1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সিরাজদিখানে ইউপি নির্বাচনে পরাজিত হয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
স্বেচ্ছায় রক্তদানকারী সংস্থা ‘উই ফর ইউ’র কেন্দ্রীয় সভাপতি নূর এ মাওলা রাজু’র ইন্তেকাল ২৪ ঘন্টা ডট নিউজের ৩য় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিব এমপি’র ভাই মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মতিনকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন চন্দনাইশ ফাতেমা জিন্নাহ স্কুলে জেলা পরিষদের অনুদান নয়-ছয়। সাংবাদিক ও গীতিকার এম মুজিবুর রহমানের জন্মদিন পালিত নবীগঞ্জে মোটর সাইকেল সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষ আহত ৩ রামগড়ে পাহাড় কাটায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান; ৭০ হাজার টাকা জরিমানা মাগুরায় ‘৮৭ ফাউন্ডেশনে’র উদ্যোগে শিক্ষাবৃত্তি প্রদান মীরসরাইয়ে বেপজার অপরিকল্পিত বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদে মানববন্ধন বিনা ভোটে নির্বাচিত রাউজানের ইউপি চেয়ারম্যানদের শপথ গ্রহণ

সিরাজদিখানে ইউপি নির্বাচনে পরাজিত হয়ে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ২৬ বার

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে হেরে পরাজিত হয়ে বিজয়ী প্রার্থীর পরিবারের লোকেদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের মির্জা কান্দা এবং মজিদ পুর গ্রামে।

এলাকাবাসী জানায় গত ২৬ ডিসেম্বর কেয়াইন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী সদস্য হিসেবে মাইক প্রতিক নিয়ে নির্বাচত হয় জিয়াসমিন বেগম আর পরাজিত হয় কলম প্রতিক নিয়ে শাহিনুর বেগম। বিজয়ের পর ২৭ তারিখ জিয়াসমিন বেগম তার ভাই ভাতিজাসহ ৮/১০টি মটর সাইকেল নিয়ে শিকারপুরসহ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় শুভেচ্ছা বিনিময় করে। বিকেলের দিকে তার ভাশুরের বাড়ি মজিদপুর গ্রামে যায়। সেখানে রাস্তার উপর মটর সাইকেল গুলো রেখে গেলে শাহিনুরের কর্মিরা তার মটর সাইকেল গুলো ভাঙতে শুরু করে। সেখানে খবর পেয়ে জিয়াসমিন ও তার লোকজন আসে। তবে শাহিনুরের লোকজন বেশী থাকায় তারা মটর সাইলে রাস্তায় ফেলেই পালিয়ে যায়।
স্থানীয় মোসলে উদ্দিন বলেন, জিয়াসমিন তার লোকজন নিয়ে পরাজিত প্রার্থী শাহিনুরের বাড়ির সামনে মোটরসাইকেল গুলি রেখে পায়ে হাটা রাস্তা ধরে সবার সাথে দেখা করতে যায়। তার কিছুক্ষন পরে শাহিনুরের পক্ষের লোক জন মটর সাইকেল গুলো লাঠি দিয়ে বাইরায় ভাঙে। একটু পরেই সেখানে শহিদুল তার লোকজন নিয়া আসে। শহিদুলের লোকব বেশী থাকায় সেখান থেকে জিয়াসমিন লোকজন নিয়া পালিয়ে যায় পরে এলাকায় অনেক লোকজন হয়ে যায়। কে বা কারা বম ফাটাইছে সেইটা আমি দেখি নাই কিন্তু ৩টা বমের আওয়াজ পাইছি।

জিয়াসমিন বেগম বলেন, আমি নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় আমার বিরোধী পক্ষ শাহিনুর বেগমের তার স্বামী উজ্জল, নবনির্বাচিত মেম্বার শহিদুল ইসলাম, বাপ্পিসহ তাদের দলবল নিয়ে আমাদের উপর আক্রমণ করে। আমার লোকেদের মোটরসাইকেল গুলো ভেঙ্গে ফেলে। আমি ওদের ভয়ে পালিয়ে আমার শ্বশুর বাড়িতে গেলে তারা সেখানে তিনটা ককটেল ফাটায়। তাতে তাদের নিজেদের একজন লোক আহত হয়। শুনেছি আরেকজন দৌড়াদৌড়ি করতে গিয়ে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পায়। আমরা ওদের ধাওয়া খেয়ে পালিয়ে ৯৯৯ এ ফোন দিলে সেখানে পুলিশ আসে। সেখানে চেয়ারম্যান ও সার্কেল এসপি এসে উপস্থিত হয়। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যায় তারা চলে যায়। তারা বলে কেউ যদি কোনো মামলা করতে চান তাহলে থানায় আসেন। চেয়ারম্যান আমাদের দুই পক্ষকে ডেকে আপোষ মীমাংসা করে দেওয়ার কথা বল্লে সেটা উভয় পক্ষই মেনে নেয়। তখন চেয়ারম্যান বলে তাহলে কেউ যেন কোনো মামলা না করে। আমরা চেয়ারম্যানের ও কথা শুনে আমরা কোন মামলায় না গিয়ে বাডিতেই থাকি। কিন্তু রাত ১০টার দিকে পুলিশ এসে আমার দেবর ইসলাম শেখ সাবেক মেম্বার তাকে বাসায় এসে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে আমার স্বামী, ছেলে ও আরেক দেবর পুলিশের কথা শোনার জন্য যায়। সেখান থেকে পুলিশ তাদের গারিতে উঠয়ি থানায় নিয়ে যায়। বম মারল উজ্জ্বল ও শহিদুলরা আর মামলায় আসামি হল আমার স্বামী, ছেলে ও দেবার। আমরা এই মিথ্যা সরযন্ত্র মূলক মামলার থেকে পরিত্রান চাই। আর আমাদের উপর হামলা করা সন্ত্রাসীদের বিচার চাই।

কেয়াইন ইউপি চেয়ারম্যান আশ্রাফ আলী বলেন, আমি উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার কথা শুনে সেখানে হাজির হই। আমার কাজ এলাকার শান্তি রক্ষায় আপোষ মিমাংশা করা। সেখানে আমি আপোষ মিমাংশার কথা বলি ।তবে বোমা বা কোকটেল বিস্ফোরন তো আর আপোষ যোগ্য নয়। সেখানে থানা পুলিশ ও সার্কেল এসপি সাহেব তদন্ত করে বিস্ফরনের ঘটনার সত্যতা পেয়ে তার সেটা মামলা নিয়েছে। আমি আজকেও ওই এলাকায় গিয়েছিলাম যেন এলাকার শান্তিসৃঙ্খলা বজায় থাকে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মো. সাদ্দাম বলেন, বিধি মোতাবেক আসামীদের গ্রেফতার করা হয়েছে এবং মামলার তদন্ত এখনো প্রক্রিয়াধিন রয়েছে।
সহকারী পুলিশ সুপার সিরাজদিখান সার্কেল রাসেদুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে জানতে একাধিকবর ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম