1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
সৈয়দপুরে বিয়ের ৩ মাসেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ঘরছাড়া পৌর কাউন্সিলর শ্বশুর ও ননদদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৩:৪৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দুর্বার’র নবনির্বাচিত সভাপতি মির্জা মিশকাতের রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত চৌধুরী ৩নং বাঃহাঃ ইউনিয়নবাসী পক্ষ হতে জননেতা বীর বাহাদুর মন্ত্রী কে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। নির্বাচন কমিশনার মোঃ আনিসুর রহমান কে শরীয়তপুরে গণসংবর্ধনা। নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নবম শ্রেণির ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু নবীনগরে নারীসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ইনাতগঞ্জে শালিস বৈঠকে পরিকল্পিত হামলা নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতিসহ আহত ৫ :: ২ জনকে ওসমানীতে প্রেরণ রাজবাড়ীতেপ্রাইমারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস। যাত্রীদের বাঁচানো সেই এসআই হেলাল উদ্দিন পুরস্কৃত সৈয়দপুরে নদীতে টিকটক করতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু জমিজমা নিয়ে পূর্বের জেরে, বৈদ্যুতিক শক দিয়ে যুবককে হত্যার অভিযোগ

সৈয়দপুরে বিয়ের ৩ মাসেই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী ঘরছাড়া পৌর কাউন্সিলর শ্বশুর ও ননদদের বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ

মোঃজাকির হোসেন , নীলফামারী প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৯ মে, ২০২২
  • ১৬১ বার

সৈয়দপুরে পৌর কাউন্সিলর শ্বশুর পরিবারের নির্যাতনের শিকার হয়ে ঘরছাড়া মাস্টার্স পড়ুয়া এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর শ্বাশুড়ী ও ননদদের অমানবিক মানসিক অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তিনি।

বিয়ের দিন থেকেই অবিরাম অপমানমূলক কটু কথা আর যৌতুকের দাবীর খোটা এবং মোবাইল কেড়ে নেয়া ও মায়ের বাড়ি যাওয়া, যোগাযোগ বন্ধ করার পরও শুধু স্বামীর ভালোবাসার কারণে মুখ বুঝে সব সহ্য করে আসলেও আজ অসহ্য শারীরিক নির্যাতনের ফলে স্বামীর ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে সে।

এমনই ঘটনা ঘটেছে সোমবার (৯ মে) সকালে শহরের বাঁশবাড়ী সাদরা লেন এলাকায়।নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ মৌসুমী জানায়, দীর্ঘ ৭ বছর প্রেম করে ৩ মাস আগে পারিবারিক ভাবেই বিয়ে হয়েছে তার। প্রেমিক স্বামী শাহাজাদা পৌরসভার ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সৈয়দ মঞ্জুর হোসেনের বড় ছেলে।

আর্থ-সামাজিক দিক থেকে শ্বশুর পরিবারের সাথে তাদের ব্যাপক ব্যবধান সত্বেও শুধুমাত্র মেয়ের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে শত সমস্যার মধ্যেও প্রচুর অর্থ খরচ করে বিয়ের ব্যবস্থা করেছেন সামান্য পান দোকানদার বাবা।

এর মধ্যে ছেলের পরিবারের দাবী অনুযায়ী বিভিন্ন আসবাবপত্র দেয়া এবং বিয়ের দিন ঠিক করা, হলুদ অনুষ্ঠান ও ৫ শতাধিক বরযাত্রীর মেহমানদারি করা হয়েছে। অথচ পূর্বেই আলোচনা হয়েছিল যে, যারা যা দিবে তাতেই সন্তুষ্ট থাকবে উভয় পরিবার।

কিন্তু তবুও তারা ২শ’ জনের স্থলে ৫শ’ জন এবং আলোচনার বাইরেও বিভিন্ন জিনিস দাবী করে। এতে ওয়াশিং মেশিন, টিভি ফ্রিজ, ওভেনসহ আরও বাড়তি সামগ্রী দিতে হয়েছে। তবুও শ্বশুর বাড়ির লোকজন সন্তুষ্ট নয়।

এখন দাবী করছেন একটি মোটর সাইকেল। যা কখনই আলোচনা করা হয়নি। বিয়ের পরে হঠাৎ করে এমনভাবে অতিরিক্ত যৌতুক চাওয়ায় তা পূরণ করা সম্ভব হয়নি মৌসুমীর পরিবারের পক্ষে। এতেই শুরু হয়েছে গালিগালাজসহ নোংরা ভাষায় নানা কটাক্ষ করা ও অসৌজন্যমূলক আচরণের মানসিক নির্যাতন।

মৌসুমী আরও বলেন, বিয়ের দিনই শ্বশুর আমার মোবাইল ফোন কেড়ে নিয়েছে। সেদিন থেকেই আমাকে বাড়িতে একপ্রকার গৃহবন্দি করে রেখেছে। নিয়মানুযায়ী দূরের কথা গত ৩ মাসে একবারও আমাকে মায়ের বাড়ি যেতে দেয়নি।

এমনকি স্বামীর সাথে কোথাও ঘুরতে যাওয়া, আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে যাওয়া অথবা কোন বিয়ের বা অন্যকোন উৎসবে অনুষ্ঠানেও যেতে দেয়নি। অথচ তারা (শ্বাশুড়ী, ননদ) সচরাচর যাচ্ছে। গত ঈদুল ফিতরেও মা বাবার সাথে দেখা করতে দেয়নি।

তাদের এমন আচরণেই আমি বুঝতে পেরেছি তারা আমাকে পছন্দ করেনা। শুধুমাত্র ছেলের কারণে সম্পর্ক মেনে নিয়ে সামাজিকতা রক্ষার্থে পারিবারিকভাবে আলোচনা করে আনুষ্ঠানিক বিয়ে দিয়েছে। আর এখন কথায় কথায় ছোটলোক, ফকিন্নি বলে অপমান অপদস্ত করে চলেছে। মোটর সাইকেল পেলেও তারা একই আচরণ করবে।

তাই আমার বাবা মা কোনদিনই মোটর সাইকেল দিবেনা বা দিলেও আমি দিতে দিবনা বলে সাফ জানিয়ে দেয়ায় এখন শুরু হয়েছে শারীরিক নির্যাতন। আজ (সোমবার) সকালে আমার স্বামীকে এনিয়ে অভিযোগ দিলে চরম বিশৃঙ্খলা শুরু করে পুরো পরিবার।

এর প্রেক্ষিতে শাহাজাদা আমাকে বাঁশবাড়ী সাদ্দাম মোড় এলাকায় তার ফুফুর বাসায় নিয়ে যায়। অনিচ্ছা সত্বেও কিছুটা স্বস্তি পাওয়ার আশায় সেখানে যাই। কিছুক্ষণ পর সেখানে উপস্থিত হয় আমার ৩ ননদ। তারা এসেই আমার উপর চড়াও হয়। বেধড়ক মারপিট করে।
এসময় আমার শ্বশুরও তাদের সাথে যোগ দেয়। এতে চরম বিপর্যস্ত হয়ে পড়ি। তাই তাদের হাত থেকে রেহাই পেতে অনেকটা বেপরোয়া হয়েই ছিটকে বেড়িয়ে পড়ি এবং উদ্ভ্রান্তের মত বাস টার্মিনালে চলে যাই। সেখান থেকে কে বা কারা আমাকে এখানে (বাবার বাসায়) এনেছে।

এদিকে এরই মাঝে প্রচার করা হয়েছে আমি কোন ছেলের সাথে পালিয়েছি। কতটা নোংরা মন মানসিকতা তাদের। আমি দিনাজপুর সরকারী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে অর্থনীতিতে মাস্টার্সে অধ্যায়নরত। আমাকে তারা ফাইনালের ফরম ফিলাপও করতে দেয়নি।

এক প্রশ্নের জবাবে মৌসুমী বলেন, নির্যাতন ও অপমানকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেইনি। কারণ, এটা আমাদের পারিবারিক বিষয়। আমি আর ওই পরিবারে যাবোনা। তবে তারা যদি বাড়াবাড়ি করে তাহলে হয়তো শেষ পর্যন্ত আইনের আশ্রয় নিতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যেহেতু শাহাজাদা আমাকে ভালোবাসে এবং সে এখন পর্যন্ত সেরকম খারাপ আচরণ করেনি। তাই সে যদি অন্যত্র আমাকে নিয়ে সংসার করে তাহলে তার কাছে ফিরে যাব। নয়তো ডিভোর্স দিয়ে আমার শিক্ষাজীবন শেষ করে নিজের পায়ে দাঁড়াবো।

মৌসুমীর পরিবারের লোকজন বলেন, একজন কাউন্সিলরের বাড়ির সদস্যরা এতটা জঘন্য হয় কি করে? তারা আমাদের কে মানুষই মনে করেনা। নানাভাবে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে। আমাদের পদে পদে অপমান করতে সচেষ্ট।

ছেলেকেসহ আমাদের মেয়েকেও একমূহুর্তের জন্য বাপের বাড়িতে আসতে দেয়নি। যৌতুকের জন্য মৌসুমীকে অকথ্য মানসিক অত্যাচার করে চলেছে। প্রতিক্ষণ গালিগালাজ আর কাজের তাগাদা দিয়ে তটস্থ রেখেছে। এমনকি বিশ্রাম নেয়ার সময়ও নানা অজুহাতে ঘরে ঢুকে বিব্রত করেছে। আর আজ শারীরিকভাবেও মারপিট করে জখম করেছে। এর বিচার চাই।

এদিকে ঘটনাটি শহরজুড়ে চাউর হয়ে পড়েছে। এর প্রেক্ষিতে মৌসুমীর শ্বশুর পৌর কাউন্সিলর সৈয়দ মঞ্জুর হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইলে বলেন, এই ব্যাপারে আমি কিছুই বলবোনা। আমার ছেলের ব্যাপার সেই সব বলবে। আমার সাথে এর কোন সম্পর্ক নাই।

আপনার স্ত্রী ও মেয়েরা নিয়মিত মানসিক নির্যাতন করলেও আপনি কোন প্রতিবাদ করেননি এবং আজ আপনিও মারধর করেছেন এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে আপনার মন্তব্য কি জানতে চাইলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ফোন রেখে দেন।

একইভাবে বিষয়টি এড়িয়ে যান স্বামী শাহাজাদা গার্মেন্টস’র মালিক সৈয়দ শাহাজাদা। তাকে বাড়িতে না পেয়ে মোবাইলে কল করে জানতে চাইলে বিষয়টি পারিবারিক বলে ফোন কেটে দেয়। পরে বার বার যোগাযোগ করা হলেও সে আর কল রিসিভ করেনি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম