1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আরবি নতুন বছর হোক কল্যাণময় এবং মহররম মাসের বিশেষ আমল - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

আরবি নতুন বছর হোক কল্যাণময় এবং মহররম মাসের বিশেষ আমল

__ মোহাম্মদ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার ___
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৩ আগস্ট, ২০২১
  • ২০১ বার

শুরু হলো আরবি নতুন বছর ১৪৪৩ হিজরি। নতুন বছরের ফজিলতপূর্ণ ও কল্যাণময় মাস মহররমের প্রথম দিন আজ। মুসলিম উম্মাহর ধর্মীয় সব আচার–অনুষ্ঠান, উৎসবের তারিখ নির্ধারণ ও ইবাদত-বন্দেগি পালন তথা তাহজিব-তমদ্দুন লালন হিজরি বছরের চাঁদ দেখার ওপর নির্ভরশীল। এ কারণেই মুমিন মুসলমানের জীবনে হিজরি সনের গুরুত্ব অপরিসীম।

৩৫৪ কিংবা ৩৫৫ দিন-রাতে চাঁদের আবর্তনে সীমাবদ্ধ হিজরি সন। সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর আবর্তনের সময়কালকে সৌরবর্ষ এবং পৃথিবীর চারদিকে চাঁদের আবর্তনের সময়কালকে চন্দ্রবর্ষ বলা হয়। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে চন্দ্র-সূর্যের এ আবর্তনের কথাও তুলে ধরেছেন এভাবে-
‘সূর্য ও চন্দ্র হিসাবমত চলে।’ (সুরা আর-রহমান : আয়াত ৫)

হিজরি বছরের প্রতিটি দিনক্ষণ ও মাস যেন কল্যাণময় হয়; সে জন্য প্রত্যেক মাসের নতুন চাঁদ দেখলেই বিশ্বনবি নিজে এ দোয়া পড়তেন এবং উম্মতে মোহাম্মাদিকে কল্যাণের এ দোয়া পড়তে বলেছেন। তাহলো-

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা আহিল্লাহু আলাইনা বিল আমানি ওয়াল ঈমানি, ওয়াস সালামাতি ওয়াল ইসলামি- রাব্বি ওয়া রাব্বুকাল্লাহ।’
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনি আমাদের জন্য এই চাঁদকে নিরাপত্তা, ঈমান, শান্তি এবং ইসলামের সঙ্গে উদিত করুন। (হে চাঁদ) আল্লাহই আমার ও তোমার রব।’ (তিরমিজি)

ইসলামি শরিয়তের ফিকহি বিধানগুলোতে বছর বলতে এ চন্দ্রবর্ষকেই বোঝানো হয়। হিজরি বছরের হিসাব রাখার গুরুত্ব অপরিসীম। কেননা হিজরি বছরজুড়ে নির্ধারিত তারিখে আত্মশুদ্ধি, ইবাদত-বন্দেগি ও দোয়া কবুলের অনেক মুহূর্ত, দিন-রাত ও মাসের হিসাবের বিষয় রয়েছে। নির্ধারিত এসব তারিখে মুসলিম উম্মাহ নফল ও ফরজ রোজা-নামাজ, ঈদ, কুরবানি, ওমরাহ-হজ পালন ও জাকাতসহ গুরুত্বপূর্ণ বিধান পালন করে থাকে।

হিজরি বছরের এসব গুরুত্ব উপলব্দি করেই হজরত আবু মুসা আশআরি রাদিয়াল্লাহু আনহু তাগিদে খলিফাতুল মুসলিমিন হজরত ওমরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হিজরি সন গণনা ব্যবস্থা করেন। তাঁকে এ কাজে সহযোগিতা করেন হজরত আলি ও হজরত ওসমান রাদিয়াল্লাহু আনহু। হিজরি বছরের হিসাব রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হিজরতের সময় থেকে গণনার পরামর্শ দেন হজরত আলি রাদিয়াল্লাহু আনহু। আর সম্মানিত মাস মহররমকে হিজরি বছরের প্রথম রাখার প্রস্তাব দেন হজরত ওসমান রাদিয়াল্লাহু আনহু। সে মোতাবেক ১৬ হিজরির ১০ শাবান মাস মোতাবেক ৬৩৮ খ্রিস্টাব্দ থেকে দাপ্তরিকভাবে হিজরি সন গণনার ব্যবস্থা করেন হজরত ওমরা রাদিয়াল্লাহু আনহু।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হিজরি বছরের গণনায় প্রত্যেক মাসেই কিছু দিন ও সময়ের ইবাদত-বন্দেগিকে ফজিলতপূর্ণ ও কল্যাণময় বলে ঘোষণা দিয়েছেন। কল্যাণময় দিনগুলোর মধ্যে অন্যতম-

১.মহররম
এ মাসের ৯-১০ তারিখ রোজা পালন করা ফজিলতপূর্ণ।
মহররমের ১৩-১৫ তারিখ আইয়্যামে বিজের রোজা পালন।

২. সফর
এ মাসের ১৩-১৫ তারিখ আইয়্যামে বিজের রোজা পালন।
সফর মাসেই মুসলিম উম্মাহ উদযাপন করেন আকেরি চাহর সোম্বা। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সফর মাসের শেষ দিকে প্রচণ্ড অসুস্থ হয়ে যান। সফর মাসের শেষ বুধবার তিনি অনেকটাই সুস্থতা লাভ করেন। এ খুশিতে অনেক সাহাবি বিভিন্নভাবে দান-সাদকা করেছেন। এ দান-সাদকা নিঃসন্দেহে উত্তম কাজ। এ উপলক্ষ্যে সফর মাসের শেষ বুধবার উদযাপিত হয় আখেরি চাহর সোম্বা।

৩. রবিউল আউয়াল
বিশ্বনবির সীরাত তা আদর্শে উজ্জীবিত হওয়ার মাস। ১২ রবিউল আউয়াল রাষ্ট্রীয়ভাবে দেশব্যাপী পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবি উদযাপিত হয়।
রবিউল আউয়ালের ১৩-১৫ তারিখে রয়েছে আইয়ামে বিজের রোজা।

৪. রবিউস সানি
এ মাসের ১৩-১৫ তারিখে রয়েছে আইয়ামে বিজের রোজা।
রবিউস সানি মাসেও ফাতেহা-ই ইয়াজদহম উপলক্ষে রাষ্ট্রীয়ভোবে ঐচ্ছিক ছুটি থাকে। ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলিমদের অনেকেই এ দিনটি গুরুত্বসহকারে উদযাপন করে থাকেন। ‘ইয়াজদাহম’ অর্থ এগারো, আর ‘ফাতিহা’ অর্থ দোয়া করা। মহান আল্লাহ তায়ালার ওলি বড় পীর হজরত আবদুল কাদের জিলানী (র.)-এর মৃত্যু দিবস উপলক্ষে মুসলিমদের দোয়া অনুষ্ঠানই হচ্ছে ‘ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম’।

৫. জমাদিউল উলা
এ মাসেরও ১৩-১৫ তারিখ আইয়ামের বিজের রোজা রাখা বিশ্বনবির অন্যতম আমল।

৬. জমাদিউস সানি
ইবাদত-বন্দেগির প্রস্তুতি নেওয়ার মাস। কেননা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম রজব থেকে ইবাদত-বন্দেগিতে আত্মনিয়োগ করতেন। রজবের বরকত লাভের জন্য দোয়াও করতেন।
এ মাসের ১৩-১৫ তারিখ আইয়ামে বিজের রোজাও বিশ্বনবির গুরুত্বপূর্ণ আমল।

৭. রজব
মর্যাদাপূর্ণ ও সম্মানিত ৪ মাসের একটি হলো রজব মাস। ইবাদত-বন্দেগি ও বরকত লাভের মাস রজব। এ মাসে আল্লাহ তাআলা যুদ্ধ-বিগ্রহ ও রক্তপাতকে নিষিদ্ধ করেছেন। এ মাসে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহর কাছে এভাবে বরকতময় দোয়া করতেন-

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা বারাকলানা ফি রাজাবা ওয়া শা’বান ওয়া বাল্লিগনা রামাদান।’
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনি রজব ও শা’বান মাসকে আমাদের জন্য বরকতময় করুন এবং আমাদেরকে রমজান মাস পর্যন্ত (হায়াত দিন) পৌঁছে দিন।’
এ মাসেও ১৩-১৫ তারিখ আইয়ামে বিজের রোজা রাখা।

৮. শাবান
এ মাস জুড়েও বিশ্বনবী আল্লাহর কাছে বরকত লাভের দোয়া করতেন

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা বারাকলানা ফি শা’বান ওয়া বাল্লিগনা রামাদান।’
অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আপনি শা’বান মাসকে আমাদের জন্য বরকতময় করুন এবং আমাদেরকে রমজান মাস পর্যন্ত (হায়াত দিন) পৌঁছে দিন।’
শাবান মাসের ১৩-১৫ তারিখ তিন দিন আইয়ামে বিজের রোজা নির্ধারিত।

৯. রমজান
ইবাদতের বসন্তকাল রমজান। রহমত বরকত মাগফেরাত ও নাজাতের মাস এটি। পুরো মাসজুড়ে ফরজ রোজা পালন করার নির্দেশ দিয়েছেন মহান। যে ব্যক্তি এমাসটি পাবেন তিনিই রোজা পালন করবেন।
এ মাসের গুরুত্বপূর্ণ দশক হচ্ছে শেষ দশক। যে দশকে রয়েছে লাইলাতুল কদর। যে রাতটি হাজার মাসের চেয়েও বরকতময়।

১০. শাওয়াল
ঈদের মাস শাওয়াল। এ মাসের প্রথম রাতটি অনেক মর্যাদার। এ মাসের ঈদ উদযাপনের পরপরই ৬ রোজার রাখার গুরুত্ব ও ফজিলত অনেক বেশি। সঙ্গে নিয়মিত রোজা আইয়ামে বিজের তিনটি রোজাতো আছেই।

১১. জিলকদ
হজের প্রস্তুতির মাস জিলকদ। এ মাসটি সম্মানিত ৪ মাসের একটি। এ মাসের সম্মানে যুদ্ধ-বিগ্রহ ও রক্তাপাতি নিষিদ্ধের মাস। এ মাসের প্রতিটি মুহূর্তই ফজিলতপূর্ণ।

১২. জিলহজ
ইয়াওমে আরাফা, হজ ও কুরবানির মাস জিলহজ। এ মাসের প্রথম ৯ দিন রোজা রাখার গুরুত্ব ও ফজিলত অনেক বেশি।

আজ থেকেই শুরু হলো হিজরি নতুন বছর। নতুন বছরে নতুন চাঁদে বছরটি কল্যাণময় হতে আল্লাহর সাহায্য কামনার বিকল্প নেই। মুসলিম উম্মাহ নিজেদের কল্যাণ লাভে বছরের শুরু থেকে পড়তে পারে এ দোয়া-
‘ইয়া মুকাল্লিবাল কুলুবি ওয়াল আবছার, ইয়া মুদাব্বিরাল্লাইলি ওয়ান্নাহার; ইয়া মুহাওয়িলাল হাওলি ওয়াল আহওয়াল, হাওয়িল হালানা ইলা আহ্ছানিল হাল।
অর্থ : ‘হে অন্তরসমূহ ও দৃষ্টিসমূহ পরিবর্তনকারী! হে রাত ও দিনের আবর্তনকারী! হে সময় ও অবস্থা বিবর্তনকারী! আমাদের অবস্থা ভালোর দিকে উন্নীত করুন।’ (দিওয়ানে আলী, আন নাহজুল বালাগা)

সুতরাং তাওবাহ ও ইসতেগফারের মাধ্যমে পুরোনো বছরকে বিদায় দিয়ে ইবাদতের মাধ্যমে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোই কল্যাণকর। বছরজুড়ে কল্যাণ ও প্রশান্তি লাভে নির্ধারিত দিনক্ষণ ও মাসে ইবাদত-বন্দেগি করার চেষ্টাও হবে মুসলিম উম্মাহর জন্য কল্যাণময়।

মুসলিম উম্মাহর প্রত্যাশা- বিশ্বনবির হিজরতের ১৪৪৩তম নতুন বছরে বিশ্ববাসীর জন্য বয়ে আনুক অনাবিল শান্তি ও নিরাপত্তা। দূর হয়ে যাক চলমান মহামারি করোনাসহ যাবতীয় অশান্তি ও বিপদ। শান্তি নিরাপত্তায় জেগে ওঠুক বিশ্ব। শুভ ও কল্যাণময় হোক প্রতিটি দিন। আমিন।

মহররম মাসের বিশেষ আমলঃ

রমজানের পর রোজার জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ মাস হলো মহররম। আবার বছরে যে ৪টি সম্মানিত মাস রয়েছে তান্মধ্যেও মহররম একটি। যা হিজরি বছরের প্রথম মাস৷ এটি মহান আল্লাহর মাস হিসেবে পরিচিত। মর্যাদার এ মাসের গুরুত্ব ও মর্যাদার কারণে বিশেষ আমল ও ইবাদতের নির্দেশ দিয়েছেন বিশ্বনবি। হাদিসের একাধিক বর্ণনায় তা প্রমাণিত। তাহলো-

১. হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘রমজানের পর রোজার জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ মাস হলো আল্লাহর মাস মহররম।’ (মুসলিম)

২. রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উম্মতে মুহাম্মাদিকে এই মাসে বিশেষ আমলের নির্দেশ দিয়েছেন। ১০ মহররম তিনি রোজা রাখতে বলেছেন। হাদিসে এসেছে-
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মদিনায় হিজরতের পর দেখেন ইয়াহুদিরা (হজরত মুসা আলাইহিস সালামের মুক্তির স্মরণে) এদিন রোজা পালন করছে। তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আমরা হজরত মুসা আলাইহিস সালামের অনুসরণ করার ব্যাপারে তোমাদের চেয়ে অধিক হকদার। তিনি নিজে সেই (আশুরার) দিনের রোজা পালন করলেন এবং সাহাবাদেরকেও (এই আশুরার দিন রোজা) নির্দেশ দিলেন।’ (বুখারি)

৩. ইয়াহুদিদের অনুসরণ যেন না হয় সে জন্য দুইদিন রোজা পালনের কথা বলেছেন বিশ্বনবি। আশুরা উপলক্ষে ইয়াহুদিরা ১ দিন (আশুরার) রোজা রাখতো। সে কারণে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইয়াহুদিদের ব্যতিক্রম করতে বলেছেন। হাদিসে এসেছে-
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘আমি যদি আগামী বছর বেঁচে থাকি তাহলে ৯ এবং ১০ মহররম দুই দিনই রোজা রাখবো।’ (মুসলিম)

৪. মহররম মাসের রোজা রাখার বিশেষ আমলের ভিত্তি
হজরত ইবনে আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মাদিনাতে এলেন; তখন মদিনার ইয়াহুদিরা আশুরার দিন রোজা পালন করত। তারা জানাল, এ দিন হজরত মুসা আলাইহিস সাল্লাম ফেরাউনের উপর বিজয় লাভ করেছিলেন। তখন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তার সাহাবিদের বললেন, মুসা আলাইহিস সালামের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত হওয়ার ব্যাপারে তাদের চেয়ে তোমরাই অধিক হাকদার। কাজেই তোমরা রোজা রাখ।’ (বুখারি)

হাদিসের আলোকে প্রমাণিত যে, মহররম মাস একটি মহান বিজয়ের মাস। এ মাসের ১০ তারিখ মহান আল্লাহ তাআলা তাঁর রাসুল হজরত মুসা আলাইহিস সালামকে তাঁর সঙ্গী বনী ইসরাইলকে ফেরাউনের আক্রমণের হাত থেকে উদ্ধার করেন আর ফেরাউন তার সঙ্গীরাসহ নীল নদে ডুবে মারা যান।

৫. মহররমের রোজার বিশেষ ফজিলত:-
বছরজুড়ে ইচ্ছা-অনিচ্ছায় কত শত গোনাহ-ই না করে থাকে মানুষ। মহররম তথা আশুরার রোজা এতই মর্যাদাপূর্ণ যে এটি বিগত এক বছরের সব (সগিরা) গোনাহ মাফের ওয়াসিলা হতে পারে। হাদিসে এসেছে-
‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, আল্লাহর কাছে আশা করি তিনি বিগত এক বছরের গোনাহ ক্ষমা করে দেবেন।’ (মুসলিম)

৬. মহররম মাসে যেসব আমল ও কাজ নিষিদ্ধ: –
মুহাররম মাস আসলে এমন সব রুসুম রেওয়াজ ও নাম সর্বস্ব উৎসব পালন করা হয়; যার সম্পর্কে কুরআন-সুন্নাহভিত্তিক প্রমাণ পাওয়া যায় না।

এ দিনটিকে কেউ কেউ শুধু কারবালার মাতম ও শোকানুষ্ঠান হিসেবে উদযাপন করে থাকেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রিয় নাতি হজরত ইমাম হুসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহুর হৃদয়বিদারক শাহাদাত দিবস হিসেবে অনেকে নিজেদের শরীরে আঘাত করতে থাকে; শরীর রক্তাক্ত করতে থাকে।
কেউ কেউ তাজিয়া মিছিল তথা যুদ্ধের সাজ সাজ পোশাকে ঘোড়া সাজিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে। আবার অনেকে হজরত ইমাম হুসাইন রাদিয়াল্লাহু আনহু কৃত্রিম মাজার তৈরি করে রাস্তায় প্রদর্শণীতে নেমে পড়ে। আশুরা উপলক্ষ্যে এসব আয়োজন ও আমল বর্জন করাও সাওয়াবের কাজ। এ সব আমলের ব্যাপারে ইসলামের কোনো অনুমোদনই নেই।

মুমিন মুসলমান শুধু সেসব আমলই করবে; যেসব আমলের ব্যাপারে অনুমোদন ও নির্দেশ দিয়েছেন স্বয়ং বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

মনে রাখা জরুরি
মহররম আল্লাহ তাআলার কাছে সম্মানিত মাসসমূহের মধ্যে একটি। এই মাসে বেশি বেশি ভালো কাজে নিজেকে তথা প্রিয়জনদের উদ্বুদ্ধ করাই ঈমানের একান্ত দাবি। এ মাসজুড়ে বেশি বেশি দান সাদাকাহ করা। ফরজ আমলের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার পাশাপাশি সব গোনাহ থেকে নিজেদের বাঁচিয়ে রাখার চূড়ান্ত প্রতিজ্ঞা করা জরুরি। তবেই এ সন্মানিত মাস মহররমের প্রকৃত সুফল পাবে ঈমানদার মুসলমান।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মহররম মাসের মর্যাদা রক্ষার এবং আশুরার ৯ ও ১০ তারিখ রোজা পালনসহ ইসলামের কল্যাণে আশুরার ঘটনাবহূল আলোচনা মানুষের কাছে তুলে ধরার তাওফিক দান করুন। কুরআন-সুন্নাহর ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখকঃ নির্বাহী সম্পাদক দৈনিক আপন আলো, | সাবেক কাউন্সিলরঃ বিএফইউজে-বাংলাদেশ |_ও _ সদস্য ডিইউজে ||

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম