1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আগামী ১০ বছরে দেশে অর্থনৈতিকভাবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটবে....ড. হোসেন জিল্লুর করিম - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০২:১২ অপরাহ্ন

আগামী ১০ বছরে দেশে অর্থনৈতিকভাবে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটবে….ড. হোসেন জিল্লুর করিম

চন্দনাইশে গণিত অলম্পিয়াড প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

চন্দনাইশ(চট্টগ্রাম)প্রতিনিধিঃ এস.এম.জাকির।
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২ অক্টোবর, ২০২২
  • ২৬ বার

চট্টগ্রাম-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরী
বলেছেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়নের মহাসড়কে আমাদের চন্দনাইশ বাসীকে
অংশীদারিত্ব নিতে নিজেদেরকে মেধা প্রতিযোগিতার জন্য তৈরি হতে হবে।
প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজিব ওয়াজেদ জয়ের পরিকল্পনায় বাংলাদেশকে ডিজিটাল
বাংলাদেশের আওতায় এনে আজকের প্রজন্মকে তাদের অংশীদার করে বিশ্বের কাছে
প্রতিযোগিতার সুযোগ করে দিয়েছেন।

তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক শিক্ষা ও বাণিজ্য উপদেষ্টা, ব্রাকের
চেয়ারম্যান, অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর করিম বলেছেন, ঢাকা-বরকলের
মধ্যে কোন তফাৎ পাচ্ছিনা বুদ্ধিমত্তার মধ্যে। মেয়েদেরকে নিয়েই এগিয়ে
যেতে হবে, তাদের উপস্থিতি আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছে। তাদের যোগ্য
জায়গায় পৌছাতে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করতে হবে। স্বপ্ন বাস্তবায়ন
করতে হলে প্রতিদিনই নতুন নতুন স্বপ্ন দেখতে হবে। আজকের বাংলাদেশ
আগানোর অন্যতম কারণ হচ্ছে সম্মিলিতভাবে কাজ করা। আমাদের তিনটা
দিকে পরিধি বাড়াতে হবে। আমাদের অভিজ্ঞতার পরিধি, চিন্তার জগৎ এবং মনের
জগৎ বাড়াতে হবে। অন্যতম সীমাবদ্ধতা হচ্ছে মন, অভিজ্ঞতা, চিন্তা, চেতনা।
শ্রেষ্টত্বের পর্যায়ে পৌছতে পারবে একজন, কিন্তু লক্ষ লক্ষদের যোগ্য হতে হবে।
শ্রেষ্ট যে, সে নিজের যোগ্যতা বলে শ্রেষ্টত্বে পৌছে যাবে। শ্রেষ্টত্বতা মূল
কথা নয়।যোগ্য হওয়া হচ্ছে মূল কথা। আমরা চাই প্রতিটা ক্ষেত্রে যেন
যোগ্যতা অর্জন করতে পারি। পৃথিবী অনেক বেশি চলমান। প্রতিযোগিতা
বাড়ছে, ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে যোগ্য ব্যক্তিত্ব গড়ে তুলতে হবে।
আমাদের পূর্বের ধারণা ছিল স্কুলে যাবে, লেখাপড়া শেষ করে চাকুরি পাবে,
সেই ধারণা ভেঙ্গে ফেলতে হবে। নিজ উদ্যোগের বিকল্প নেই। চাকুরি দাতারা
বলেন, অনেক মানুষ আছে বাংলাদেশে, কিন্তু যোগ্য মানুষের খুব অভাব। এখনো
যোগ্যতার ঘাটতি রয়েছে। প্রত্যেককে যোগ্য হওয়ার জন্য সাধনা ও চিন্তা,
চেতনায় এগোতে হবে। স্বাস্থ্য স চেতন হয়ে শরীর কে সুস্থ রেখে মেধা
বিকাশের উপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি। স্বাস্থ্য সুরক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ
স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে মেধার বিকাশ ঘটবে না। বিগত ৫ বছরে চন্দনাইশে
অবকাঠামোগত ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। বঙ্গবন্ধু টানেল হয়ে চন্দনাইশের
মধ্যদিয়ে মানুষ কক্সবাজার চলে যাচ্ছে। কিন্তু এ অঞ্চলটা তুলনামূলকভাবে
পিছিয়ে পড়া অঞ্চল, অর্থনৈতিকভাবে অনগ্রসরও বটে। আরো কিছু করার
দরকার ছিলো। আমাদের পাশ দিয়ে মহাসড়ক যাচ্ছে, সেই সড়কে শত শত, সুন্দর
সুন্দর গাড়ি চলাচল করবে। কিন্তু সড়েকর দুইপাশের লোকজন অর্থ নৈতিক
কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করতে পারবেনা যোগ্যতার অভাবে। আমাদেরকে সরকারের
মহা উন্নয়নের মহাসড়কে অংশিদার হওয়ার জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।
অর্থনৈতিক পূর্ণজাগরনের স্বপ্ন দেখতে হবে, দেখতে হবে যোগ্যতার
মাপকাটি। এখানে আগামীতে যোগ্য ছেলেমেয়ে থাকলে তাদের কর্মস্থান
এখানে হবে। ঢাকা বা দেশের বাইরে যেতে হবেনা।সেজন্য শিক্ষা
প্রতিষ্ঠানগুলোকে মানের জায়গায় আনার জন্য কাজ করতে হবে। আগামী ১০
বছরে যে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে চট্টগ্রামের মানুষরা সেই বৈপ্লবিক
পরিবর্তনের অংশিদার হবে কিনা সেটা নিশ্চিত নয়।সেজন্য স্বপ্ন
বাস্তবায়নের লক্ষে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে এই সকল
প্রতিযোগিতা ভূমিকা রাখবে। এক্সট্রা কারিকুলামের মাধ্যমে
অর্থনৈতিকভাবে নিজেদেরকে স্বাবলম্বি করার যে প্রয়াস তার সাথে তিনিও
সামিল হওয়ার প্রতিশ্রুত প্রদান করেন।

গতকাল ১ অক্টোবর সকালে চন্দনাইশ বরকল স্বপ্ন বিলাস বিদ্যা নিকেতনের
আয়োজনে, চন্দনাইশ সমিতি চট্টগ্রামের পৃষ্টপোষকতায়, বাংলাদেশ গণিত
অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতার ঢাকার সার্বিক সহযোগিতায় চন্দনাইশে
২য় বারের মত গণিত অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। ইসপার
কর্মকর্তা শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন,
চট্টগ্রাম-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরী, প্রধান
আলোচক ছিলেন তত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা, ব্রাকের চেয়ারম্যান,
অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর করিম, বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম
কলেজের অধ্যাপক হাসানুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বপ্ন বিলাসের
প্রতিষ্ঠাতা সাইফুদ্দিন, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রধান শিক্ষক ফরহাদ হোসেন। ২য়
অধিবেশন পুরস্কার বিতরণী সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রিহ্যাব চট্টগ্রাম
চ্যাপ্টারের প্রেসিডেন্ট আবদুল কৈয়ুম চৌধুরী, বিশেষ অতিথি ছিলেন
আবু তাহের চৌধুরী, ড. উজ্জল কুমার দেব, মাকসুদুর রহমান, মো. ইদ্রিস,
দিদারুর রশিদ চৌধুরী প্রমুখ। ২০১৯ সালে প্রথমবারের মতো গ্রাম পর্যায়ে
সংগঠনটি গণিত অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলো।
দ্বিতীয় বারের মতো এ প্রতিযোগিতায় চন্দনাই শের মাধ্যমিক, উচ্চ
মাধ্যমিক অর্ধশতাধিক প্রতিষ্টানের ৫১০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন। এই সকল
শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে ২০ জনকে শ্রেষ্টত্বের পুরস্কার প্রদান করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম