1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
লালমনিরহাটে ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত তিস্তাপাড়ের বানভাসি মানুষেরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০২:৫৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
মানিকছড়িতে ইউপিডিএফ (মূল) এর প্রতিবাদ ধর্মঘট ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে প্রকল্পে সঞ্চয়ের টাকা পেলেন ৮০ জন নারী শ্রমিক ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে নির্মাণের ২ বছরের মাথায় ধসে গেল সাড়ে ৩ কোটি টাকার ব্রিজ ! চৌদ্দগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে মাদকদ্রব্য উদ্ধার সহ ১১ জন গ্রেপ্তার সৈয়দপুরে ৪ হাজার গছের চারা বিতরণ দায়িত্ব পালন না করেও বেতন নিচ্ছেন মৈশকরম প্রাইমারি স্কুলের দপ্তরি শফি মাগুরায় রাতের আঁধারে বীর মুক্তিযোদ্ধার ঘর পোঁড়ানোর অভিযোগ!!! রাজবাড়ী থেকে কুচাঁ যাচ্ছে দেশের বাইরে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জাপানি ভাষা শ্রেণিকক্ষ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন

লালমনিরহাটে ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত তিস্তাপাড়ের বানভাসি মানুষেরা

লাভলু শেখ স্টাফ রিপোর্টার লালমনিরহাট থেকে।।
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩ মে, ২০২২
  • ১০৯ বার

চৈত মাসের বান(বন্যা) আর বৈশাখের হুড়কা(ঝড়) ও শিলা বৃষ্টি ও বাতাসে খাইলো হামার এবারকার (এ বছরের) ঈদ। চৈত মাসের বান ও বৈশাখে হুড়কা বাতাস আর এত বড় বড় শিলাবৃষ্টি জীবনে কোন দিন দেখং নাই বাহে ( দেখি নেই)। ঈদের প্রস্তুতি কেমন জানতে চাইলে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের গোবর্দ্ধন গ্রামের কৃষক মোক্তার আলী(৭০) উক্ত কথা গুলো জানান।
মোক্তার আলী জানান, তিস্তার বাম তীরে বসবাস করা প্রতিটি পরিবার একাধিকবার তিস্তা নদী ভাঙনের শিকার হয়েছে। বসতভিটার সাথে বিলিন হয়েছে ফসলি জমি। শুস্কমৌসুমে তিস্তার বুকে জেগে উঠা ধু-ধু বালু চরে কঠোর পরিশ্রম করে ধান, আলু, তামাক, পিয়াজ, রসুন, ভুট্টা, বাদামসহ বিভিন্ন জাতের ফসল বুনেন চরাঞ্চলের কৃষকরা। শুস্ক মৌসুমের এ ফসল থেকে বন্যাসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য সঞ্চয় করেন তারা। শুধু তাই নয়, মেয়ের বিবাহ ও সকল উৎসব চলে এই ফসলে। মুলত শুস্ক মৌসুমের ৩/৪ মাসের ফসলে চলে তাদের পুরোটা বছর। তাই সর্বস্য বিনিয়োগ করে শুস্ক মৌসুমে ফসল বুনেন তিস্তা চরাঞ্চলের মানুষ।
প্রতি বছর শুস্ক মৌসুমের এসব ফসল বর্ষার আগেই ঘরে তুলেন চাষিরা। কিন্তু এ বছর চৈত্রি মাসে হঠাৎ বৃষ্টি আর উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তার পানি বৃদ্ধি পেয়ে অসময়ে বন্যার সৃষ্ঠি করে। অসময়ের এ বন্যার পানিতে ডুবে নষ্ট হয় কৃষকদের সর্বস্য বিনিয়োগে উৎতি ফসল। এতেই শেষ নয়, বৈশাখ মাসের শুরু থেকে প্রায় প্রতি দিনই বৃষ্টি হচ্ছে তিস্তা পাড়ে। এ মাসেই কয়েক দফায় আঘাত হেনেছে কালবৈশাখী ঝড়। এ ঝড়ে লন্ডভন্ড হয়েছে বন্যার রেখে যাওয়া উচ্ছিষ্ট ফসল। লন্ডভন্ড হয়েছে ঘর বাড়ি। এক দিকে ফসলহানী অন্যদিকে কালবৈশাখীর ছোবলে ভেঙেছে আশ্রয়স্থল। সব মিলে নিদারুন কষ্টে চলছে তিস্তা চরাবাসীর জীবন জিবিকা।

প্রকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলোতে নেই ঈদের কোন আমেজ। তাদের মাঝে শুধু হতাশা আর হাহাকার। ঈদ উৎযাপন নয় বরংচ আসন্ন বন্যা মোকাবেলা নিয়ে দারুন চিন্তিত তিস্তা পাড়ের মানুষ। প্রতি বছর বন্যার জন্য যা সঞ্চিত থাকে। তা এ বছর বন্যাই নষ্ট করেছে।
ঈদ প্রস্তুতি কেমন জানতে চাইলে গোবর্দ্ধন গ্রামের মোক্তার আলী জানান, হামার এবারকার ঈদ খাইছে হুড়কা আর বানে। সব কিছু বিক্রি করি ধান,তামাক, ভুট্টা আর পিয়াজ-রসুন আবাদ করেছি। পাকা পাকা অবস্থায় চৈত মাসের বানে ডুবি সব নষ্ট হইছে। যেটুকু ছিল তা শিলাবৃষ্টি আর হুড়কাতে শেষ। এখন যে খামো তার বুদ্ধি নাই। ফির যে বান আসিবার নাগছে তখন কি খামো। এগুলো চিন্তায় এবার ঈদ হামার এত্তি নাই বাহে। সরকারী ভাবেও কোন খোজ খবর নেয় না কেউ। কোন সহায়তাও হামরা পাই নাই।
তার কথার সাথে যুক্ত হয়ে মফিজ উদ্দিন জানান , উচু জমির আবাদের চেয়ে চরাঞ্চলের জমির ফলন ভাল হয়। দ্বিগুন উৎপাদন হয়। একবারের আবাদ দিয়ে সারা বছর চলি। এই আবাদে বিয়াও (বিয়ে সাদি), ঈদ, রোজা সউগ চলে বাহে (সব চলে)। সেই আবাদ এবার বানের পানিতে ডুবি গেইছে। তখনে হামার ঈদও মাটি(নষ্ট) হইছে বাহে।
শুক্রবার(২৯ এপ্রিল) রাতে লালমনিরহাট জেলায় আঘাত হানে কালবৈশাখী ঝড়। এতে ৫টি উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়। ৪টি উপজেলায় তালিকা অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্থের মাঝে সরকারী ভাবে ত্রাণ বিতরন করেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর। শুধু মাত্র আদিতমারী উপজেলায় জনপ্রতিনিধিরা তালিকা না দেয়ায় ক্ষতিগ্রস্থদের সরকারী ভাবে সহায়তা দিতে পারেনি উপজেলা প্রশাসন।
আদিতমারীর সারপুকুর ইউনিয়নের পাঠানটারী গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে রিক্সাচালক রেয়াজুলের একমাত্র ঘরটি ভেঙে গেলে খোলা আকাশ র নিচেই মানবেতর জীবন যাপন করছেন। একই গ্রামের মনিরের ছেলে হাকিমের ২ ঘর লন্ডভন্ড হয়েছে কালবৈশাখীর ছোবলে। তারাও ৩দিন ধরে খোলা আকাশের নিচে। সহায়তা তো দুরের কথা কেউ দেখতেও আসেনি তাদের।
ক্ষতিগ্রস্থ আব্দুল হাকিম জানান, হামার আরও ঈদ আছে ভাই। থাকার ২টা ঘর। ২টাই ভাঙ্গি গেছে (ভেঙ্গে গেছে) ৩ দিন ধরে এভাবে পড়ে আছি। সাহায্য তো দুরের কথা কেউ দেখতেও আসলো না ভাই।

আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) জি আর সারোয়ার জানান,ক্ষতিগ্রস্থদের ছবিসহ তালিকা করতে চেয়ারম্যানদেরকে বলা হয়েছে। কিন্তু তারা তালিকা না দেয়ায় ঈদের আগে সহায়তা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। জেলার বাকী উপজেলাগুলোতে বিগত দিনের তালিকা ও বরাদ্ধ থেকে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। সব মিলে ভালো নেই তিস্তা পাড়ের মানুষ তারা এবারে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম