1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি দেড় বছরেও! দায় নিচ্ছেন না ইউএনও - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০২:৪২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শিক্ষক হেনস্তায় নিন্দা, প্রতিবাদ ও শাস্তির দাবি কুবি শিক্ষক সমিতির তিতাসে সাংবাদিক শামসুদ্দিন আহমেদ সাগরের জন্মদিন পালন মীরসরাইয়ে অপরিকল্পিত রাস্তা নির্মাণের কারণে পানি বন্দি কয়েক হাজার মানুষ মীরসরাইয়ে প্রথমদিনে ৫ ইউনিয়নে টিসিবির পণ্য বিতরণ সাতকানিয়া পৌরসভায় ৫৮ কোটি ৪৩ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শা‌য়িত ডাঃ মুমিনুল হক চৌধুরী নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় নিহত ৫, আহত ৪ সৈয়দপুর পৌরসভার ১৭১ কোটি ২৮ লাখ টাকার বাজেট ঘোষণা করলেন মেয়র রাফিকা আকতার জাহান চন্দনাইশে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে আটক-৪ মান্দায় যুবলীগ নেতার ওপর হামলা, গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি দেড় বছরেও! দায় নিচ্ছেন না ইউএনও

খাদেমুল হক বাবুল, জামালপুর।
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ মে, ২০২২
  • ৩৩ বার
ইসলামপুরের নাপিতেরচর মরাকান্দী হাজিরাড়ি এলাকায় শারীরিক প্রতিবন্ধী দুলা মিয়ার নামে বরাদ্দকৃত প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরের নির্মাণ কাজ দেড় বছরেও শেষ হয়নি। সোমবার দুপুরে ছবিটি তোলা।)

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্যোগে নেওয়া সারা দেশে আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর অনিয়ম, অবহেলা ও দুর্নীতির অভিযোগ থেকে দেশের অন্যান্য স্থানের মতোই বাদ যায়নি জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলা।

সুবিধাভোগীকে ঘর বুঝিয়ে দেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও নির্মাণ কাজ শেষ না করেই শারীরিক প্রতিবন্ধী দুলা মিয়া নামে গৃহহীন এক ব্যক্তিকে একটি ঘর বুঝিয়ে দেয় উপজেলা প্রশাসন। নির্মাণ কাজ অসম্পূর্ণ ওই ঘরটিতে আজও বসবাস করতে পারছেন না সুবিধাভোগী দুলা মিয়া।

সংশ্লিষ্টদের গাফলতি ও সঠিক তদারকি না করার কারণেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া উপহারের ঘর গত দেড় বছরেও নির্মাণ কাজ সমাপ্ত না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন ভুক্তভোগীর স্বজনরা।

জানা যায়, ‘জায়গা আছে, ঘর নেই’ এমন অসহায় ও দুস্থদের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিজস্ব প্রকল্প থেকে মাথা গোজার আশ্রয় হিসেবে বসতঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় ওই প্রকল্পের আওতায় গত ২০২০ সালে উপজেলার গাইবান্ধা ইউনিয়নের নাপিতেরচর মরাকান্দী হাজিবাড়ি এলাকার মৃত আসরাফ আলীর শারীরিক প্রতিন্ধী ছেলে দুলা মিয়াকে একটি ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। গত দুই বছরেও ওই ঘর নির্মাণ কাজ শেষ করেনি সংশ্লিষ্টরা। ফলে গৃহহীন দুলা মিয়া গৃহহীনই রয়ে গেছেন। সরকারি বরাদ্দের ঘরের দেড় বছরেও নির্মাণ শেষ না করার ‘দায়’ নিতে চান না উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মু. তানভীর হাসান রুমান। তিনি বলেন, ‘এ উপজেলায় আমি সদ্য যোগদান করেছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া দুলা মিয়াকে যে ঘর দেয়া হয়েছে সেই ঘরটি নির্মাণের কাজ অসমাপ্তের বিষয়টি আমার জানা নেই। তাছাড়া ঘরটি আগের ইউএনও করেছে।’

আগের ইউএনও বর্তমানে নেত্রকোণার বারহাট্টা উপজেলায় কর্মরত মাজহারুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ‘ঘরটি তাঁরও আগের ইউএনও মিজানুর রহমানের দায়িত্বকালীনে নির্মাণ কাজ করা হয়।’

ইউএনও মিজানুর রহমান ইতিমধ্যে বিদেশ থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে বর্তমানে সচিবালয়ে কর্মরত থাকায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, এখনো টিন দিয়ে ঘরের ছাউনী ছাওয়া শেষ হয়নি। বসানো হয়নি টয়লেটও। ঘরের বাকি কাজও করা হয়েছে নিম্নমানের। ঘরটি বসবাস অযোগ্য। দীর্ঘ সময়েও ঘরের নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় এখন পর্যন্ত অসহায় দুলা মিয়া ঘরে বসবাস করতে পারছেন না।

ইউএনওর কার্যালয়ের নেজারত শাখা সূত্রে জানা গেছে, টিনের ছাউনী দিয়ে দুই কক্ষ বিশিষ্ট সেমিপাকা ঘর ও বাথরুমসহ প্রতিটি ঘরের জন্য বরাদ্দ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। শারীরিক প্রতিবন্ধী পঞ্চাউর্ধ্বো চিরকুমার দুলা মিয়া গৃহহীন থাকায় প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্প থেকে একটি ঘর প্রাপ্ত হন। ঘর নির্মাণের ঠিকাদারির দায়িত্ব দেওয়া হয় তৎকালীন ইউএনওর প্রছন্দের স্থানীয় এক ব্যক্তিকে।

নেজারত শাখার অফিস সহকারী মো. জুলহাস আলী বলেন, ‘ইউএনও মিজানুর রহমান স্যার দায়িত্বকালীন দুলা মিয়াকে ঘরটি বরাদ্দ দেওয়া হয়।’

ঘর মালিক দুলা মিয়ার চাচাতো ভাই ফনি মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ‘আমাদের অর্থে ঘরের ভিটার মাটি কাটেছে। এছাড়াও ঠিকাদারকে ইট, বালু, সিমেন্ট ও কাঠ আনতে গাড়ি ভাড়ার টাকা দিয়েছি। কিন্তু দুঃখ একটাই প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘর তৈরিতে অনিয়মের কারণে প্রায় দুই বছরেও ঘরে উঠতে পারিনি। এখন পর্যন্ত ঘরের ছাউনিতে টিন লাগানো শেষ করেনি। এছাড়া ফ্লোর প্লাস্টার, বারান্দা ও বাথরুমের কাজ সমাপ্ত করেনি।’

দুলা মিয়ার ছোটো ভাই আওরঙ্গজেব গোল্লা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরটি বরাদ্দ দিতে আমাদের কাছে ১০ হাজার টাকা নিয়েছে ঘর বরাদ্দের সমন্বয়কারীরা। দেড় বছরেও ঘরে নির্মাণ কাজ শেষ না করায় ঘরে বসবাস করা যাচ্ছে না।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম