1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাঙ্গাবালীতে উম্মুক্ত ঘোষণা হলো বন বিভাগের বিভিন্ন খাল ও ইলিশের চর - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
সৈয়দপুরে ১ সন্তানের জনকের লাশ উদ্ধার স্বদেশের আবৃত্তি সংগঠনের মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব আবৃত্তি অনুষ্ঠান চন্দনাইশে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীতে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি চন্দনাইশে ৬ হাজার ৮’শ পিচ ইয়াবাসহ আটক-১ কুষ্টিয়া জেলা যুবমৈত্রীর কমিটি: সভাপতি মনিরুজ্জামান মজনু, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা মীরসরাইয়ের ওচমানপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে শোকসভা বরেণ্য সাংবাদিক সরকার আদম আলী এর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। সৈয়দপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা সাংবাদিক আক্তার হোসেনের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত! হাটহাজারী উপজেলা ও পৌরসভা যুবদলের কমিটি ঘোষণায় আনন্দ মিছিল

রাঙ্গাবালীতে উম্মুক্ত ঘোষণা হলো বন বিভাগের বিভিন্ন খাল ও ইলিশের চর

রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২
  • ২৬ বার

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বনবিভাগের বিভিন্ন সরকারি খাল ও সকল প্রকার ইলিশ মাছ ধরার চর সমুহ কে সাধানর জেলেদের জন্য উম্মুক্ত ঘোষনা করেছে কতৃপক্ষ। এতে দ্বীর্ঘ দিনের দখল দারী মৎস সিন্ডিকেট থেকে মুক্তি পাচ্ছে সাধারন খেটে খাওয়া জেলেরা।

খাতা কলমে জেলেদের নাম মাত্র কিন্ত ইলিশের চর পরিচালনা করে স্থানীয় প্রভাবশালী সিন্ডেকেট মহলের একটি চক্র জেলেদের নামে চর রাখেন তারা। চরে যাওয়ার সৌভাগ্য হয়নি খাতায় নাম থাকা অনেক জেলের। পেটের দায়ে কিছু জেলের মাছ ধরতে হয় তাও সেই প্রভাবশালী সিন্ডেকেট চক্রের দলের সাথে তাদের সাথে মাছ না ধরলে চরের আশে পাশে যাওয়ার কোন সুযোগ হয় না। এ কারনে অনেকেই জেলে কাজ বাদ দিয়ে ঢাকা চলে গিয়াছে। দ্বীর্ঘ দিন এ উপজেলার বিভিন্ন সরকারি খাল ও চরের নাম মাত্র রাজস্বের নামে ভোগ দখল করতো স্থানীয় প্রভাবশালীসহ কিছু মৎস ব্যবসায়ীরা।
জানা যায়, সরকার কে নাম মাত্র রাজস্ব দিয়ে এই চর গুলো দখলে নিয়ে,সাধারন জেলেদের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতো সিন্ডিকেট প্রভাবশালী মহল। এতেই ক্ষান্ত নয় আড়তদার ওই চরের ও খালের মাছ কম মূল্যে তাদের কাছে বিক্র করতে বাধ্য করতো। সর্বশান্ত হয়ে দেনার ভার সহিতে না পেরে অনেকেই দেনার বোঝা মাথায় নিয়ে চলে গেছেন ঢাকা।

জীবন বাজি রেখে সাধারন জেলেরা সাগর ও নদ-নদী থেকে ইলিশ মাছ ধরে আনলেও বাজারের নিয়ন্ত্রন করতো অসাধু বঙ্গোপসাগরের চরের মালিকেরা। জেলেদের কষ্টের ফসলের নিয়ন্ত্রন অদৃশ্য মহাজনদের হতে ছিল। এবার জেলা প্রশাসকের এক বিজ্ঞপ্তিতে দেখে বলা যায় দালাল চক্রের হাতে সরকারি খাল ও বঙ্গোপসাগরের চর না থাকলে ন্যায্য মূল্যে ইলিশ মাছ বিক্র করতে পারবে সাধারন জেলেরা।
নাম প্রকাশ নাকরা কয়েক জন জেলেরা জানান, প্রায় ১২ বছর ধরে বঙ্গোপসারে জেগেউঠা তালেবের নামের একটি চরে জেলেকাজ করতেন তারা, কুচক্র মহলের কারনে আজ প্রায় তিন বছর ধরে সেই তালেবের চরে মাছ ধরতে পারছিনা আমরা, বিগত দিন ধরে তালেবের চরে আমরা কয়েক জন জেলে মাছ ধরতাম কাউকে কোন টাকা পয়সা দেয়া লাগতোনা। এখন কিছু অসাধু প্রভাবশীমহল সরকারি খাল ও ইলিশের চর তাদের হাতের কবজায় রেখে জেলেদের থেকে কয়েকগুন টাকায় বিক্র করতো এবং ওই চরের ইলিশ মাছ তাদের মাধ্যমে নিজস্ব গদিতে কম দামে বিক্র করাতো এবং নিজস্ব কোন গদি না থাকলে তাদের একটি অংশ লাভ রেখে অন্যের গদিতে মাছ বিক্র করাতে বাধ্য করা হতো।
তারা আরো বলেন, একটি সাধারন জেলে কিসের অভাবে নিজের এলাকা ছেড়ে ঢাকার শহর যায় যেমন ইলিশ মাছ ধরার আগে সাগরে নামতে হলে জাল, নৌকা তৈরি করাসহ আরো নানাখাতে আমাদের খরচ করতে হয়। দরিদ্র জেলেরা চর রাখার খরচ নৌকা ট্রলার সহ অন্যান্য নগত টাকা জোগার করেতে নাপেরে ওইসব প্রভাবশালী সিন্ডেকেট মহলের কঠিন শর্তের মধ্যেও জেলেরা টাকা নেন। ফলে জেলেরা ওই চরের মালিকদের কাছে জিম্মি হয়ে থাকতো। এসব কারনে জেলেরা ন্যায্য মূল্য না পেয়ে বছরে অনেক টাকা দেনা হয়ে ঢাকার শহর চলে যায়।
সরকারি খাল বঙ্গোপসাগরের চর সমূহকে উম্মুক্ত ঘোষনা করায় সাধারন জেলেদের মাঝে আনন্দ বিরাজ করছে। জেলেরা আশা করছে আর সিন্ডিকেটের তোফের মুখে পরতে হবেনা। এবং মাছ শিকার করে নিজেদের ইচ্ছে মতো নেয্য মুল্যে বিক্র করতে পারবে বলে মনে করছেনে সাধারন জেলেরা।

স্থানীয় জেলেরা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে আমরা চিরকৃতজ্ঞ, তার উছিলায় আজ আমরা সাধারন জেলেরা আমাদের অধিকার ফিরেয়ে পেতে যাচ্ছি। আমরা বর্ষা মৌসুম এলে সাগরে ইলিশ মাছ ধরে আমাদের সংসার চালাইতে অনেক কষ্ট হতো। সাগরে যে পরিমান মাছ ধরি তার চেয়ে আমাদের খরচ বেশি হতো এর কারন আমরা যারা সাধারন জেলে আছি আমারে দেখিয়ে কিছু প্রভাবশালী মহল স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ীরা চর এনে আমাদের কাছে তিন থেকে চারগুন বেশি দামে বিক্র করতো যেমন একটি চর বাবদ খরচ দেখাইতো (৪-৫) লক্ষ টাকা তাই মহাজনদের দেনা শেষ করতে পারতাম না আমরা। এলাকায় মাইকে শুনতাছি সরকারি খাল ও বঙ্গোপসাগরের ইলিশের চর সরকার উম্মুক্ত করে দিয়েছে এবার বুঝি আমাদের শাফির (অনেক বছরের পুরোনো) দেনা আল্লাহ চাইলে দিতে পারবো আর টাকা দিয়ে চর কিনতে হবেনা।
মাননীয় প্রধান মন্ত্র তিনি আমাদের সাধানর জেলেদের নিয়েও ভাবেন প্রধান মন্ত্রী আমাদের জন্য সরকারি খাল ও চরগুলো সাধারন জেলেদের মাছ ধরার জন্য উম্মুক্ত করে দিয়েছেন। এছাড়াও তিনি জেলেদের দুঃখ দুরদশা লাগবের জন্য মাসে ৪০ কেজি করে জেলে চালের ব্যাবস্থা করে দিয়েছেন। এবং সাধারন জেলেদের জন্য সরকারি ট্রলার দেয়, জীবন রক্ষার জন্য অনেক মালামাল দিতাছে তাই রাঙ্গাবালীর জেলেদের পক্ষ থেকে আমারা সবাই মাননীয় প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কে আবারো ধন্যবাদ জানাই। মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর কাছে আমাদের জেলেদের একটাই দাবি আপনি আমাদের সাধারন জেলেদের মুখের দিকে তাকিয়ে সরকারি খাল ও বঙ্গোপসাগরের চর জেলেদের জন্য উম্মুক্ত করে দিয়েছেন সেটা যেন বাস্তবায়ন হয়।

এবিষয়ে জানতে চাইলে পটুয়াখালী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা বন-বিভাগের আওতাধীন বনের খাল ও ইলিশের চর কাউকে দেইনি এবং কোন ব্যাক্তি কে দেয়ার কোন সুযোগ নেই। এই খাল ও ইলিশের চর সাধারন জেলেদের জন্য উম্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে।
জেলা প্রশাসকের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এতদ্বারা সর্ব সাধারণের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, পটুয়াখালী জেলার আওতাধীন রাঙ্গাবালী উপজেলায় সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও জাতীয় মাছ ইলিশসহ অন্যান্য মৎস্য সম্পদের উন্নয়নের লক্ষে সংরক্ষিত বনাঞ্চল ও তার পার্শ্ববর্তী খাল, চরসমূহ কোন ব্যাক্তি বিশেষ কে ইজারা/ বন বিভাগ কর্তৃক রাজস্ব আদায় পূর্বক মাছ ধরার অনুমতি দেওয়া সম্পূর্ন নিষিদ্ধ। এই বিষয়ে কোন দালাল চক্রের সাথে অবৈধ আর্থিক লেনদেন থেকে বিরত থাকার জন্য অনুরোধ করা হলো। বনাঞ্চলের মধ্যে অবস্থিত খাল ও চরসমূহে বাঁধ দিয়ে কিংবা বিষ প্রয়োগ করে মাছ শিকার করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম