1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
গাইবান্ধায় একই রশি থেকে দুই যুবকের লাশ উদ্ধারের ঘটনা পরকীয়ার জেরে হত্য - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
গুইমারাতে ২ দিনব্যাপী বাল্যবিবাহ নিরোধ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামে সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা সাবেক অর্থমন্ত্রী এম. সাইফুর রহমান স্মরণে দোয়া মাহফিল সাতকানিয়ায় পরোয়ানাভুক্ত আসামিসহ ৭ আসামি গ্রেফতার সাতকানিয়ায় ১০ হাজার পিস ইয়াবাসহ ১ মাদকব্যবসায়ী গ্রেফতার কুমিল্লার মনোহরগন্জ দক্ষিণ ইসলামি যুব আন্দোলনের পরিচিতি সভা ও শপথ অনুষ্ঠান রাষ্ট্রের কোন সরকারই সমালোচনা পছন্দ করে না : জেবেল সাতকানিয়ায় আমিলাইষ ফুটবল ফুটসাল টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত প্রজন্ম মীরসরাইয়ে উদ্যোগে ৩০ নারী উদ্যোক্তার মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে জামাইকে গাছে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় শাশুড়ি আটক

গাইবান্ধায় একই রশি থেকে দুই যুবকের লাশ উদ্ধারের ঘটনা পরকীয়ার জেরে হত্য

আনোয়ার হোসেন শামীম, গাইবান্ধা প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৫ আগস্ট, ২০২১
  • ২১ বার

গাইবান্ধায় একই রশি থেকে দুই যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় প্রেস ব্রিফিং করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

আজ রোবাবর (১৫ অগাস্ট) দুপুরে নিজস্ব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন পিবিআই গাইবান্ধার পুলিশ সুপার এ আর এম আলিফ।

ব্রিফিংয়ে পুলিশ সুপার জানান, আত্নহত্যা নয়, পরকীয়ার জেরে দুই বন্ধু মৃণাল চন্দ্র দাস ও সুমন কান্তি দাসকে হত্যা করা হয়েছে। এরপর তাদের লাশ গাইবান্ধা সদর উপজেলার মিয়ারবাজার এলাকার একটি গাছে ঝুলিয়ে রাখা হয়। হত্যাকান্ডে নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেন গ্রেপ্তারকৃত প্রদীপ চন্দ্র। প্রদীপ আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিও দিয়েছেন।

পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার আরও জানান, গত ১২ আগষ্ট সকালে গাইবান্ধা সদর উপজেলার পিয়ারাপুর গ্রামের একটি গাছের বাগানে একই রশিতে ঝুলন্ত অবস্থায় মৃণাল ও সুমনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ঘটনার পরপরই গ্রেপ্তার করা হয় তাদের বন্ধু প্রদীপকে। প্রদীপ পিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের সাথে নিজের সম্পৃক্ততা স্বীকার করেন। তিনি গতকাল শনিবার (১৪ আগষ্ট) আদালতেও স্বীকারোক্তি দেন।

গ্রেপ্তারকৃত প্রদীপ পিবিআই ও আদালতের কাছে জবানবন্দিতে জানায়, নিহত সুমন কান্তি দাসের মায়ের সাথে তার বন্ধু নিতাই চন্দ্র দাসের অবৈধ সম্পর্ক ছিল। পরে বিষয়টি জানাজানি হয়। এনিয়ে সুমন ও নিতাই দুই বন্ধুর মধ্যে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে এই বিরোধের জের ধরে নিতাই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রদীপ চন্দ্র দাসের সহযোগীতায় সুমন কান্তি দাস ও মৃনাল কান্তি দাসকে হত্যার পরিকল্পনা করেন। তাই তারা মাদক সেবনের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১১ আগষ্ট রাতে নিতাইয়ের বাড়ি সংলগ্ন ঘটনাস্থলে ডেকে নিয়ে যায়।

এরপর পুর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী নিতাই ও প্রদীপসহ আরও তিন-চারজনের সহযোগীতায় মৃনাল ও সুমনকে হত্যা করে। পরে এই হত্যাকান্ড আত্মহত্যা হিসেবে চালিয়ে দেওয়ার জন্য একটি গাছে একই রশির দুই মাথায় মৃনাল ও সুমনকে ঝুলিয়ে রাখা হয়। পরে নিতাই, প্রদীপ ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, গত ১২ আগষ্ট সকালে গাছে ঝুলন্ত অবস্থায় মৃণাল ও সুমনের মরদেহ দেখে এলাকাবাসীর মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ওইদিন দুপুর দুইটায় রংপুরস্থ পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের কর্মকর্তারা লাশ দুইটি উদ্ধার করে। ঘটনাস্থলে দুটি গাছে ছুড়ি দিয়ে নিতাইয়ের নাম খোদাই করা ছিলো। একটি গাছে কাচি ও আরেকটি গাছে চাকু আটকানো ছিলো। এমনকি তাদের দুজনের মরদেহের পাশে একটি রশিতে সাজিয়ে রাখা তাদের ব্যবহৃত রুমাল, মাস্ক, তোয়ালে, ব্যাগ, মানিব্যাগ জব্দ করা হয়। ওইদিনই এ ঘটনায় সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। মামলাটির তদন্তভার পায় গাইবান্ধা পিবিআই।

পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার জানান, এ ঘটনায় মুল পরিকল্পনাকারী নিতাই ও তার সহযোগীরা সবাই পলাতক রয়েছে। তাদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম