1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সহমরণ মঠ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দুর্বার’র নবনির্বাচিত সভাপতি মির্জা মিশকাতের রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত চৌধুরী ৩নং বাঃহাঃ ইউনিয়নবাসী পক্ষ হতে জননেতা বীর বাহাদুর মন্ত্রী কে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। নির্বাচন কমিশনার মোঃ আনিসুর রহমান কে শরীয়তপুরে গণসংবর্ধনা। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নবম শ্রেণির ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু নবীনগরে নারীসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ইনাতগঞ্জে শালিস বৈঠকে পরিকল্পিত হামলা নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ আহত ৫ :: ২ জনকে ওসমানীতে প্রেরণ রাজবাড়ীতেপ্রাইমারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস। যাত্রীদের বাঁচানো সেই এসআই হেলাল উদ্দিন পুরস্কৃত সৈয়দপুরে নদীতে টিকটক করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু জমিজমা নিয়ে পূর্বের জেরে, বৈদ্যুতিক শক দিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ

সহমরণ মঠ

তন্ময় আলমগীর (আনোয়ার হোসাইন), কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১০ মে, ২০২২
  • ১৭ বার

সতীদাহ প্রথা। ধর্মের পথ ধরে জীবন্ত মৃত্যুর অনিবার্য পরিণতি। সেই প্রথা বা রীতি এখন অতীত। তবু কালের সাক্ষী হয়ে রয়ে গেছে তার কিছু চিহ্ন। ইংরেজ শাসনামলে আইন করে বন্ধ করা হলেও জঘন্য সতীদাহের বলি হতে হয়েছিল কিশোরগঞ্জের জ্ঞানদা সুন্দরীকে। তারই স্মৃতিস্বরূপ ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে আজো দাঁড়িয়ে আছে ভারতবর্ষে সতীদাহের বলি জ্ঞানদা সুন্দরীর সহমরণ মঠ। বর্তমানে জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে মঠটি। হেলে একপাশ ভেঙে গেছে। মঠটি সংস্কার করে সংরক্ষণের দাবি এলাকাবাসীর।

জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার গুজাদিয়া রামনগর গ্রামে মৃতপ্রায় নরসুন্দা নদীর তীরে দাঁড়িয়ে আছে জরাজীর্ণ আর লতাপাতায় ঘেরা জ্ঞানদা সুন্দরীর সহমরণ মঠ। প্রায় দু’শ বছরের পুরনো এ মঠের ভাঙা ইটের ভাঁজে ভাঁজে লুকিয়ে আছে ধর্মীয় কুসংস্কারে জ্ঞানদা সুন্দরীর আত্মাহুতির করুণ গাঁথা। সে সময়কার হিন্দু রক্ষণশীল পরিবারের ভয়ংকর কুসংস্কার আর বর্বরতাকেই স্মরণ করিয়ে দেয় এ মঠ।

জানা গেছে, ১৮২৯ সালে লর্ড বেন্টিকের শাসনামলে রাজা রামমোহন রায়ের তীব্র আন্দোলনের মুখে ভারতবর্ষে আইন করে নিষিদ্ধ করা হয় সতীদাহ প্রথা বা সহমরণ। তবে এরপরও বিভিন্ন এলাকায় চলছিল জঘন্য এ বর্বরতা।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, বাংলা ১২৩৪ সালের ২৬ বৈশাখ রামনগর গ্রামের জমিদার বাড়ির এক কর্মচারীর মৃত্যু হলে তার স্ত্রী জ্ঞানদা সুন্দরীকেও স্বামীর সঙ্গে জ্বলন্ত চিতায় আত্মাহুতিতে বাধ্য করা হয়। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হলে শেষ পর্যন্ত বিষয়টি গড়ায় আদালত পর্যন্ত। জ্ঞানদার ছেলে গয়ারাম চক্রবর্তীকে ৬ মাসের জেল দেন আদালত। পরে গয়ারাম অনুতপ্ত হয়ে মায়ের স্মৃতি রক্ষায় চিতাস্থলে নির্মাণ করেন একটি মঠ।

ঐতিহাসিক এ মঠটি হেলে পড়েছে। ভেঙে গেছে মাঝখানের একটি অংশ। লতাপাতা আঁকড়ে ধরেছে সু-উচ্চ মঠের চারপাশ। যেকোনো সময় এটি ভেঙে পড়তে পারে। সতির মঠ হিসেবে পরিচিত জ্ঞানদা সুন্দরী সহমরণ মঠের ৫ শতাংশ জমি এরইমধ্যে বেদখল হয়ে গেছে বলেও জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

করিমগঞ্জের লোক সংগ্রাহক নজির আহমেদ বলেন, ‘এক সময় আমাদের দেশের গ্রামে-গঞ্জে এমন কুসংস্কার ছিল। স্বামীর মৃত্যুর পর ঢাক-ঢোল পিটিয়ে স্ত্রীকে স্বামীর সঙ্গে চিতায় পুড়িয়ে মারা হতো। এটি ছিল খুবই জঘন্য রীতি। আইন করে সতীদাহ বন্ধ করার পরও অনেক স্থানে গোপনে এমন অপকর্ম চলতো। জ্ঞানদা তাদেরই একজন। অনিচ্ছা সত্তেও যাকে হাত-পা বেঁধে স্বামীর চিতায় পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এ মঠটি অবশ্যই সংস্কার করা প্রয়োজন।

সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় মঠটি সংস্কার ও সংরক্ষণে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলে জানান করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নাসিরুল ইসলাম আওলাদ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম