1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
চকোরিয়া ফাঁসিয়াখালী ঘোনারপাড়ায় ভাল ধর্মীয় শিক্ষার আলো জ্বালাবার কারো মাথা ব্যাথা ছিল না- মৌলনা মুহাম্মদ উল্লাহ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

চকোরিয়া ফাঁসিয়াখালী ঘোনারপাড়ায় ভাল ধর্মীয় শিক্ষার আলো জ্বালাবার কারো মাথা ব্যাথা ছিল না- মৌলনা মুহাম্মদ উল্লাহ

শাহরিয়ার মাহমুদ রিয়াদ, চকোরিয়া:
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৬ জানুয়ারি, ২০২৩
  • ১১৯ বার

ঘোনারপাড়ায় আশে পাশে কোন ভাল ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বলতে নেই বলে চলে। যার কারনে এলাকার সন্তানরা ধর্মীয় শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়ে যাচ্ছে প্রতি বছরে। ভাল পরিবেশও বলতে একটু কম বলে চলে তাই একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করার রাতদিন চিন্তা-ভাবনা করে যাচ্ছেন স্থানীয় জামে মসজিদের এক হুজুর মৌলানা মুহাম্মদ উল্লাহ। বর্তমান তিনি অত্র মাদারাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। এলাকায় ভাল ধর্মীয় শিক্ষার আলো জ্বালাবার কারো মাথা ব্যাথা ছিল না তাই তিনি গত ১লা জানুয়ারী ২০১৯ইং সালে একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের যাত্রা শুরু করে দেন চকোরিয়া উপজেলাস্থ ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন হাসেঁরদীঘি রিংভং ৯নং ওয়ার্ড ঘোনারপাড়া শেখ নুর আহাম্মদ (রাঃ) তা’লীমুল কোরআন নূরানী মাদরাসা ও এতিমখানা মাদরাসা। মাদরাসায় বর্তমানে মোট ৭০জন শির্ক্ষাথী আছেন। এখানে শিক্ষক-শিক্ষিকা রয়েছে মাদরাসার পরিচালকসহ মোট (০৫) জন। একেবারে নুন্যতম অল্প বেতনে সময় দিয়ে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীদের পিছনে শিক্ষক-শিক্ষিকারা। মাদারাসায় প্রায় (৪০,০০০) টাকা ব্যয় হয় প্রতি মাসে। এই খরচ বহন করতে হিমশিম খেতে হয় শিক্ষকদের কাছে। তারপরও হাল ছেড়ে দেন নাই কারন শুধু মাত্র শিক্ষার্থীদের পেছনে দ্বীনি পরিবেশ গড়ে তোলার জন্য রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন মাদরাসার শিক্ষকরা। সেই ২০১৯ইং সাল থেকে খোলা আকাশের নিচে বাড়ির পাশে নূরানী থেকে শুরু করে ৩য় শ্রেণীর শিক্ষার্থীদেরকে পাঠদান করে আসছে।

শিক্ষার্থীদের পাঠদানের জন্য ক্লাসের সুন্দর পরিবেশ দেওয়ার মতো কোন ধরনের সহযোগীতা পাচ্ছে না নিজের হাতে যা পেরেছে তাই ব্যবস্থা করে যাচ্ছেন। নিজের অর্থায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য টিন দিয়ে তৈরী করছেন সেটি সম্পন্ন হতে দু-এক সপ্তাহের মধ্যে সময় লাগবে বলে আশা করছেন পরিচালক মুহাম্মদ উল্লাহ। এখানকার এলাকার মানুষগুলো খুবই আর্থিক দুর্বল হওয়ার কারনে হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানান মাদরাসার পরিচালক মাওলানা মুহাম্মদ উল্লাহ। এদিকে সাংবাদিক শাহরিয়ার মাহমুদকে সাক্ষাৎ দিতে কান্নায় জড়িত হয়ে বলেন, আমার কোন কিছু চাওয়া পাওয়া নেই শুধু চাওয়া পাওয়া হলো এলাকার সন্তানরা দুনিয়া ও পরকাল কিভাবে চিনবে কিভাবে সুন্দরভাবে চলবে তাই ধর্মীয় শিক্ষা দেয়ার জন্য আমার এই প্রচেষ্ঠা আর মাদরাসা যেন অবহেলার দিকে না পড়ে তাই আমি সকলের কাছে আন্তরিকভাবে সহযোগীতা কামনা করছি মোবাইল নং: ০১৮৩৪৫৮৫৫৫৩।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম