1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার প্রধান আসামি হলেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সম্পাদক - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
অ্যাডভোকেট রহমত আলীর চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত! সন্তানকে ভালো মানুষ হিসাবে তৈরি করুন,তাহলেই দেশটা ভালো হয়ে যাবে-ডঃ তাপস সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্ট ৪৫৭ জন শিক্ষার্থীকে ২৬ লক্ষ টাকার বৃত্তির অর্থ প্রদান নদী গুলো খনন করা হলে বদলে যাবে দৃশ্যপট লালমনিরহাটসহ বৃহত্তর রংপুর অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর চর গুলো সবুজে ঢাকা শোক সংবাদ মানবিকতার অনন্য নির্দশন চন্দনাইশে ২ জুটির বিয়ে দিলেন জেসিকা গ্রুপের জসিম। নবীগঞ্জ শহরে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে ২০০/২৫০জনকে অজ্ঞাত করে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের মীরসরাইয়ে হরিহরপুর গ্রামে ২৮ তম অষ্টপ্রহর ব্যাপী মহোৎসব শ্রীপুরে বেতন বাড়ানোর দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ শ্রীপুরে পুলিশী বাধায় বিএনপি’র অনুষ্ঠান পন্ড বন্ধ হওয়া রেল ষ্ট্রেশন দ্রুততম সময়ে চালু করা হবে। রেল মন্ত্রী

ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার প্রধান আসামি হলেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সম্পাদক

কুবি প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩০ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ১০০ বার

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে সরিয়ে শাখা ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার প্রধান আসামি বিপ্লব চন্দ্র দাসকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। বুধবার বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল ও সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বিপ্লবের নাম ঘোষণা করা হয়। বিপ্লবের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ড ঘটানোসহ বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টির অভিযোগ রয়েছে।

২০১৬ সালের ১ আগস্ট কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মোমবাতি প্রজ্জ্বলনকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবদ্ধ হয়ে নিহত হন কাজী নজরুল ইসলাম হল ছাত্রলীগের তৎকালীন সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাহ। ঘটনার তিনদিন পর বিপ্লবকে রাজধানী থেকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করে পুলিশ। হত্যাকান্ডের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় প্রধান আসামি হিসেবে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন বিপ্লব চন্দ্র দাস। বর্তমানে তিনি জামিনে মুক্ত। এ ঘটনায় তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ও থেকে বহিষ্কার করা হয়।

বিপ্লব চন্দ্র দাস কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষার্থীও নন। ২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগে ভর্তি হন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি অনুযায়ী দু’বারের বেশি পুন:ভর্তির সুযোগ না থাকলেও সেসময় প্রভাব খাটিয়ে তিনি তৃতীয়বার ভর্তি নেন। তার ছাত্রত্ব শেষ হওয়ার ৬ বছর পর নিয়মিত শিক্ষার্থীকে সরিয়ে অছাত্রকে নেতা বানিয়েছে কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

বিপ্লব চন্দ্র দাসের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিরও অভিযোগ রয়েছে। সবশেষ ২০২২ সালের ১ অক্টোবর তার নেতৃত্বে বহিরাগতরা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে ফাঁকাগুলি ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ ঘটনায় তাৎক্ষণিক হল বন্ধ করে ক্লাস পরীক্ষা স্থগিত করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এসব বিষয়ে বিপ্লব চন্দ্র দাস বলেন, হত্যা মামলার আসামি হয়েও অনেকে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের পদে থাকতে পারলে আমি কেনো মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক হতে পারবো না! তারা আসামি হয়ে ক্যাম্পাসে রয়েছে তাহলে আমি ক্যাম্পাসে গেলে সমস্যাটা কোথায়।

এদিকে বিপ্লব মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কেউ না হলেও অব্যাহতি দেওয়া মীর শাহাদাত হোসাইন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। তাঁর বাবা গেজেটভূক্ত সামরিক মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে সরিয়ে অছাত্র ও হত্যা মামলার আসামিকে দায়িত্ব দেওয়ায় ক্যাম্পাসে সমালোচনায় কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের ১১ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী মেসবাহ উদ্দিন আফ্রিদি বলেন, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে সরিয়ে অছাত্র ও আসামিকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের দায়িত্ব দেওয়া মুক্তিযোদ্ধার রক্তকে অপমান করা। কেন্দ্রীয় কমিটি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে বিতর্কিত করার জন্য এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ছাত্রত্ব শেষ হওয়ার ৬ বছর পরও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে সরিয়ে হত্যা মামলার ছাত্রলীগ নেতা হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক করায় অবৈধ যোগসাজশের অভিযোগ তুলেছেন সংশ্লিষ্টরা।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক মঞ্চের এক নেতা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কৃত হওয়ার ৬ বছর পর অছাত্রকে ধরে এনে নেতা বানানোর অসৎ কোনো উদ্দেশ্য আছে। হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে নেতা বানিয়ে সংগঠনকে অস্থিতিশীল করছেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

এসব বিষয়ে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আল মামুনের ভাষ্য, হত্যা মামলার রায় এখনও না হওয়ায় বিপ্লবকে পদায়ন করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। রায় হলে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এসব বিষয়ে কিছুই জানেন না দাবি করে কেন্দ্রীয় সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, তাঁর যে বায়োডাটা আমাদেরকে দিয়েছে সেখানে তার ছাত্রত্ব আছে দেখিয়েছে। যদি ছাত্রত্ব না থাকে তাহলে আমরা দেখব। আর শিক্ষার্থী খুনের বিষয়ে আমরা কিছুই জানতাম না।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম