1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ইলেকশন নাকি সিলেকশন, জনমনে প্রশ্ন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
রাউজানে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু আনোয়ারা প্রেস ক্লাবের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত রাউজানে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হলো শারদীয় দুর্গাপূজা অসুর শক্তিকে ধ্বংস করে করে আওয়ামীলীগ আজ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় : এমপি হানিফ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীর শাকিল হত্যা মামলার আসামি এক মাস ধরে পলাতক, ইউপি চেয়ারম্যানকে খুঁজছে পুলিশ ! উন্নয়নের সুষম বণ্টনই আমার প্রধান লক্ষ্য : নিবাচনী প্রচারণায় ভার্ড কামাল বিএসএফ’র গুলিতে বাংলাদেশী যুবক আহত । ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে বৈদ্যুতিক স্পর্শে প্রাণ গেল যুবকের! ঠাকুরগাঁও থেকে অপহৃত স্কুল ছাত্রী গাজীপুর থেকে উদ্ধার —আসামীরা পলাতক ! ১০ বছরেও সংস্কারের মুখ দেখেনি শীলকূপ-গন্ডামারা সড়ক, খানাখন্দে বেহাল জনদুর্ভোগ

ইলেকশন নাকি সিলেকশন, জনমনে প্রশ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৮১ বার

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন আগামী ১৬ জানুয়ারি। এরই মধ্যে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন৷ শুরু হয়ে গেছে নির্বাচনী প্রচারনা৷ সিটি কর্পোরেশনর কে ঘিরে মাঠে নেমেছে নৌকা সহ মোট ৭ মেয়র প্রার্থী। সাধারন কাউন্সিলর আসনে ২৭ টি ওয়ার্ডে লড়াই করবেন ১৪৮ জন।এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনে প্রার্থী রয়েছেন ৩৪ জন।এদের মধ্যে সিটিতে সব চেয়ে আলোচিত দুই মেয়র প্রার্থী হচ্ছেন দলীয় নৌকা প্রতিকে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভি,এবং সতন্ত্র হাতি প্রতিকে প্রার্থী বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাড.তৈমূর আলম খন্দকার। কিন্তু বিএনপি মনোনায়ন দেয়নি তৈমুর কে৷ গত ২০১১ সালে সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থীতে নির্বাচন করতে চাইলেও দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নির্বাচন থেকে সরে পরেন বিএনপি নেতা তৈমূর।এবার তৃত্বীয় ধাপে সিটি নির্বাচনে তিনি দল থেকে কোন সাপোর্ট না পেয়ে নিজেই হয়েছেন মেয়র প্রার্থী।আর বিভিন্ন সূত্র থেকে যে খবর তাতে নির্বাচনী লড়াই হবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র প্রার্থীদের মধ্যেই৷

এখানে মোট মেয়র প্রার্থী সাত জন৷ মোট ওয়ার্ড ২৭টি৷ কাউন্সিলর প্রার্থী ১৪৮ জন৷ সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরের ৯টি পদে প্রার্থী ২৭ জন৷ এই সিটিতে মোট ভোটার ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৫৭ জন

২৮ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন প্রার্থী তালিকার প্রতীক চূড়ান্ত করার পরই সিটিতে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়ে গেছে৷ সারাদেশের চোখ এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের দিকে৷ তবে শুরু থেকেই এই নির্বাচনে কয়েকটি বিষয় আলোচনায় এসছে৷ আর তা হলো, সংসদ সদস্যদের নির্বাচনে প্রচারণার সুযোগ করে দিবেন কিনা নির্বাচন কমিশন। যদিও এই প্রশ্ন হঠাৎ জনমুখে।
নির্বাচনে কমিশনের সুষ্টূ পদক্ষেপ দাবি করছে বিএনপি শুরু থেকেই৷ কিন্তু এ নিয়ে নানা আলোচনার পর নির্বাচন বিষয়টি ক্লিয়ার করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন৷

ভোটারদের অভিমত, নির্বাচনের যা অবস্থা দাঁড়িয়েছে তাতে নিরপেক্ষ নির্বাচন ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচনের আশা করা যায়না৷ তারপরও নির্বাচন কমিশন যেহেতু সবাই কে প্রচারনার সমান সুজোগ দিয়েছে সেহেতু এখন তাদেরই দায়িত্ব হল সুষ্ঠু নির্বাচন করে প্রমাণ করা৷

অন্যদিকে নির্বাচনে সংসদ সদস্যদের প্রচারনায় অংশগ্রহণ করছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ৷ নির্বাচন কমিশন এ বিষয়ে এখনো কোনো অবস্থানের কথা জানায়নি৷ বলা হচ্ছে নির্বাচন কমিশন আওয়ামী লীগের দাবির দিকে ঝুঁকে আছে৷ তবে সংসদ সদস্যরা সে সুযোগ পাবেন না স্পষ্ট বলে দিয়েছেন নির্বাচন কমিশন ৷কারণ এরই মধ্যে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হয়ে গেছে৷ সুযোগ দিলে আগেই দেয়া হতো বলে জানা যায় নির্বাচন কমিশন থেকে।

সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচারের সুযোগ দেয়া কেনোভাকেই ঠিক হবে না বলে দাবি অনেকের। কারণ তারা প্রশাসনসহ আরো অনেক বিষয়ের ওপর প্রভাব বিস্তারের ক্ষমতা রাখেন৷

এরই মধ্যে নির্বাচনে প্রচার চালাতে না দেয়ার অভিযোগও উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে৷ বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম অভিযোগ করেছেন, পুলিশ প্রশাসন তার নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দিচ্ছেন৷

সচেতন মহলের দাবী,এখন পর্যন্ত সিটি নির্বাচন নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে যেসব অভিযোগ বা অনিয়মের কথা এসেছে তা নির্বাচন কমিশন নিস্পত্তি করেছে এমন খবর পাওয়া যায়নি৷ তবে নির্বাচন কমিশনেরও মনে রাখতে হবে সব অভিযোগ লিখিত হয়না৷ তাদেরও কিছু দায়িত্ব আছে৷ সংবাদ মাধ্যমে যেসব তথ্য আসে তা থেকে তারা সুয়োমোটো ব্যবস্থা নিতে পারেন৷”

নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ করার পদ্ধতিও পরিস্কার নয়৷ এজন্য একটি ম্যানুয়াল থাকা প্রয়োজন৷ তা করা না হলে নির্বাচন যত কাছে আসবে পরিস্থিতি জটিল হবে৷ অভিযোগ বাড়বে৷আমরা এ প্রযোন্ত্য যা দেখেছি এবং যে তথ্য এ পর্যন্ত রয়েছেন তাতে মনে হচ্ছে নির্বাচন কমিশন অভিযোগ আমলে নিচ্ছে না বলে জানান সচেতন মহলের একদল।

এই নির্বাচনকে বিশ্লেষকরা আগামী জানুয়ারি নির্বাচনের আগে বড় দুই দলের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের লড়াই হিসেবে দেখছেন৷ আর এর প্রভাব জাতীয় নির্বাচনে পড়বে কি পড়বে না তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও নির্বাচন কমিশনের জন্য যে একটি পরীক্ষা তা বলছেন সবাই৷এরই মধ্যে ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র দখলের অভিযোগও আছে৷

বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচন কমিশনকে জাতীয় নির্বাচনের আগেই তার দক্ষতা এবং গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে হবে৷

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম