1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে জলাবদ্ধতায় অনাবাদী- ১২০০ হেক্টর জমি । - দৈনিক শ্যামল বাংলা
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:২৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
ঠাকুরগাঁওয়ে সীমান্ত হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে লাশের মিছিল ! নবীগঞ্জে শাখা বরাক বাঁচাতে পদযাত্রা পরিবেশ রক্ষায় নাগরিক আন্দোলনে এগিয়ে আসুন গাজীপুরে ১৫ ঘন্টায় তিনজনের আত্মহত্যা গাজীপুরে সিটি কর্পোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় শ্রমিকের মৃত্যু শ্রীপুরের বরমী থেকে একটি বিদেশি পিস্তল,১ রাউন্ড গুলি ও ১০০পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ বাঁশখালীতে বেকারির শ্রমিক হত্যাকান্ডের আসামী মাহাবুব গ্রেপ্তার কুবিতে বিজ্ঞান উৎসব অনুষ্ঠিত। চৌদ্দগ্রামে সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক এমপিকে মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা মাগুরায় সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা, আটক-৩ মাগুরায় শহিদ ও মৃত মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুরে জলাবদ্ধতায় অনাবাদী– ১২০০ হেক্টর জমি ।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,,
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১০ অক্টোবর, ২০২২
  • ৮১ বার

ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর উপজেলার আমগাঁও ও ডাঙ্গীপাড়া ইউনিয়নে অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খনন এবং রাস্তার পাশে খাল ভরাটের কারণে পানি নিষ্কাশনের জন্য ক্যানেল না থাকায় অনাবাদী হয়ে পড়েছে ১২ শ’ হেক্টর জমি। এসব জমিতে আমন ধান চাষ করতে না পারায় বেশ দুশ্চিন্তায় আছেন স্থানীয় কৃষকরা। এলাকাবাসী ও কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, হরিপুর উপজেলার লহুচাদ, ভাতডাঙ্গী, কামারপুর, পতনডোবা, শিহিপুর, দামোল, হেন্দ্রগাও, শিশুডাঙ্গী হয়ে মাগুরা পর্যন্ত গ্রামের আঞ্চলিক রাস্তার পাশের খাল ভরাট ও মাঠের ভেতরে যত্রতত্র পুকুর খননের কারণে বন্যার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এসব জমিতে আমন ধানের চারা রোপণ করতে না পারায় অনেক কৃষক মানবেতর জীবনযাপন করছেন। লহুচাঁদ (ভাতভাঙ্গী) গ্রামের কৃষক আমির হোসেন বলেন, ‘এ বছর বোরো ধান কাটার পরে মাঠ থেকে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকার কারণে প্রায় ১২ শ’ হেক্টর জমিতে আমন ধান চাষাবাদ বন্ধ আছে। আমাদের গ্রামসহ পাশের এলাকার পাঁচটি গ্রামের মাঠের পানি নিষ্কাশনের খালগুলো ভরাট করায় মাঠে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।

গত পাঁচ বছর ধরে আমন ধান আবাদ করতে পারছি না।’তিনি আরো বলেন, ‘হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার, স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং বিভিন্ন দফতরে একাধিক বার নিষ্কাশনের জন্য আবেদন করার পরেও সুফল পাইনি।’হরিপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ রুবেল হুসেন সাংবাদিককে বলেন, ‘এই বিলটি রাণীশংকৈল ও হরিপুরে অবস্থিত। নতুন নতুন জনবসতি হওয়ার কারণে পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টি হচ্ছে। এখানে একটি পরিকল্পিত পানি নিষ্কাশন ক‍্যানেল হলে আমন মৌসুমে ডুবে থাকা জমিগুলোতে আমান ধান চাষ করা সম্ভব। এই ব‍্যপারে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে ব‍্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের হরিপুর জোনের সহকারী প্রকৌশলী তিতুমীর রহমান নয়া দিগন্তকে বলেন, ‘আমরা এলাকা পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব‍্যবস্থা গ্রহণ করব।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম