1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গণহত্যা দিবস বধ্যভূমি জুয়ার আসর - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৪:০০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মানিকছড়িতে ইউপিডিএফ (মূল) এর প্রতিবাদ ধর্মঘট ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রকল্পে সঞ্চয়ের টাকা পেলেন ৮০ জন নারী শ্রমিক ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে নির্মাণের ২ বছরের মাথায় ধসে গেল সাড়ে ৩ কোটি টাকার ব্রিজ ! চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ ১১ জন গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে ৪ হাজার গছের চারা বিতরণ দায়িত্ব পালন না করেও বেতন নিচ্ছেন মৈশকরম প্রাইমারি স্কুলের দপ্তরি শফি মাগুরায় রাতের আঁধারে বীর মুক্তিযোদ্ধার ঘর পোঁড়ানোর অভিযোগ!!! রাজবাড়ী থেকে কুচাঁ যাচ্ছে দেশের বাইরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানি ভাষা শ্রেণিকক্ষ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গণহত্যা দিবস বধ্যভূমি জুয়ার আসর

আনোয়ার হোসাইন (তন্ময় আলমগীর), কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ১২৫ বার

ভৈরবের বধ্যভূমির স্মৃতিস্তম্ভ। ৩৫ বছর আগে নির্মিত। দেখতে বেশ সুন্দর। ফটকটি তালাবদ্ধ। তাতে ভাবাই যায়, নিশ্চয় জোরালো নিরাপত্তা ব্যবস্থা। তাছাড়া মূল বেদিতে নেই সাধারণ মানুষের প্রবেশের সুযোগ। কিন্তু বাইরে থেকে তাকাতেই চোখে পরল ভেতরে কয়েকজন মানুষ। একটু এগিয়ে যেতেই দেখা গেল, তাঁরা বসে মাদকসেবন করছে। উপস্থিতি টের পাওয়ামাত্র প্রাচীর টপকিয়ে কেটে পরল তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দুই বছর ধরে বধ্যভূমির ফটকে স্থায়ীভাবে তালা ঝুলছে। এতে প্রাচীর টপকিয়ে ভেতরে যেতে পারলে স্থানটি একচ্ছত্র অপরাধীদের হয়ে যায়। বধ্যভূমিলাগোয়া মনচূড়া নামের একটি রেস্টুরেন্টের ব্যবস্থাপক সাব্বির হোসেন বলেন, রেস্টুরেন্ট হওয়ায় এখন আগের চেয়ে অপরাধীদের আনাগোনা কমেছে।

উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ভৈরবে পাকিস্তানি বাহিনীর প্রবেশের তারিখটি ছিল ১৪ এপ্রিল। হঠাৎ ভৈরবের আকাশে সেদিন দেখা যায় চারটি জেট বিমান, একাধিক হেলিকপ্টার ও গানশিপ। কিছুক্ষণের মধ্যে শুরু হয় বিরতিহীন গুলির শব্দ। জীবন বাঁচাতে হাজারখানেক মানুষ জড়ো হয় উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের আলগড়া খেয়াঘাটে। উদ্দেশ্য ওপারে নিরাপদ আশ্রয়ে যাওয়া। নদ পার হওয়ার আগেই পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে ৩০ মিনিটের ব্যবধানে শহীদ হন সাড়ে ৩০০ নিরস্ত্র বাঙালি। সেই দিন শহীদের রক্তস্রোতে ব্রহ্মপুত্রের পানি লাল হয়ে গিয়েছিল।

পাকিস্তানি সেনারা চলে যাওয়ার পরও মানুষ ভয়ে ওই দিন আপনজনের লাশ নিতে আসেনি। পরদিন অনেকে এসে আপনজনের লাশ বাড়িতে নিয়ে দাফন করেন। যাদের স্বজন পাওয়া যায়নি তাদের এই ঘাটেই গণকবর দেওয়া হয়।

মুক্তিযুদ্ধের দুঃখগাথা ভৈরবের স্থানটি বধ্যভূমি হিসেবে পরিচিত। আর ১৪ এপ্রিল ভৈরব গণহত্যা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। দিনটি বাংলা নতুন বছর উদ্‌যাপন ও বাঙালির উৎসবের হলেও ভৈরবের জন্য বেদনার। এ জন্য এক যুগ আগেও ভৈরবের ব্যবসায়ীরা এ দিনে হালখাতা করতেন না, করতেন কয়েক দিন পর। তবে সময়ের ব্যবধানে এখন স্থানীয় লোকজন সেই রীতি পালন থেকেও অনেকটা দূরে সরে এসেছেন।

বছর ঘুরে আবার এসেছে শোকের এই দিন। তবে দিনটিকে স্মরণ করতে আজ সরকারি বা বেসরকারি পর্যায়ে কোনো কর্মসূচি ছিল না। কেবল ব্যক্তিগত পর্যায়ে বৃহস্পতিবার সকালে অনেকে বধ্যভূমির স্মৃতিস্তম্ভে গিয়ে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, বধ্যভূমির স্থানটিতে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয় স্বাধীনতার ৩৫ বছর পর। শুরুর দিকে বধ্যভূমির তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্ব পালন করতেন আবদুল লতিফ নামের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তার মৃত্যুর পর স্থানটি অরক্ষিত হয়ে পড়ে। এর পর থেকে উপজেলা প্রশাসন আর কোনো কেয়ারটেকার নিয়োগ দেয়নি। তালা ঝুলিয়ে রাখার মধ্যে দায়িত্ব সীমাবদ্ধ করে রেখেছে। এরপর বধ্যভূমির স্থানটি আয়েশ করে ব্যবহার করছে মাদকসেবী, জুয়ারি আর অপরাধী চক্র। এ নিয়ে এখন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্ত চিন্তার মানুষের ক্ষোভের শেষ নেই।

শিবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন, বধ্যভূমিটির অবস্থান তাঁর ইউনিয়নে। বধ্যভূমির ভেতরে শুধু মাদকসেবীরা নয়, ছেলেমেয়েরা গিয়েও নানা সমস্যার সৃষ্টি করত। এই জন্য তালা দিয়ে রাখা হতো। একজন কেয়ারটেকার নিয়োগের দাবি জানিয়ে বারবার উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করে চলেছেন তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম