1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
শিশুকে সুস্থ রাখতে জন্মের পর প্রথম ৬ মাস অবশ্য বুকের দুধ দিতে হবে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪২ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
পিরোজপুরের নেছারাবাদে বিধবা নারীকে জুতা পিটার অভিযোগ ক্ষতি ১৫ কোটি টাকা, লালমনিরহাটে তিস্তার পানি কমেছে কুবিতে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় ‘খ’ ইউনিটে উপস্থিতি ৯৫.৪৪ শতাংশ জনপ্রিয় অভিনেতা ওয়ালিউল হক রুমির জন্মদিন আজ রংপুরে ধর্মপ্রাণ ও পরোপকারী নারী মরহুমা অজুবা বেগমের স্মরণে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল নেককার সন্তান আল্লাহর কাছে চেয়ে নিতে হয় সোনারগাঁয়ের ৮ ইউনিয়নে নৌকার মাঝি হলেন যারা কোরআন জিম্মি করে দেশে সাম্প্রদায়িক অস্থিরতা সৃষ্টির অপপ্রয়াসে উদ্বেগ লালমনিরহাটে খুচরা মাছ ব্যবসায়ীর ছেলে নব্যকোটিপতি বিজিবি’র গরুর লাইনম্যানীর অন্তরালে হুন্ডী ও মাদক পাচার পায়রা সেতুর উদ্বোধন

শিশুকে সুস্থ রাখতে জন্মের পর প্রথম ৬ মাস অবশ্য বুকের দুধ দিতে হবে

মুজিব উল্ল্যাহ্ তুষার :
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪২ বার

জন্ম গ্রহনের পরে পরিপূর্ণ সুস্থ সবল শিশুর জন্য মায়ের দুধের কোন বিকল্প নেই। জন্মের সাথে সাথে মায়ের শাল দুধই শিশুর প্রথম টিকা ও খাবার। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সংক্রামক থেকে শিশুকে দ্রত রক্ষা করে। শিশুকে সম্পূর্ণ সুস্থ রাখতে হলে জন্মের প্রথম ৬ মাস অবশ্যই বুকের দুধ দিতে হবে। আর কিছুই দেয়া যাবেনা। এর পর দুই বছর পর্যন্ত বুকের দুধ খাওয়ানোর পাশাপাশি ঘরে তৈরী শিশুর উপযোগী তরল সুষম ও পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার দিতে হবে। তাহলে শারীরিক-মানসিক বিকাশ সাধনসহ শিশুটি বুদ্ধিমান হবে। কিন্তু মায়ের দুধের বিকল্প হিসেবে যে সব গুড়ো দুধ বাজারে বিক্রি হয় সেগুলো শিশু স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। বুকের দুধের পরির্বতে এগুলো খাওয়ালে শিশুরা অপুষ্টিতে ভূগে ও বিভিন্ন জঠিল রোগে আক্রান্ত হয়। আজ ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১ ইংরেজি বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে আয়োজিত মাতৃদৃগ্ধ বিকল্প, শিশু খাদ্য, বাণিজ্যিকভাবে প্রস্তুতকৃত শিশুর বাড়তি খাদ্য ও উহা ব্যবহারের সরঞ্জামাদি (বিপণন নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০১৩ ও বিধি ২০১৭ এবং পুষ্টিখাতের অর্জন বিষয়ক অবহিতকরণ কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন। জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের বাস্তবায়নে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় কর্মশালার আয়োজন করেন।
বক্তারা বলেন, সন্তান ভূমিষ্ট হওয়ার পর খুব দ্রত শাল দুধ খাওয়ালে মায়ের রক্তক্ষরণ কম হয় ও গর্ভফুল পড়তে সাহায্য করে। ফলে মা রক্তস্বল্পতা থেকে রক্ষা পায়। দেশী-বিদেশী কিছু অসাধু কোম্পানী হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে শিশুদের জন্য মায়ের দুধের পরির্বতে গুড়োঁ দুধের প্রচার প্রচারণা চালায়। তারা এক শ্রেণির ডাক্তারদের চুিক্ততে শিশুদের জন্য মায়ের বিকল্প হিসেবে ব্যবস্থাপত্রে গুড়োঁ দুধ লেখানোর জন্য বাধ্য করে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। হাসপাতাল ও কিনিক্লগুলোতে গুড়োঁ দুধের প্রচারণা বন্ধে ডাক্তারসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে। মা ও শিশুকে সুস্থ রাখতে হলে গুড়োঁ দুধ বর্জন করতে হবে।
বক্তারা আরও বলেন, সন্তান প্রসবের পর কোন মা মারা গেলে শুধুমাত্র ঐ শিশুর জন্য বুকের দুধের পরিবর্তে রেজিষ্ট্রার্ড শিশু চিকিৎসকেরা তাদের ব্যবস্থাপত্রে কারণ উল্লেখ করে বিকল্প হিসেবে ভালোমানের গুড়ো দুধ দিতে পারবে। মায়ের দুধের বিকল্প হিসেবে কোন কোম্পানী তাদের উৎপাদিত গুড়ো দুধের প্রচার-প্রচারণা চালালে তাদেরকে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনা হবে। মাতৃদুগ্ধের বিকল্প গুড়োঁ দুধের বিরুদ্ধে প্রত্যেককে সচেতন হতে হবে। তাদেরকে হাসপাতাল ও ডাক্তারের চেম্বার বা ক্লিনিক থেকে বয়কট করতে হবে। কর্মশালায় উপস্থিত বিশেষ অতিথিরাএই আইনটি বাস্তবায়নে সর্বত্র প্রচার-প্রচারনা ও সচেতনতামুলক অনুষ্টানের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন।
চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বির সভাপতিত্বে ও জেলা স্বাস্থ্য তত্ত¡াবধায়ক সুজন বড়–য়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত কর্মশালার উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহাখালীস্থ জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ। মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমের জাতীয় পুষ্টিখাতের অর্জন বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ জাতীয় পুষ্টি পরিষদের পরিচালক ডা. তাহেরুল ইসলাম ও মাতৃদুগ্ধ বিকল্প আইন ২০১৩ ও বিধি ২০১৭ বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের সহকারী পরিচালক ডা. মোহাম্মদ শোয়াইব। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আসিফ খান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল-মাসুম, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারজান হোসেন, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জিয়াউল হায়দার হেনরী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উ-পরিচালক মোঃ সেলিম উদ্দিন, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. মাহমুদা আক্তার, আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাঃ আহমেদ তানজিমুল ইসলাম, ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. নাবীল চৌধুরী, বোয়ালখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. জিল্লুর রহমান, সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. আবদুল মজিদ ওসমানী, লোহাগাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ হানিফ, চন্দনাইশ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. শাহীন হোসাইন চৌধুরী, হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা এএসএম ইমতিয়াজ হোসাইন, সীতাকুন্ড উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোঃ নুর উদ্দিন, বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোঃ শাফিউর রহমান মজুমদার, রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা মোঃ নুর আলম দ্বীন, আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা আবু জাহিদ মোঃ শরফুদ্দিন, মিরসরাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা শব্যসাচী নাথ, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওসিএস ডা. ওয়াজেদ চৌধুরী অভি, এমও ডিসি ডা. মোহাম্মদ নুরুল হায়দার, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এসআইএমও ডা. এফ এম জাহিদ, সাংবাদিক রনজিত কুমার শীল, এডভোকেট সেলিম চৌধুরী, ডা. রুমি দাশ, ডা. রুমানা রশিদ, ডা. ফারিয়া সিলভী, ডা. নারগীস আক্তার সিদ্দিকী, ডা. ফাহিমা আফরিন প্রমূখ। কর্মশালায় বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসক-নার্সগণ অংশ নেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম