1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কৃষকলীগের শোক সভা ভাড়া করা লোক হওয়ায় ভাংচুর আহত ২০ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৩৬ অপরাহ্ন

কৃষকলীগের শোক সভা ভাড়া করা লোক হওয়ায় ভাংচুর আহত ২০

মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী মানু, বিশেষ প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৬ বার

আশুলিয়া থানা কৃষকলীগ শোক সভায় ব্যাপক ভাংচুর ও হামলার ঘটনায় প্রায় ২০ জন আহত হয়েছে। এনিয়ে স্থানীয় নেতা কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয় এ ঘটনা গত ৩১ অগাস্ট এলাহী কমিনিটি সেন্টারে ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় আশুলিয়া থানা কৃষকলীগ এর সভাপতি মহসিন করিম এর উদ্দোগ্যে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি ছিলেন মো: আব্দুর রাজ্জাক, বিশেষ অতিথি ছিলেন ,সাভার উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান সাহাদাত হোসেন খান,অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন,আবু তাহের,সানাউল্লাহ,মোবারক হোসেন জাকির ,হেলাল উদ্দিন । স্থানীয় কৃষকলীগ নেতা কর্মীদের মধ্যে নানা বিষয় নিয়ে কথাকাটাকাটি নিয়ে হাতাহাতি ও চেয়ার ভাংচুর দৌড়া দৌড়ি হয়। এ নিয়ে প্রায় ২০ নেতা কর্মী আহত হয়েছে। অনেক নেতা কর্মী বলেন কৃষকলীগ মেয়াদ উত্তীর্ণ থানা কমিঠি দৃশ্যমান ইউনিয়ন ওয়ার্ড কমিঠি গঠন করতে পারেনি পকেট কমিঠি দিয়ে ১১ বছর ধরে থানা কমিঠি পরিচালনা করেছে। বর্তমান অদক্ষ ও কর্মী বিহীন লোক দিয়ে পুনরায় থানা কৃষক লীগের কমিঠি গঠন করার পায়তারা করছে। আমরা এ ধরণের কমিটি চাই না। কাউন্সিল করা তৃনমুলের নেতাদের মতামতে কমিঠি গঠন করতে হবে। থানা কৃষকলীগ এক নেতা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন,হটাৎ দুই দিন আগে আমাদের প্রোগ্রাম উপস্থিত হওয়ার দাওয়াত দেয়া হয়। এর আগে কিছুই জানান হয়নি। আমরা কমিটিতে থাকলেও আমাদের কোন মূল্যায়ন করা হয় না। শুনেছি সামনে ইউপি নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান প্রাথীর পক্ষে এই শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও থানা আওমীলীগের আহবায়ক যুগ্ন আহবাহক সভায় রাখা হয়নি। এনিয়ে স্থানীয় ভাবে দুটি গ্রুপের একটি অংশের সাথে জড়িয়ে কৃষকলীগ নেতা কর্মীদের বিভ্রান্তে ফেলেছে। স্বপন নামে এক কর্মী বলেন বিগত বছরের মধ্যে কৃষকলীগ কমিউনিটি সেন্টারে কোন আলোচনা সভা করতে দেখা যায়নি। হটাৎ করে কৃষক লিগে কেন্দ্রীয় ও জেলার নেতাদের বাদ দিয়ে স্থানীয় সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল রাজ্জাক প্রধান অথিতি করে ২ দিনের মধ্যে থানার শোক সভা করা হয়। এ নিয়ে কৃষক লীগ স্থানীয় নেতা কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। কৃষকলীগকে ব্যক্তি স্বার্থে ব্যবহার না করেন এই দাবী জানান এলাকার নেতা কর্মী ,অন্য দিকে অনেক প্রশ্ন করেন ৩১ অগাস্ট বাংলাদেশ কৃষকলীগ জাতীয় শোক সভায় থাকা চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে শোডাউন, এনিয়ে নেতা কর্মীদের মাঝে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয় আওমীলীগের সাথে কৃষক লীগের গ্রুপিং দ্বন্দের সৃষ্টি করা কি ভবিষ্যতের জন্য কি ঠিক হবে। মারামারির এ বিষয়টি নিয়ে পুরো আশুলিয়ার রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা সমালোচ হচ্ছে ভাড়া করা লোক এনে মিটিং করার কারণে সংঘর্ষ হয়েছে। প্রায় সময় দলীয় নেতা কর্মীরা না থাকায় এই রকম সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম