1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
হুন্ডী ব্যবসায়ীরা আবারোও তৎপর, লালমনিরহাটের বিভিন্ন সীমান্তে অবাধে মাদকদ্রব্য পাচার চলছে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মোটরসাইকেল শোডাউনের মাধ্যমে আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হারুনুর রশিদ রঙ্গু’র পূজামন্ডপ পরিদর্শন মাগুরায় নির্বাচনী সহিংসতায় দু পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ!! নিহত -৪ আহত -২০ লাকসামে রাজনীতির প্রতিহিংসায় গাছের সাথে শত্রুতা! রাউজানে সুষ্ঠ ও শান্তিপুর্ণ ভাবে সনাতনী ধর্মীয় অনুসারীদের শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন নবীনগরে উপজেলা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) উদযাপন কুবির দত্ত হলে জুনিয়র ছাত্রলীগ কর্মীরা মারধর করে সিনয়রকে সাঈদ হাসান,কুবি রাউজানে সব ধর্মের মানুষ অসম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-পূজা মণ্ডপ পরিদর্শনে এমপি ফজলে করিম নবীগঞ্জে শেখ রাসেল দিবস পালন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত আমিলাইষের পূজামণ্ডপে আলহাজ্ব মোজাম্মেল হক চৌধুরীর আর্থিক অনুদান ও কাপড় বিতরণ রিদওয়ান খালিদ চোধুরীর জন্মদিন আজ

হুন্ডী ব্যবসায়ীরা আবারোও তৎপর, লালমনিরহাটের বিভিন্ন সীমান্তে অবাধে মাদকদ্রব্য পাচার চলছে

লাভলু শেখ স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট।
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১
  • ৩৩ বার

হুন্ডী ব্যবসায়ীরা আবারোও তৎপর! লালমনিরহাট জেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে মাদকদ্রব্য পাচার করছে, চোরাকারবারীরা যুব সমাজ ধংস হওয়ার আশংকা।
জানা গেছে, সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাট এখন হুন্ডী ও ফেনসিডিল, গাজাঁ ও হিরোউনসহ নানা প্রকার মাদক পাচারের আস্তানায় পরিনত হয়েছে। হাত বাড়ালেই পাওয়া যায় ভারত থেকে অবৈধ পথে আসা এসব ফেনসিডিলসহ নানা প্রকার মাদকদ্রব্য চাহিদানুপাতিক এর মধ্যে বিক্রিও হচ্ছে বেশ চড়া দামে। স্কুল-কলেজের ছাএ থেকে শুরু করে উঠতি বয়সের যুবক ও স্বনামধন্য প্রভাবশালী পরিবারের আদরের দুলালরাই এর প্রধান ক্রেতা। এ সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে ফেনসিডিল বিক্রেতারা মাঝে -মধ্যে প্রশাসনের কড়া নজর দারির অজুহাত তুলে আমদানি সংকটের কথা বলে একেকটি ফেনসিডিলের বোতল ৫ থেকে ৭ টাকা বিক্রি করছে। তবে এমনিতেই এসব ফেনসিডিল প্রতি বোতল ৩শ থেকে ৪ শ টাকায় বিক্রি হয়ে থাকে বলে জানা যায়। এ অবস্তার মূখে লালমনিরহাটে ফেনসিডিল ব্যবসার প্রসার বৃদ্ধি লাভ করায় একদিকে যেমন ফেনসিডিল ব্যবসায়ীরা কোটি পতি বণে যাচ্ছে। তেমনি ফেনসিডিল খোররা নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ায় শহর ছাড়াও বিভিন্ন এলাকায় শান্তি-শৃঙ্খলার অবনতিও ঘটছে। এ সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, লালমনিরহাট জেলার ৫ টি উপজেলার শতাধিক স্পটে মাদকদ্রব্য কেনা বেচা- হয়ে থাকে এর মধ্যে লালমনিরহাট শহরেই রয়েছে প্রায় ৫০ টি স্পট। সীমান্ত ঘেঁষা এ জেলার বিজিবির দায়িত্ব পালনের ক্ষেতে শিথিলতার কারনে যেমন ফেনসিডিল ভারত থেকে চোরা পথে লালমনিরহাট জেলায় প্রবেশ করছে। কখন কোন স্পটে এসব মাদকদ্রব্য খুচরা ও পাইকারী বিক্রি হচ্ছে তা কথিপয় আইন – শৃঙ্খলা বাহিনীর জানা রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সূএ জানায়, শুধু খুচরা – বিক্রিই নয় লালমনিরহাট জেলা থেকে ফেনসিডিলসহ নানা প্রকার মাদকদ্রব্যর বড় বড় চালান, রংপুর, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া ও ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় পাচার হয়ে যাচ্ছে। এরকম চালান পাচারের ক্ষেত্রে পাচারকারীরা বিভিন্ন সময় অভিনব কৌশলে পুলিশের নজর ফাঁকি দিয়ে পাচার করে আসছেন। বিভিন্ন মাদকদ্রব্য অবাধ ব্যবসার ফলে সংশ্লিষ্ট এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠলেও যেন বলার কেউ নেই। কারন প্রতিবাদ করলে প্রতিবাদকারী কে মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকিসহ মাদক ব্যবসায়ীদের পোষ্য সন্তাসীরা হামলার মতো ঘটনাও ঘটিয়ে থাকে। এদের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাচ্ছে না প্রশাসন যন্ত্রের সদস্যরাও। এমন হামলার স্বীকার জেলার একাধিক পরিবার। তবে এক্ষেত্রে পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্রের মতে, এরকম মাদক ব্যবসায়ী সে যেই হোক না কেন? ধরা পড়লে আইনের আওতায় আনা হবে। এ জন্য মাদক বিরোধী অভিযান লালমনিরহাট জেলায় অব্যাহত রয়েছে। অপরদিকে লালমনিরহাটে এমনও নজির রয়েছে মাদক ব্যবসার তথ্য উদঘাটনের ক্ষেত্রে রাবের ক্রসফায়ারে আদিতমারীতে এক মাদক ব্যবসায়ী মারা যায়। এছাড়াও লালমনিরহাট জেলা পুলিশের হাতে একাধিক মাদক ব্যবসায়ী গুলি বিদ্ধ হয়েছে। তবুও থেমে নেই মাদক ব্যবসা। এদিকে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দইখাওয়া সীমান্তে একটি মাদকদ্রব্য ও হুন্ডী ব্যবসা পরিচালনার সিন্ডিকেটের চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। ওই এলাকার ৯ নং আর্দশ গোতামারী ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত আঃ রশিদ এর ছেলে মোঃ হারুন, শামছুল হক ডিলারের ছেলে মোঃ বুলেট মিয়া ও মৃতঃ আনছার মিয়ার ছেলে মোঃ প্রিন্স লিখিত অভিযোগে বলেছেন, হাতীবান্ধা উপজেলার বাসিন্দা মাদক ও হুন্ডী ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট এর হোতা ৯ নং গোতামারী ইউনিয়নের ৫নং ওয়াডের বকতার হোসেনের ছেলে মোঃ মাইদুল ইসলাম (হুন্ডী) মাইদুল, আজগার আলীর ছেলে মোঃ রবিউল ইসলাম রবি ও মৃতঃ ইয়াজ উদ্দিনের ছেলে মোঃ আমিনুর রহমান এর বিরুদ্ধে উপ-পরিচালক মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর -রংপুর, লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক ও উপ-পরিচালক মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর লালমনিরহাটসহ বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বরাবরে লিখিত অভিযোগ প্রেরন করেছেন। তাদের অভিযোগ সূএে জানা গেছে, হুন্ডী মোঃ মাইদুল ইসলাম গং চোরাকারবারী, মাদক, অবৈধ অস্ত্র, গরু পাচার ও হুন্ডী ব্যবসার মাধ্যমে কোটি কোটি মূদ্রা পচার করে জিরো থেকে হিরো হয়েছে। ওই এলাকার স্হানীয় লোক জন জানান, অতি অল্প সময়ে হন্ডী মোঃমাইদুল ইসলাম কোটি কোটি টাকার মালিক কেমনে হলো এটাই তাদের প্রশ্ন? হুন্ডী মাইদুল স্হানীয় দই খাওয়া বিজিবি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডারের আওতায় গরুর লাইন ম্যান হিসেবেও জড়িত রয়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানায়। অল্প দিনে নব্যকোটি পতি হওয়ার আয়ের উৎস কোথায় খতিয়ে দেখার আহবান জানান এলাকাবাসী। এছাড়া তাদের অবৈধ এসব কাজের প্রতিবাদ করলে মিথ্যা মামলা ও বিভিন্ন হয়রানীর স্বীকার হতে হয়। সরে জমিনে তদন্ত করলে প্রমান পাওয়া যাবে বলে স্হানীয়দের দাবী। হুন্ডী মাইদুল গং শাসকদলের নেতাদের আশ- পাশে ঘুরে তাদের নাম ভাঙ্গিয়ে ও বিজিবির নামে কন্টাক এর টাকা বাবদে কৌশলে এসব ব্যবসা পরিচালনা করছে। একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তা জানান, ২০১৫ সালে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ৬৪ জেলার হুন্ডী ব্যবসায়ীদের একটি তালিকা পুলিশ সদর দপ্তরে প্রেরন করা হলে পুলিশ হুন্ডী ব্যবসায়ীদের উপর কঠোর নজর দারী শুরু করেন। কিন্ত রহস্যজনক ভাবে তা স্হগিত করা হলে বেপরোয়া হয়ে উঠে লালমনিরহাট জেলার হুন্ডী ব্যবসায়ীরা। বহুল আলোচিত হুন্ডী ব্যবসায়ী মাইদুল গং কোটি কোটি মূদ্রা ভারতে পাচার অব্যহত রেখেছে। যা আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নজর ফাঁকি দিয়ে। সরকার সারা দেশে হুন্ডী ব্যবসায়ীদের উপর অভিযান চালালে তাদের নিকট থেকে অবৈধ কোটি কোটি টাকা উদ্ধার করা যাবে বলে সচেতনমহল মনে করছেন। এব্যাপারে অভিযুক্ত মোঃ মাইদুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি উক্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি বিজিবির লাইনম্যানী করি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম