1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আওয়ামী লীগ সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে একদলীয় বাকশাল কায়েম করেছে - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
অ্যাডভোকেট রহমত আলীর চতুর্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত! সন্তানকে ভালো মানুষ হিসাবে তৈরি করুন,তাহলেই দেশটা ভালো হয়ে যাবে-ডঃ তাপস সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী ট্রাস্ট ৪৫৭ জন শিক্ষার্থীকে ২৬ লক্ষ টাকার বৃত্তির অর্থ প্রদান নদী গুলো খনন করা হলে বদলে যাবে দৃশ্যপট লালমনিরহাটসহ বৃহত্তর রংপুর অঞ্চল দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর চর গুলো সবুজে ঢাকা শোক সংবাদ মানবিকতার অনন্য নির্দশন চন্দনাইশে ২ জুটির বিয়ে দিলেন জেসিকা গ্রুপের জসিম। নবীগঞ্জ শহরে ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনায় ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে ২০০/২৫০জনকে অজ্ঞাত করে পুলিশ এসল্ট মামলা দায়ের মীরসরাইয়ে হরিহরপুর গ্রামে ২৮ তম অষ্টপ্রহর ব্যাপী মহোৎসব শ্রীপুরে বেতন বাড়ানোর দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে শ্রমিকদের বিক্ষোভ শ্রীপুরে পুলিশী বাধায় বিএনপি’র অনুষ্ঠান পন্ড বন্ধ হওয়া রেল ষ্ট্রেশন দ্রুততম সময়ে চালু করা হবে। রেল মন্ত্রী

আওয়ামী লীগ সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে একদলীয় বাকশাল কায়েম করেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক |
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৫ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ১৫৬ বার

আওয়ামী লীগ সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে একদলীয় বাকশাল কায়েম করে গণতন্ত্র হত্যা ও দুর্বৃত্তায়নের রাজনীতির সূচনা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের আমীর মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন।
তিনি আজ রাজধানীর একটি মিলনায়তনে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত ২৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যাদিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের সেক্রেটারি ড. মুহাম্মদ রেজাউল করিমের পরিচালনায় আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের নায়েবে আমীর আব্দুর রহমান মুসা, কেন্দ্রীয় মজলিসে শূরা সদস্য ও ঢাকা মহানগরী উত্তরের নায়েবে আমীর ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা, ঢাকা মহানগরী উত্তরের কর্মপরিষদ সদস্য জামাল উদ্দীন ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি পরিকল্পনাবিদ সিরাজুল ইসলাম প্রমূখ।
সেলিম উদ্দিন বলেন, আওয়ামী লীগ ’৭২-এর সংবিধানের জন্য ‘মাছের মায়ের পুত্রশোক’-এ কাতর হলেও তাদের প্রথম মেয়াদেই সংবিধানের ৪ বার সংশোধনী আনা হয়েছে। এমনকি ১৯৭৫ সালে ২৫ জানুয়ারি সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে বহুদলীয় সংসদীয় পদ্ধতি বাতিল করে রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন ও দেশের সকল রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ করে একদলীয় বাকশালী শাসনতন্ত্র কায়েম করা হয়। সংসদে উত্থাপনের মাত্র ১৫ মিনিটের মধ্যে অতিদ্রæততার সাথে এই বিল পাশ করা হয়। যা বিশে^র গণতন্ত্রের ইতিহাসে কলঙ্কজনক ও কালো অধ্যায়। এমনকি একই বছরের ১৬ জুন রাষ্ট্রায়ত্ব ৪ টি পত্রিকা বাদে সকল পত্রিকার ডিক্লেরাশন বাতিল করে গণমাধ্যমের কন্ঠরোধ করা হয়। ১৯৭৮ সালে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বহুদলীয় গণতন্ত্র পুনঃপ্রবর্তনের ফলে আওয়ামী লীগ পূনঃর্জন্ম লাভ করে। তাই আওয়ামী বাকশালীদের মুখে গণতন্ত্রের বুলি ‘ভূতের মুখে রাম নাম’-এর মতই শোনায়।
তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে তখনই গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ২০০৮ সালে অপশক্তির সাথে সমঝোতা করে ক্ষমতায় এসে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের রক্ষাকবজ কেয়ারটেকার সরকার পদ্ধতি বাতিল করেছে। তারা ২০১৪ সালে তামাশা ও ভাঁওতাবাজীর নির্বাচন এবং ২০১৮ সালে নৈশভোটে ক্ষমতায় এসে দেশে অঘোষিত বাকশাল, ফ্যাসীবাদী ও স্বৈরতান্ত্রিক শাসন কায়েম করেছে। তারা একই কায়দায় আগামী নির্বাচনেও নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার স্বপ্নবিলাসে বিভোর। কিন্তু জনগণ কখনোই তাদের চৌর্যবৃত্তির নির্বাচনের পরিকল্পনা সফল হতে দেবে না। তিনি সরকারকে সময় থাকতে শুভবুদ্ধির পরিচয় দিয়ে অবিলম্বে পদত্যাগ করে কেয়ারটেকার সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের আহবান জানান। অন্যথায় জনগণ দুর্বার গণআন্দোলনের মাধ্যমে তাদেরকে ক্ষমতা থেকে লজ্জাজনকভাবে বিদায় করবে-ইনশাআল্লাহ।
তিনি আরো বলেন, সরকারের জনসমর্থন এখন শূণ্যের কোটায় নেমে এসেছে। তারা এখন আমলা, পুলিশ ও নাস্তিক্যবাদী নির্ভর হয়ে পড়েছে। মূলত, সরকারের গণবিচ্ছিন্নতার সুযোগই গণধিকৃত ডারউইনের প্রেতাত্মারা সরকারের ঘাড়ে ভর করে পাঠ্যপুস্তকে নাস্তিক্যবাদ ও বিবর্তনবাদী কুফরী দর্শন ঢুকিয়ে জাতিকে ধর্মহীন, নাস্তিক ও যৌনোম্মাদ বানানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে। কিন্তু দেশের সচেতন ও ধর্মপ্রাণ জনতা তাদেরকে কোন ভাবেই বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে দেবে না। তিনি অবিলম্বে পাঠ্যসূচি থেকে ইসলাম ও ধর্মবিরোধী সকল অধ্যায় প্রত্যাহার করে জাতির আশা-আকাঙ্খা ও মূল্যবোধের সাথে সঙ্গতি রেখে নতুন করে পাঠ্যপুস্তক প্রণয়নের আহবান জানান।
মহানগরী আমীর বলেন, সরকার নিজেদের পতন ঠেকানোর জন্যই দেশের পরিচ্ছন্ন ও প্রবীন রাজনীতিক আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমানকে অন্যায় করে গ্রেফতার করে আত্মতুষ্টিতে ভূগছে। তারা চলমান আন্দোলনকে বিভ্রান্ত ও ভিন্নখাতে প্রবাহের জন্য নানাবিধ ষড়যন্ত্র ও কূটকৌশলের আশ্রয় নিচ্ছে। কিন্তু তাদের সে ষড়যন্ত্র অচিরেই হরিষে-বিষাদে পরিণত হবে। তিনি জুলুম-নির্যাতন পরিহার করে অবিলম্বে আমীরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমান, আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, এটিএম আজহারুল ইসলাম, মাওলানা আ ন ম শামসুল ইসলাম, অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার ও মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান সহ সকল রাজবন্দীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় জাতীয় নেতাদের জনগণই মুক্ত করেই ছাড়বে-ইনশাআল্লাহ।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম