1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
মধ্যনগরে রাস্তার বেহাল দশা,ভোগান্তিতে নয় গ্রামের মানুষ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৩:৩৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
৫২ তে পা দিলেন সাংবাদিক জ,ই, বুলবুল সোনারগাঁয়ের সেই জি কে শামীমসহ তার সাত দেহরক্ষীর রায় ঘোষণা আজ মাগুরায় নানা কর্মসূচি মধ্য দিয়ে ‘শেখ রাসেল দিবস’ উপলক্ষে প্রতিযোগিতা ও মীনা দিবস পালিত চন্দ্রগঞ্জে সুধীজনদের সঙ্গে মতবিনিময় করলেন লক্ষ্মীপুর পুলিশ সুপার রাউজানে কিডনি রোগে আক্রান্ত রিফাতের জীবন বাঁচতে সাহায্যের আবেদন সিরাজদিখানে রাস্তার নির্মান কাজের অগ্রগতি হয়ায় দোয়া ট্রেনে উঠতে গিয়ে বাবার সামনে প্রাণ গেলো বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের হালদা-সর্তার খালের চরে উৎপাদ হচ্ছে কোটি টাকার আঁখ,কলা,পেঁপে সবাই কে কাদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন কেপটাউন কমিউনিটির প্রিয় মুখ সোহেল ভাই। গাজীপুরে নানাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে নাতী আটক

মধ্যনগরে রাস্তার বেহাল দশা,ভোগান্তিতে নয় গ্রামের মানুষ

মহি উদ্দিন আরিফ ধর্মপাশা ও মধ্যনগর প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১২ বার

সুনামগঞ্জের নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলার বংশীকুন্ডা দক্ষিণ ইউনিয়নের চান্দালীপাড়া গুদারাঘাট হতে গড়াকাটা বাজার হয়ে মহিষখোলা ও দাতীয়াপাড়া যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই কাচা রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে।সুনামগঞ্জের এ অঞ্চলটি ভাটি এলাকা ও হাওর অঞ্চল হওয়ায় হালকা বন্যায় তলিয়ে যায় এ অঞ্চলের অধিকাংশ রাস্তা ঘাট।স্থানীয় প্রতিনিধিদের প্রচেষ্টায় গত দুই বছর আগে চান্দালীপাড়া হতে মহিষখোলা রাস্তা পর্যন্ত পাকা হওয়ার কথা থাকলেও দুলা শিয়া মোড় পর্যন্ত পাকা করে অদৃশ্য কারনে থেমে গেছে বাকি কাজ টুকু।এ বিষয় নিয়ে এলাকার সাধারন জনগনের মনে ক্ষুভ বিরাজমান।বংশীকুন্ডা (দঃ) ইউনিয়নের এ অঞ্চল টি প্রত্যন্ত্য অঞ্চল হওয়ায় এ এলাকার মানুষের বিভিন্ন কাজে কর্মে এমনকি বাজার করতে যেতে হয় পাশ্ববর্তী উপজেলা কলমাকান্দা ও বিশরপাশায়।এমনকি এ অঞ্চলের অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার জন্য যেতে হয় বিশরপাশা।আর যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে এই জন দূর্ভগ রাস্তাটি।চান্দালীপাড়া গুদারাঘাট হতে দুলাশীয়া মোড় পর্যন্ত পাকা হলেও কিছু কিছু অংশের মাটি সরে গিয়ে বিপদ জনক অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় চান্দালীপাড়া গুদারাঘাট হতে ১০০মিটার দূড়ে ব্রীজের কাছে পাকা রাস্তার নিচ থেকে মাটি সরে গিয়ে ঝুলন্ত সেতুতে পরিণত হয়েছে।দুই পাশের স্ল্যাপ সরে ও ভেংগে গিয়ে বিপদ জনক অবস্থায় রয়েছে।যে কোন সময় ভেংগে গিয়ে দূর্ঘটনার স্বীকার হতে পারে ।শুকনো মৌসুমে অনেক কষ্টে চলাচল করা গেলেও বর্ষা মৌসুমে একটু বৃষ্টি হলেই কাদায় হয়ে পরে চলাচলের অনুপযোগী। এ যেন দেখার কেউ নেই। জানা যায়, বংশীকুন্ডা(দঃ)ইউনিয়নের অন্যতম জনবসতিপূর্ণ গ্রাম এটি। চান্দালীপাড়া,চান পুর,দুলাশীয়া,পানারকুরি, গড়াকাটা,হরিনাকান্দী,দোপাঘাটপুর,কালাগর,তেলি গাও গ্রামের হাজার হাজার মানুষ প্রতিনিয়ত এ রাস্তাটি ব্যাবহার করে আসছে। শুকনো ও বর্ষা মৌসুমে তাদের যাতায়াতের জন্য একমাত্র ভরসা এই রাস্তাটি।

চান্দালীপাড়া গুদারা ঘাট থেকে মহিষখোলা ও দাতীয়াপাড়া নতুন বাজারের দূরত্ব প্রায় পাঁচ-ছয় কিলোমিটার। এই কাচা রাস্তাটির প্রধান যানবাহন হচ্ছে ভ্যান, ভ্যাটারিচালিত অটো রিক্সা ও ঘোড়ার গাড়ী। এই রাস্তার বর্তমানে বেহাল অবস্থার কারণে কোনো যানবাহন চলাচল করতে পারছে না। ফলে হাজারো মানুষের ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হচ্ছে। জরুরী কোনো রোগীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য উপজেলা শহরে নিতে চাইলে পাঁচ-ছয় কিলোমিটার রাস্তা হেটে আসতে হবে যা সেই রোগীর জন্য অসম্ভব।

এমনকি যথাসময়ে রোগীকে হাসপাতালে নিতে না পারলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। এছাড়া মাঝে মধ্যেই রাস্তায় নষ্ট হয়ে পড়ে থাকছে যানবাহন। এ কারণে সময় মতো গন্তব্যে পৌঁছাতে পারছে না যানবাহন চালক ও যাত্রীরা। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে তাদের। কৃষি নির্ভর অঞ্চলে কৃষি ফসলাদি পরিবহনের একমাত্র প্রধান সড়ক এটি হওয়ায় কৃষকদের ভোগান্তি যেন শ্বাসরুদ্ধকর। এছড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের প্রধান এই সড়কে শিক্ষার্থীদের চরম
ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। রাস্তার অনেক অংশে হাটু পর্যন্ত কাঁদায় ডুবে যেতে হচ্ছে।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে একজন অটোরিকশা চালক বলেন, এই রাস্তায় চলাচল করতে আমাদের খুব ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।কিস্তিতে অটো কিনলেও আমরা ঠীকমত চালাতে পারছি না।এদিকে অটো বসিয়ে রেখে প্রতি মাসেই শুনতে হচ্ছ সুদের টাকা।দুলাশীয়া মোড় হতে যদি গড়াকাটা বাজার পর্যন্ত পাকা হতো এতে আমাদের ভোগান্তি লাগব হত। স্থানীয় একজন কৃষক বলেন, জনপ্রতিনিধিরা আশ্বাস দিলেও দীর্ঘ দিন ধরে এ
রাস্তাটি কাঁচাই রয়ে গেছে। বর্তমানে কাদা রাস্তার কারণে ধানসহ অন্যান্য ফসল হাটবাজারে বিক্রি করতে খুবই কষ্ট করতে হয়।

শিক্ষার্থী অভিভাবকরা বলেন, রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পরেছে। গ্রামের শিক্ষার্থীরা অধিকাংশ সময় বিদ্যালয়ে সঠিক সময়ে উপস্থিত হতে
পারে না। সরকারের কাছে দাবি অতি দ্রুত রাস্তাটি পাকাকরণ করার।

পল্লী চিকিৎসকরা বলেন, জরুরী সময় রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার জন্যও যাতায়াতের এই সড়ক যেন মরণফাদেঁ পরিণত হয়েছে। চলাচল একেবারেই
অনুপযোগী।

৩ নং ওয়ার্ডের কাশেম মিয়া বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি কাদায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরে। আমরা বর্তমান উন্নয়ন বান্ধব সরকারের কাছে আবেদন জানাই অতি দ্রুত রাস্তাটি পাকা করে জন দুর্ভোগ লাঘব করা হোক।

ইউপি চেয়ারম্যান রাসেল আহমেদের মুঠোফোনে একাধিক বার ফোন দিলেও রিসিভ না করায় উনার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয় নি।

এ ব্যাপারে ধর্মপাশা উপজেলা প্রকৌশলী আরিফ উল্লাহ খান বলেন, জনদুর্ভোগ নিরসনে রাস্তা নির্মাণে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছি। ইতিমধ্যে টেন্ডার সম্পন্ন হয়েছে,রাস্তাটি পাকাকরণের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছি।আশা করি অতি দ্রুত কাজ শুরু হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব আল নাহিয়ান খান বলেন, আমি উপজেলা প্রোকৌশলীর সাথে কথা বলব।যাতে দ্রুত এই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি নির্মাণ করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম