই, শুধুমাত্র সেই দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংস করলেই যথেষ্ট। শিক্ষা ব্যবস্থা দুর্বল হলে, ডাক্তারের হাতে রোগী মারা যাবে, প্রকৌশলীদের দ্বারা নির্মিত ইমারত, ব্রিজগুলো ভেঙ্গে পড়বে এ রকম প্রতিটি ক্ষেত্রে আমরা ক্ষতির সম্মুখীন হব।সুতরাং দেশের উন্নতির স্বার্থে, একটি ভাল জাতি গঠনের জন্য শিক্ষককে সর্বোপরি শিক্ষাকে গুরুত্ব দিতে হবে।

সাহিদুল ইসলাম সাহিদ
লেখকঃ সাংবাদিক, বার্তা সম্পাদক, ডেইলি ট্রাইবুনাল

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম