1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাবে আতঙ্কে কিশোরী তানজিলা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৬:০০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
এখনো প্রত্যন্ত চর অঞ্চলে মহিষের পাল ছাড়িয়ে রাঁখাল ওকি গাড়িয়াল ভাই এর গানের সুর তুলেন তার বাঁশিতে!!! চৌদ্দগ্রামে দৈনিক দেশ রূপান্তর এর ৫ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত শ্রীপুরে মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ সৈয়দপুরে এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ বদলে গেছে লালমনিরহাটের তিন বিঘা করিডোর ও দহগ্রাম-আঙ্গরপোতা ছিটমহল চৌদ্দগ্রাম প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ৩ দিন ব্যাপী বার্ষিক আনন্দ ভ্রমণ সম্পন্ন চৌদ্দগ্রামে শুভ সংঘের উদ্যোগে অস্বচ্ছল নারীদের সেলাই প্রশিক্ষণের উদ্বোধন ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চললে কেউ অপরাধ করতে পারে না নবীগঞ্জে ঠাকু অনুকূল চন্দ্রের জন্মোৎসবে এসপিআর কালী চরন মন্ডল Pilot video game in Kenya ঠাকুরগাঁওয়ের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈমুর রহমানের ইন্তেকাল !

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাবে আতঙ্কে কিশোরী তানজিলা

নিজস্ব প্রতিনিধি।
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২২
  • ২০১ বার

আমি সত্তরের বন্যা দেখিনি তবে ২৪/১০/২০২২ সোমবার রাতে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং দেখেছি।

ভোলার মনপুরা তানজিলা (১৬) কিশোরীর ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং সৃতিচারণ করেছেন । উপজেলার হাজিরহাট ইউনিয়নের হামিদুর রহমান মেয়ে কিশোরী তানজিলা। কিশোরী তানজিলা হাজিরহাট মডেল সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। তানজিলা বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি মনপুরা উপজেলা ইউনিট এর একজন ক্ষুদ্র সেচ্ছাসেবী।

বন্যা পূর্বাভাস জানা সত্বেও
নিঃচিন্তায় গুমিয়ে পরেছি সোমবার রাত ১১:২৪ দিকে।সুন্দর ঘুম হচ্ছিল।
হঠাৎ করে দাদার চিৎকার এ আতঙ্কে শিহরিত হয়ে উঠি তখন সময় ১২:১২ তারিখ ২৫/১০/২০২২ মঙ্গলবার।

কিছু না শুনতেই ভয়ে যেন পুরো শরীর কাঁপতে থাকে। মধ্যরাতে ঘুম থেকে উঠে চোখ মেলে দেখি চারদিক অন্ধকারে নিমজ্জিত। বাতাসের আওয়াজ মেঘের রাক্ষুসে চেহারা দেখে থর থর করে কেঁপে উঠি আমি।
অশ্রুশিক্ত হয় দু-চোখ।

আমি নিজেকে কোন রকমে গুছিয়ে নিয়ে দাদার কথা শুনছিলাম,দাদা বলল আমার বাড়ির পশ্চিম দিকের বেরিবাদ টা ছুটে প্রচন্ড বেগে পানি আসতেছে।সবাইকে আশ্রয় কেন্দ্র যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে।

দাদার চিৎকারে আমার পরিবারের সবাইকে নিয়ে বেরিয়ে আসছি আশ্রয় কেন্দ্রের উদ্দেশ্যে।রাস্তায় আসতেই দেখি মানুষ ছুটাছুটি করছে,দৌড়ে ছুটছে আশ্রয় কেন্দ্রের খোঁজে। পাড়ার চারদিকে চিৎকার চেচামেচি,মানুষের আর্থনাদ,আমি আতংকের গৌড়ে অন্ধকার রাতে নিবু নিবু আলো জ্বালিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে পৌঁছালাম। প্রতিমধ্যে খবর আসলো আমার বাসা এখন পানির নিচে তলিয়ে আছে।

কিশোরী তানজিলা আরো বলেন ভোলার বিছিন্ন দ্বীপ উপজেলা মনপুরায় আমরা উপকূলবাসীরা ঝড়,বৃষ্টি,বন্যা,ঘূর্ণিঝড়,
জলোচ্ছাস বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগের মধ্য দিয়ে জীবন অতিবাহিত করতেছি। পরিকল্পিত বেরিবাদে ব্লক, জিওব্যাগ না দেওয়া প্রতিমুহূর্তে আতংকে দিন কাটাচ্ছি।
প্রতিবছরে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সামান্য সহযোগিতা করতে পারলে দায়িত্ব শেষ বলে মনে করেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগন।

তবে এবার অন্তুত মনপুরার চারদিকে সু-বেষ্ঠিত বেরি বাঁধ নির্মাণ এবং ব্লক, জিওব্যাগ দিয়ে রেফারিং করা দাবি বলে জানিয়েছেন কিশোরী তানজিলা।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম