1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাঙ্গাবালীতে বর্ষা আসলেই উজাড় হয় বন - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
সৈয়দপুরে ১ সন্তানের জনকের লাশ উদ্ধার স্বদেশের আবৃত্তি সংগঠনের মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব আবৃত্তি অনুষ্ঠান চন্দনাইশে শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীতে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি চন্দনাইশে ৬ হাজার ৮’শ পিচ ইয়াবাসহ আটক-১ কুষ্টিয়া জেলা যুবমৈত্রীর কমিটি: সভাপতি মনিরুজ্জামান মজনু, সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা মীরসরাইয়ের ওচমানপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উদ্যোগে শোকসভা বরেণ্য সাংবাদিক সরকার আদম আলী এর স্মরণে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। সৈয়দপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের বর্ণাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা সাংবাদিক আক্তার হোসেনের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত! হাটহাজারী উপজেলা ও পৌরসভা যুবদলের কমিটি ঘোষণায় আনন্দ মিছিল

রাঙ্গাবালীতে বর্ষা আসলেই উজাড় হয় বন

রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১ আগস্ট, ২০২২
  • ১৩ বার

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বিভিন্ন চরের(চরমোন্তাজ,সোনার চর, কানকুনি পাড়া, আশাবাড়িয়া ও চর তুফানিয়ার) বন বিভাগের বাগান থেকে প্রতি বছর র্বষা শুরু হলেই শুরু হয় ম্যানগ্রোভ বন উজাড়ের নজির বিহীন ঘটনা। এ ধরনের ঘটনা যেন আর না ঘটে তাই কতৃপক্ষের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল। তারা মনে করেন,বন উজারের কারনেই দেশে অনা বৃষ্টি খারা বন্যা বেড়ে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে চর অঞ্চল এক সময় মরূভূমিতে পরিনত হবে। এখনি এই বনদস্যুদের লাগাম টেনে ধরতে হবে। এই বন শুধু আমাদের না এটা জাতীয় সম্পদ।
সংরক্ষিত বন রক্ষার দায়িত্বে বন বিভাগ, আর এই বন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের যোগসাজে উজাড় হয়ে যাচ্ছে ম্যানগ্রোভ বন। অভিযোগ উঠেছে, বন বিভাগের কর্মকর্তা- কর্মচারীদের সংঙ্গে হাত মিলিয়ে চক্রটি বনের গাছ কেটে নিয়ে যায়। যে কারনে চক্রটির বিরুদ্ধে নেয়া হচ্ছে না কোন ধরনের আইনি ব্যবস্থা।

জানা গেছে, সত্তরের প্রলয়ংকরী ঘূণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের পর উপকূল অঞ্চলে বানায়নের পরিকল্পনা গ্রহন করে সরকার। এ লক্ষে ওই সময় ম্যানগ্রোভ জাতীয় বৃক্ষরোপণের কাজ সীমিত আকারে করলেও ১৯৭৭ সালের দিকে উপকূল অঞ্চলে বনভূমির পরিমাণ বাড়ায় সরকার। বন্যার কবল থেকে উপকূল অঞ্চলের সাধারণ মানুষকে রক্ষা করার জন্য এ উদ্যোগ নেয় সরকার।
সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, সংরক্ষিতবনের ভেতরের বিভিন্ন জায়গায় কেওড়া, ছইলা, আকাশ মনি,ঝাউগাছের কাটা গোড়া পরে আছে। চর তুফানিয়া যেতেই চোখে পরে ঝাউ বাগান বিতরে ডুকতেই চোখ কপালে উঠার মত অবস্থা। কিছু গাছ দাড়িয়ে থাকলেও শত শত গাছের গোড়া পরে আছে। দেখলে মনে হয় এই মাত্র মনে হয় কেউ কেটে নিয়ে গেছে। কোথাও কোথাও কাটা গাছের অংশ পরে আছে দেখার বুঝি কেউ নেই। গাছ কেটে নেওয়ার এমন দৃশ্য দেখলে যে কেউ হতভাগ হয়ে যাবে। রক্ষকই বুঝি ভক্ষক, কতৃপক্ষের উদাসীনতা কেই দায়ী করছেন সচেতন মহল।

স্থানীয়রা জানায়, এমনিতেই চর তুফানিয়া গত কয়েক বছরে জলোচ্ছ¡াস-ঘূর্ণিঝড়ে সংরক্ষিত বনের ছোট-বড় গাছের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অন্তত ৩০-৪০ হাজার গাছ জোয়ারের তোড়ে উপড়ে পরেছে। উপড়ে পড়া গাছ ও প্রাকৃতিকভাবে মরে যাওয়া গাছের কথা বলে বিভিন্ন সময়ে এই চর তুফানিয়া থেকে শত শত জীবন্ত গাছ কেটে নেওয়া হয়েছে। গত বছরও এমন দৃশ্য দেখা গেছে। কিন্তু তাদের সাথে কি বিট কর্মকর্তা কর্মচারী জড়িত আছে কিনা এটাই এখন প্রশ্ন।
নাম প্রকাশ না করা এক ব্যাক্তি বলেন, ফরেস্ট কর্মকর্তা কর্মচারীদের টাকা দিলে মেলে গাছ কাটার ও চরে মাছ ধরার অনুমতি। প্রতি বছর বর্ষা শুরু হলেই দেখি যারা বঙ্গোপসাগরের চরে গোচ খুটা দিয়ে ইলিশ শিকার করে তারা হাজার হাজার কেওড়া এবং ঝাউগাছ কেটে নিয়ে সাগরে জাল পাতে কিন্তু ফরেস্ট কর্মকর্তা কর্মচারীরা কিছুই বলেনা। আমরা যতটুকু যানি বিট কর্মকর্তাদের সাথে টাকার লেনদেন করে বাগানের গাছ কাটা হয়। ফরেস্ট কর্মকর্তাদের টাকা না দিলে মাছ ধরার অনুমতি ও মেলেনা।

এবিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা জাহাংঙ্গীর হোসেন বলেন, আমাদের জনবল খুবই কম তার পরেও আমরা চেষ্টা করি বন রক্ষা করার জন্য। আমার কাছে বিভিন্ন এলাকা থেকে লোক আসছে ”বিএলসি”র জন্য আমি তাদের কে না বলে দিয়েছি। আমাদের সকল বিট কর্মকর্তাদের বলা আছে কেউ যেন বনের গাছ কাটতে না পারে। যদি কোন চক্র বন বিভাগের গাছ কাটে তাহলে আমরা তাদের বিরুদ্ধ আইনগত ব্যবস্থা নিবো। এবং এর সাথে আমাদের কোন বিট কর্মকর্তা কর্মচারী যদি জরিত থাকে আমরা তার প্রমান পেলে তার বিরুদ্ধে ও আইনগত ব্যবস্থা নিবো।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে পটুয়াখালীর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মানুন বলেন, এ বছর আমরা আমাদের জনবল বাড়াবো। কোন চক্র যেন গাছ কাটতে না পরে। আমরা বনের রক্ষক আমরা সাধ্য মতো চেষ্টা করতেছি। আমিতো আপনার এই খান থেকে অনেক দুরে তার পরেও আমার কোন লোক ওই চক্রের সাথে জরিত থাকে আর প্রমান পেলে বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবো। এবছর বন বিভাগ রাজস্ব আদায়ে জন্য কোন বিএলসি দিবেনা। কোন বিট কর্মকর্তার বিএলসি দেয়ার ক্ষমতা নাই। বন বিভাগের বিএলসি দেয়ার ক্ষমতা রাখে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা। বিএলসি তাও জেলা প্রশাসকের অনুমদন নিয়ে দিতে হয়। এবছর জেলা প্রশাসক মহোদয় সহ আমরা বিএলসি বন্ধো করে দিয়েছি। আমরা চাইনা বিএলসি’র নামে কোন ধরনের কিছু হোক। যদি আমাদের কোন কর্মকর্তা কর্মচারী সেই চক্রের সাথে জরিত থাকে তাহলে আমরা তার বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম