1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অভিভাবকহীনতায় রংপুর সরকারি কলেজের একমাত্র ছাত্রাবাস - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:১৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মানিকছড়িতে ইউপিডিএফ (মূল) এর প্রতিবাদ ধর্মঘট ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রকল্পে সঞ্চয়ের টাকা পেলেন ৮০ জন নারী শ্রমিক ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে নির্মাণের ২ বছরের মাথায় ধসে গেল সাড়ে ৩ কোটি টাকার ব্রিজ ! চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ ১১ জন গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে ৪ হাজার গছের চারা বিতরণ দায়িত্ব পালন না করেও বেতন নিচ্ছেন মৈশকরম প্রাইমারি স্কুলের দপ্তরি শফি মাগুরায় রাতের আঁধারে বীর মুক্তিযোদ্ধার ঘর পোঁড়ানোর অভিযোগ!!! রাজবাড়ী থেকে কুচাঁ যাচ্ছে দেশের বাইরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানি ভাষা শ্রেণিকক্ষ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন

অভিভাবকহীনতায় রংপুর সরকারি কলেজের একমাত্র ছাত্রাবাস

খন্দকার রাকিবুল ইসলাম,স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর অফিস
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৮৯ বার

রংপুর সরকারি কলেজেের একমাত্র ছাত্রাবাসটি এখন অবহেলা অযত্নে ভূতুড়ে নগরীতে পরিণত হয়েছে।এর জন্য ছাত্রাবাসে অবস্থানরতরা দায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাকে দায়ী করেছে।

নগরীর সেন্ট্রাল রোড সংলগ্ন শহীদ মোসলেম উদ্দিন ছাত্রাবাসটি রংপুর সরকারি কলেজের একমাত্র ছাত্রাবাস।ছাত্রাবাসের মাঠে গড়ে উঠেছে অবৈধ ট্যাক্সি স্ট্যান্ড।ছাত্রাবাসের ভিতরটি যেন পোকামাকড়ের অভয়ারণ্য।জঙ্গল ও ময়লায় পরিপূর্ণ এ ছাত্রাবাসের অভ্যন্তর।

ছাত্রাবাসে অবস্থানরত মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আনিসুর রহমান বলেন।আমরা বর্তমানে অভিভাবকহীন অবস্থায় এ ছাত্রাবাসে অবস্থান করছি।কলেজ থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত হোস্টেল সুপার হারুন অর রশিদ তিন মাস থেকে আমাদের এখানে আসেন না।যদি কখনো হোস্টেল সংলগ্ন এলাকায় ওনার কোন কাজ থাকে তখনি শুধু ওনি আসেন।

ছাত্রাবাসে অবস্থানরত অপর শিক্ষার্থী আরিফ হাসান বলেন আমরা আধুনিক সকল সুযোগ- সুবিধা থেকে বঞ্চিত।পুরো ছাত্রাবাস মিলে পানি সরবরাহের জন্য একটি মাত্র টিউবকল।বাথরুমে নেই কোন দরজা।অরক্ষিত বৈদ্যুতিক লাইন।যে কোন সময় ঘটতে পারে বৈদ্যুতিক দূর্ঘটনা।

ছাত্রাবাসটির সাবেক ছাত্র মনিটর মুসা সরকার বলেন,পূর্বে এখানে ৫৬ জন শিক্ষার্থী ছিলো।বর্তমানে এটি বাস অযোগ্য হওয়ায় একে একে সব শিক্ষার্থী চলে গিয়েছে।বর্তমানে ১৭ জন শিক্ষার্থী ছাত্রাবাসে অবস্থান করছে।আর্থিক অনটনের দরুন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমরা এখানে বসবাস করছি।সন্ধ্যে হলেই ছাত্রাবাসে প্রবেশের রাস্তাটিও চলে যায় ট্যাক্সি ড্রাইভারদের দখলে।এরকম অসংখ্য সমস্যায় জর্জরিত হওয়ার কারনেই নতুন কোন ছাত্র এখানে আসে না।সমস্যাগুলো নিয়ে কলেজে কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার অভিযোগ করার পরও কার্যকর কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি তারা।

এ ব্যাপারে ছাত্রাবাসটির সুপার হারুন অর রশিদ বলেন,ছাত্রাবাসের দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাত্রদের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে।তাদের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে।অভিভাবকহীনতার অভিযোগটি সত্য নয়।ছাত্রাবাসটির সমস্যাগুলোর বিষয়ে মাননীয় ডিসি মহোদয়সহ সকলেই অবগত আছেন।

রংপুর সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোশারফ হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আমাকে কেউ অভিযোগ করেনি।ছাত্রাবাসটি নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত।এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক মহোদয়সহ সকলেই অবগত আছেন।আমি আগামীকালেই সরেজমিনে গিয়ে এ বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম