1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
টিকা না পেয়ে অনেকে মারা যাচ্ছেন: মান্না - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৩২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
প্রোগ্রামে হঠাৎ অসুস্থ চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে বিশ্রামে থাকতে বললেন চিকিৎসক আনোয়ারায় ৪ ইয়াবা কারবারী আটক সাংবাদিকের স্ত্রীর সাথে সৎ মায়ের ঝগড়ার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল মাগুরায় অধিনায়ক আকবর হোসেন স্মৃতি পরিষদের ছড়ি বিতরণ সাংবাদিক রাসেল খানের শশুরের ইন্তেকাল মীরসরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন আলহাজ্ব সেলিম উদ্দিন রাউজানে ২২০ বোতল ফেন্সিডিল ও তিন কেজি ৬ শত গ্রাম গাঁজাসহ ৩ যুবককে আটক চৌদ্দগ্রামে গাঁজাসহ বৃদ্ধ আটক মনোহরগঞ্জে বাস- ট্রাক্টর ও সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ৪জন নিহত ‘সাংবাদিকদের মনে ভয়ভীতি সৃষ্টি করতেই ১১ নেতার ব্যাংক হিসাব তলব’

টিকা না পেয়ে অনেকে মারা যাচ্ছেন: মান্না

রুহুল আমিন গাজীর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৩০ আগস্ট, ২০২১
  • ১৭ বার

বিক্ষোভ সমাবেশে সাংবাদিক নেতারা বলেছেন, মুক্ত পরিবেশ ছাড়া মুক্ত সাংবাদিকতা করা যায় না। দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন নেই বলেই আজ সাংবাদিকরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। তারা বলেন, সাংবাদিকদের কন্ঠরোধ করতেই রুহুল আমিন গাজীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ সরকারের আমলে সাগর-রুনিসহ ৪২জন সাংবাদিক খুন হয়েছেন। সাংবাদিক হত্যার কোনো বিচার হচ্ছে না। আজ যে অবস্থা দাঁড়িয়েছে শুধু সাংবাদিক নয় গনতন্ত্রকামী সকল মানুষকে ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার বিকল্প নেই।
আজ বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন-ডিইউজে আয়োজিত বিএফইউজের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজীসহ সকল সাংবাদিকদের নি:শর্ত মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, ঐতিহাসিক সত্যের প্রমাণ লাগে না। আপনারা মুক্তিযুদ্ধ করেছেন কিনা? আপনার পরিবার মুক্তিযুদ্ধ করেছেন কিনা সেটাই এখন প্রমাণ সাপেক্ষ্য ব্যাপার। সত্যিকার অর্থে আপনারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে ছিলেন নাকি বৃহত্তর পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন সেটাই এখন প্রধান ট্রপিক। তিনি বলেন, যারা সত্যিকার অর্থে মুক্তিযোদ্ধা তাদেরকে অপমান করা হচ্ছে। আর তারা (আওয়ামী লীগ) দুর্নীতি ও লুটপাটের মহোৎসব চালাচ্ছে।
রিজভী বলেন, লুটপাট ও দুর্নীতি আড়াল করতেই সরকার একের পর এক ইস্যু তৈরি করে নানা ধরণের অপপ্রচার চালাচ্ছে। বিরোধী মতের রাজনৈতিক দলগুলো নিষিদ্ধ করারও পায়তারা করা হচ্ছে। যেনো কেউ তাদের লুটপাট ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলতে না পারে সেজন্যই এমনা করছে। তিনি বলেন, দেশে শোষন, নির্যাতন, নিপীড়ন, গুম, খুন ও লুটপাটের রাজত্ব তৈরি হয়েছে। ফলে দেশ মনুষ্য বসবাসে অযোগ্য হয়ে পড়েছে।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, রুহুল আমিন গাজী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। উনি কারাগারে কেন? তার উপর কেন নির্যাতন করা হচ্ছে? বর্তমানে সত্য প্রকাশ করলেই সাংবাদিকরা হামলা-মামলঅ ও নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এভাবে চলতে পারে না। অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজীকে মুক্তি দিন এবং সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে করা সকল মামলা প্রত্যাহার করুন। বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, আজ আন্তর্জাতিক গুম দিবস। বাংলাদেশে এতো গুম হচ্ছে অথচ সরকার কোনো মনোযোগ দিচ্ছে না। কারণ এই গুমের প্রধান হোতাই তো এই সরকার। প্রতিটি গৃহে আজ আতঙ্ক বিরাজ করছে। কখন, কাকে তুলে নিয়ে যাবে সেই শঙ্কা এখন ঘরে ঘরে। গুম হওয়া পরিবারের সদস্যদের আর্তনাত তারা শুনতে পায় না।
ডিইউজে’র সভাপতি কাদের গনি চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, দৈনিক নয়াদিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, ডিইউজের সাবেক সভাপতি কবি আবদুল হাই শিকদার ও এলাহী নেওয়াজ খান সাজু, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম, বিএফইউজের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোদাব্বের হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক খুরশীদ আলম, ডিইউজে’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক সরদার ফরিদ আহমদ, সাবেক সহ-সভাপতি আমিরুল ইসলাম কাগজী, ডিইউজের সহ-সভাপতি শাহীন হাসনাত, বাছির জামাল, রাশেদুল হক, দিনাজপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. মাহফিজুল ইসলাম রিপন, ডিইউজের কোষাধ্যক্ষ গাজী আনোয়ারুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম, প্রচার সম্পাদক খন্দকার আলমগীর হোসাইন, দফতর সম্পাদক ডি এম আমিরুল ইসলাম অমর, সাব-এডিটর কাউন্সিলের প্রশিক্ষন ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক নাবিল রহমান, বিএফইউজের সাবেক দফতর সম্পাদক আবু ইউসুফ, সাংবাদিক নেতা আব্দুর রহমান খান, জেসমিন জুঁই, সাখাওয়াত হোসেন মুকুল, আবু হানিফ প্রমুখ।
নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহামুদুর রহমান মান্না বলেন, করোনা মোকাবেলায় এ সরকার ব্যর্থ হয়েছে। টিকায় ব্যর্থতার কারণে এতো গুলো লোক মারা গেল। তিনি বলেন, এরা মানুষের জান বাঁচাতে পারবে না, জীবন বাঁচাতে পারবে না। এরা কেবল মানুষকে জেলে দিতে পারবে, নির্যাতন করতে পারবে, নির্বিচারে গুম-খুন করতে পারে।
তিনি বলেন, দেশকে বাঁচাতে হলে সবাইকে এই জালিম সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। মাঠে নামতে হবে। যে যেরকম করে পারেন, লড়াইটা ছাড়বেন না। সবাই রুখে দাঁড়ান। খুব যে বেশি দিন লাগবে ব্যাপারটা এমন না। পতনের আগে যে রকম কাঁপতে থাকে এই সরকার তেমনি কাঁপছে। ওদের একেক জায়গার দুর্বলতা মানুষের সামনে প্রকাশ পাচ্ছে। পায়ের নিচ থেকে মাটি তাদের চলে যাচ্ছে।
মান্না বলেন, রুহুল আমিন গাজীকে যারা কোনো রকম সত্য কারণ ছাড়াই মিথ্যা অভিযোগে এত দিন ধরে গ্রেফতার করে রাখতে পারে তাদেরও একদিন পতন হবে। আসিফ নজরুল একটা ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়েছে। সে কারো নাম বলেনি। ওদের গায়ে লাগলো কেন? কারণ ওদের অনেক লোক ফাস্ট হোম, সেকেন্ড হোম, থার্ড হোম করে রেখেছে বাইরে। টাকা-পয়সা জমিয়েছে। তাদেরও ওই অবস্থা হবে।
এই দিন দিন নয়, আরো দিন আছে এমন মন্তব্য করে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, বর্তমান সরকার মিথ্যাচার করে ক্ষমতায় টিকে আছে। ওরা নির্লজ্জ। এমন দিন আসবে আওয়ামী লীগ পালানোর পথও খুজে পাবে না। এসময় তিনি রুহুল আমিন গাজীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।
দৈনিক নয়াদিগন্তের সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন বলেন, সাংবাদিকদের কাজ হলো সত্য প্রকাশ করা। যা আজ কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমান ক্ষমতাশীলরা সত্য সহ্য করতে পারে না। রুহুল আমিন গাজীর কোনো অপরাধ নেই। শধুমাত্র সত্য প্রকাশ ও ন্যায়ের পক্ষে কথা বলার জন্য আজ কারাগারে। আপনারা (আওয়ামী লীগ) যদি বাক-স্বাধীনতা ও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন তাহলে অবিলম্বে রুহুল আমিন গাজী মুক্তি দিন। আর যদি মুক্তি না দিন তাহলে বুঝবো আপনারা বাক-স্বাধীনতা ও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন না। এসময় তিনি সবাই গণতন্ত্র রক্ষায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
সভাপতির বক্তব্যে কাদের গনি চৌধুরী বলেন, যে দেশে গণতন্ত্র থাকে না, সে দেশে সংবাদপত্রের স্বাধীনতাও থাকে না। আমাদের সংবিধানে বাক স্বাধীনতার কথা উল্লেখ থাকলেও সরকার সেটা মানছে না বরং গণমাধ্যমের উপর নিয়ন্ত্রণ এমন পর্যায়ে এসে ঠেকেছে যেখানে সত্য প্রকাশে প্রতিনিয়ত বাধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। আজ সাংবাদিকের কলম স্বাধীন নয়, সেটি কাজ করছে উপর মহলের নির্দেশে। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতকরণে গণতন্ত্র অত্যন্ত জরুরি উল্লেখ করে সাংবাদিকদের এনেতা বলেন, আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে তখনই তারা সংবাদপত্রের স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে। ৭২-৭৫ সালে ৪টি সংবাদপত্র রেখে সব সংবাদপত্র বন্ধ করে দিয়েছিল। পরেরবার এসে দৈনিক বাংলা, বাংলাদেশ টাইমসসহ অনেক পত্রিকা বন্ধ করে দেয়। কাজেই মুক্ত সাংবাদিকতা চাইলে মিডিয়ার জাতশত্রুদের সরাতে হবে।
কবি আবদুল হাই শিকদার বলেন, সাংবাদিকদের অধিকার আদায় আন্দোলনের আপোষহীন নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন গাজীকে অন্যায়ভাবে ১০ মাসযাবৎ জেলখানায় বন্দি করে রাখা হয়েছে। সাংবাদিকদের ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের আন্দোলন থেকে শুরু করে সকল প্রকার অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন সাহসী কণ্ঠস্বর। সরকার বিরোধী মতকে সহ্য করতে না পেরে তাকে ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় আটক করে এখন নানা অজুহাতে জামিন প্রলম্বিত করছে। বর্তমান সরকার স্বাধীনতার চেতনাকে পায়ের নীচে পিষ্ঠ করছে। দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে আপষহীন সাংবাদিক নেতা রুহুল আমিন গাজীকে মুক্ত করে এর জবাব দেওয়া হবে।
মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, সাংবাদিকদের কাজ হলো দেশের স্বার্থে জনগণের সাথে লেখালেখি করা। আমাদের অফিসে থাকার কথা ছিল। কিন্তু পেশার ওপর আঘাত আসায় আমরা আজ রাজপথে আন্দোলন করছি। মিথ্যা মামলায় অন্যায়ভাবে সাংবাদিকদের প্রিয় নেতা রুহুল আমিন গাজীকে ১০ মাস ধরে জেলে আটকে রাখা হয়েছে।
রুহুল আমিন গাজী ও সাদাত হুসাইনের মুক্তি না হওয়া পর্যন্ত আমরা রাজপথ ছাড়বো না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম