1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. nrghor@gmail.com : Nr Gh : Nr Gh
  3. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
আশুলিয়ায় ট্রাফিক পুলিশের উপর অতিষ্ট হয়ে ঘেরাও করে পুলিশকে পিঠালেন নারী পোশাক শ্রমিকরা - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
শরীয়তপুরে মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে কৃষকদের মানববন্ধন খুটাখালীতে স্বাধীনতা উৎসব উদযাপন পরিষদের মতবিনিময় সভা সম্পন্ন বাঁশখালীতে ওয়াজের দাওয়াত দিয়ে ডেকে নিয়ে মাওলানাকে মারধরের অভিযোগ দেলোয়ার সভাপতি-এরশাদ সম্পাদক চন্দনাইশ প্রেস ক্লাবের কমিটি গঠন ক্ষয়ক্ষতি ৫ লাখ টাকা, চন্দনাইশে দূর্বৃত্তদের আগুনে পুড়েছে ঘর ও দোকান। রাস্তা-ঘাটে কোনো ময়লা আবর্জনা ফেলা যাবে না- এমপি ফজলে করিম লালমনিরহাটে স্কুল ছাত্র সিক্তসহ সকল ছাত্র-ছাত্রীর উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে নিন্দা ও প্রতিবাদ সভা পাঠ্যপুস্তকে ভারতীয় আধিপত্যবাদ স্থান পেয়েছে তা বাতিল করতে হবে – আ ন ম এহসানুল হক মিলন জাতিকে ধর্মহীন করার জন্যই পাঠ্যপুস্তক থেকে মুসলমানদের ধর্ম বিশ্বাসকে বাদ দেওয়া হয়েছে- প্রফেসর চৌধুরী মাহমুদ হাসান লালমনিরহাটের বুড়িমারীস্হল বন্দরের শ্রমিকদের ন্যায্য ৭-দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ধর্মঘট-সড়ক অবরোধ

আশুলিয়ায় ট্রাফিক পুলিশের উপর অতিষ্ট হয়ে ঘেরাও করে পুলিশকে পিঠালেন নারী পোশাক শ্রমিকরা

বিশেষ প্রতিবেদকঃ
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ১৫ বার

ট্রাফিক পুলিশ কর্তৃক অটোরিকশা চালকের মাথা ফাটানোর জেরে শত শত বিক্ষুব্ধ নারী পোশাক শ্রমিকরা পুলিশ বক্স ঘেরাও করে ট্রাফিক পুলিশকে পিঠানোর ঘটনা ঘটেছে আশুলিয়ার ডিইপিজেড রপ্তানি এলাকায়।

সোমবার(২৩জানুয়ারী) বিকেলে ঢাকা জেলা সাভারের আশুলিয়ার নবীনগর চন্দ্রা মহাসড়ক দখল করে স্টান্ড বানিয়ে বিভিন্ন ধরনের গাড়ী পার্কিং করে যানজট সৃস্টি হলেও পুলিশ তাদের উচ্ছেদ না করে নিরিহ অটোরিকশা চালকদের রিকশা প্রতিদিন আটকিয়ে রেকারবিল করায় অতিষ্ট হয়ে ট্রাফিক পুলিশের উপর হামলা করেছেন বলে এ নারী পোশাক শ্রমিকরা এ প্রতিবেদককে বলেন, তাদের এমন অভিযোগ উঠেছে ট্রাফিক পুলিশের উপরে।

এদিকে ট্রাফিক পুলিশের হাতে মারধরে ভ্যানচালক আহত হওয়ার ঘটনায় মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছে অটোরিকশা ও ভ্যানচালকরা।
এ সময় মহাসড়কে টায়ার জ্বালিয়ে দেন তারা।ডিইপিজেড রপ্তানির পোশাক কারখানা গুলো ছুটির সংগে সংগে পোষাক শ্রমিকরা রপ্তানি গেটে অটোরিকশায় উঠে তাদের নিজ নিজ গৃহে চলে যায়। প্রতিদিনেরমত রিকশা স্টান্ডে এসে রিকশায় উঠতে গিয়ে দেখেন একজন অটোরিকশা চালককে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দিয়েছেন ট্রাফিক পুলিশ। এমন ঘটনা শুনে নারী পোশাক শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশ বক্সে থাকা ঢাকা জেলা পুলিশের এস আই মোঃ হেলাল উদ্দিন(পিপিএম)কে বক্সের ভিতর থেকে টেনে হিছরে বাহীরে এনে মারপিট শুরু করে। মারপিট করার সময় ভিডিও ফুটেজে দেখা যায় পাশেই আশুলিয়া থানা পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর জাহাঙ্গীর আলম সহ আরও পুলিশ সদস্যরা দাড়িয়ে থেকে কথা বলছেন আর তার সামনেই বিক্ষুব্ধ নারী পোশাক শ্রমিকরা পিঠাচ্ছেন ট্রাফিক পুলিশের ওই পুলিশ কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিনকে । পরে উপস্থিত লোকজন ওই পুলিশ অফিসারকে নারী পোশাক শ্রমিকদের হাত থেকে মারপিটের রক্ষা করতে দেখা যায় ওই ভিডিও ফুটেজে। তাদের অভিযোগ প্রতিদিন রেকারবিল করার নামে ট্রাফিক পুলিশ ও হাইওয়ে থানা পুলিশ অটোরিকশা আটক করে ১০থেকে ৫০টি, এর মধ্যে ৫থেকে ১৫টি অটোরিকশার রেকারবিল করে বাকীগুলো রেকারবিল ছাড়াই টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেন। এতে সরকারের খাতায় টাকা জমা না করে পুলিশ সদস্যরা গরীব অসহায় রিকশাওয়ালাদের টাকা মেরে দিচ্ছে। তাই তাদের শাস্তি হওয়া উচিৎ, এজন্য তারা ক্ষিপ্ত হয়ে অনেকেই পুলিশের উপর এ হামলা চালিয়েছেন।

এদিকে নাম না প্রকাশের শর্তে অসংখ্য প্রতক্ষদর্শী ও মহাসড়কের ফুটপাতের ব্যাবসায়ীরাও খুশি হয়ে বলেন, পুলিশের এমন অত্যাচার আর যাতে না করে পুলিশের উপর এমন ঘটনায় তারা খুশি। এ হামলার সময় ৭থেকে ৮বছরের শিশুকেও উচু যায়গায় দাড়ীয়ে হাত তালী দেওয়ার দৃশ্যও দেখাযায়। এ ঘটনায় পোশাক শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, মহাসড়ক দখল করে হাজার হাজার দোকান বসিয়ে এবং বিভিন্ন ধরনের গাড়ী মহাসড়ক দখল করে পার্কিং করে রেখেছে পোশাক কারখানা ছুটির পর আমরা রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে পারিনা। রাস্তায় প্রতিদিন যানজটে নাখাল হয়ে যাই আমরা সেখানে পুলিশ তাদের মহাসড়ক থেকে তারিয়ে না দিয়ে নিরবতা পালন করে আসছেন। এতে করে প্রতিদিন ছোট বড় দূর্ঘটনা ঘটছে এই মহাসড়কে।

অটোরিকশা চালকরা জানান, তুচ্ছ ঘটনায় ট্রাফিক পুলিশের এক এসআই নাজমুল হাসান নামে এক ভ্যানচালককে বেধড়ক মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেন। এ সময় উপস্থিত অন্য রিকশা ও ভ্যানচালকরা বিষয়টি দেখলে প্রতিবাদ শুরু করে ও অভিযুক্তদের বিচারের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে। প্রতিদিন ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশসহ কমিউনিটি পুলিশ সদস্যরা নানা অজুহাতে অটো রিকশা ও ভ্যান আটকে রেকার বিল আদায় করে। বেশীরভাগ সময় টাকার বিনিময়ে রেকারবিল ছাড়াই ছেড়ে দেন। এ ঘটনায় প্রতিবাদ করলে মারধর করার অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী চালকরা।

অভিযুক্ত সাভার ট্রাফিক পুলিশের এসআই হেলাল উদ্দিন বলেন, দুপুরে আশুলিয়ার বলিভদ্র স্টান্ডে অবৈধ অটোভ্যান ধরার সময় নাজমুল নামে ভ্যানচালক পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। পরে তাকে ধাওয়া দিয়ে ধরার চেষ্টা করলে ধস্তাধসি শুরু করে। এ সময় ওয়ারল্যাসের সাথে তার মাথায় একটু আঘাত লাগে। ঘটনার প্রায় দুই ঘণ্টা পর বিভিন্ন রিকশা ও ভ্যানচালকরা ডিইপিজেড সংলগ্ন ট্রাফিক পুলিশ বক্সে হামলায় চালিয়ে আমাকে মারধরসহ বক্সে ভাঙচুর চালায়।

এদিকে সাভার ট্রাফিকের পুলিশ পরিদর্শক আব্দুস সালাম জানায়, প্রাথমিকভাবে বিষয়টি জেনেছি। ঘটনা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2022 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম