1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ফের রাতে দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৮:২৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
বর্তমান এবং  ভবিষ্যৎ প্রজন্ম একটি সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশের গর্বিত নাগরিক হবে – মো. তাজুল ইসলাম, (এলজিইডি মন্ত্রী) পোকখালী’র ইউপি চেয়ারম্যান জামিনে মুক্ত চৌদ্দগ্রামে ইউনাইটেড ফর হিউমিনিটি’র অভিষেক ও দুর্ঘটনায় আহত শিক্ষকের মাঝে অর্থ হস্তান্তর ভিসির নির্দেশে বন্ধ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজন, মানেনি কুবি শিক্ষকরা ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সাথে বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের মতবিনিময় ফুলবাড়িতে ত্রিমুখী লড়াইয়ে এগিয়ে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী ঘূর্ণিঝড়ে রাউজানে দুইটি ঘর বিধ্বস্ত, বিচ্ছিন্ন  বিদ্যুৎ সংযোগ  রাশিয়া তালেবানকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে বৃহত্তর বার্ষিক অর্থনৈতিক ফোরামে উদাহরণ দিয়ে বলতে পারবেন না, কোথাও আমরা মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছি – সেনা প্রধান  ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জের রেজিয়া হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন বিষয়ে – পুলিশের প্রেস ব্রিফিং !

অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ফের রাতে দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ

লাকসাম-মুদাফরগঞ্জ সড়ক

এম. এ মান্নান :
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ১১৯ বার

লাকসাম-মুদাফরগঞ্জে সড়কের পাশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের (সওজ) জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ফের রাতের অন্ধকারে দখল করে দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
দখল কারীরা উপজেলার কান্দিরপাড়া ইউনিয়ন খুন্তা গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানে ছেলে করিম, কবির হোসেন ও তারেক হোসেন।
তারা-দোকান নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে অনেকটাই এগিয়ে গেছে বলেও জানা গেছে।
দখলকারীর বিরুদ্ধে গত ৩০ জানুয়ারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা,সহকারী কমিশনার ভূমি ও ৩১ জানুয়ারীতে কুমিল্লা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসেম।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লা-নোয়াখালী
আঞ্চলিক মহাসড়ক ও কুমিল্লা-চাঁদপুর আঞ্চলিক সড়কের সঙ্গে সংযুক্ত লাকসাম-মুদাফরগঞ্জ ৭ কিঃ সংযোগ সড়ক।এ সড়কটি সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের আওতায় রয়েছে। সে-ই সড়কের দুই পাশে খালি জায়গায় রয়েছে ৪০ ফুট আবার কোথাও কোথাও এলাকায় রয়েছে ২০ থেকে ২৫ ফুট সওজের রেকর্ডভুক্ত জায়গা। মিশ্রী মোড় থেকে উপজেলার মুদাফরগঞ্জ বাজার বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত সড়কের দুই পাশে থাকা জায়গাগুলো স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে অবৈধভাবে তৈরী করছেন বিভিন্ন স্থাপনা। এ-সব জায়গায় অনেকে পাকা ঘর নির্মাণ করছেন। কেউ আবার সওজের জায়গা ভরাট করে রাস্তা, দোকান, ইটভাটা ও ছোট-বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করে স্থানীয়দের জনজীবন হুমকিতে ফেলছেন।দীর্ঘ বছর ধরে দখলে থাকা ব্যক্তিদেরকে দখল মুক্ত করতে
গত বছর ৫ জুলাই স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন সড়ক ও জনপদ বিভাগ। ও-ই দিন উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয় মুদাফরগঞ্জ বাজার ও খুন্তা বাজার এলাকায়। এ ছাড়াও সড়কে পাশে যেসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ বাকী রয়েছে সেগুলোতে যে কোন সময় অভিযান চলবে বলে সড়ক জনপদ উপ-বিভাগের প্রকৌশলী শফিকুর রহমান ভূইয়া জানান। এসময় অভিযানের নেতৃত্ব দেন লাকসাম উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারহানুর রহমান এবং সড়ক জনপদ বিভাগ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

বুধ বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়,
খুন্তা বাজার এলাকায় সড়কের উত্তর পাশে সওজের জায়গায় দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করেন স্থানীয় ব্যবসায়ী মোঃ করিম, কবির হোসেন ও তারেক হোসেন। তারা সওজের জায়গার মধ্যে প্রায় ৪০ ফুট ×২৫ ফুট দখল করে লোহার অ্যাঙ্গেল মধ্যে টিন দিয়ে একটি দোকান নির্মাণ করেছেন। সেই নির্মাণ ঘরে উপর একটি সাইনবোর্ডে লেখা রয়েছে কবির ইলেকট্রনিকস এন্ড রেক্সিজারেশন ও মোবাইল সার্ভিসং সেন্টার। নির্মাণ ঘরের সামনে ইট ও বালু রেখেছে দখলকারী। এসময় খুন্তা বাজার ব্যবসায়ী মানু মিয়া,বাচ্চু মিয়া,আবদুর রহিম ও বাবুল মিয়া বলেন, সওজের জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে দখলে ছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম তিনি এখানে ব্যবসা করতেন। ৭/৮ মাস পূর্বে সরকারি নির্দেশনায় অভিযানে তার দোকান ঘর ভাংচুর করে উচ্ছেদ করা হয়। এর পর থেকে এ জায়গাটি খালি পরে থাকে। গত তিনদিন আগে দোকানী শেষে রাতে বাড়িতে যাওয়ার সময় দেখি খালি জায়গা,সকালে দোকানে আসার সময় দেখি স্থানীয় কবির হোসেন সেই উচ্ছেদ জায়গায় মধ্যে দখল করে ঘর নির্মাণ করেছে।
এ বিষয়ে কবির হোসেনে’র কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে বলেন, নিজের সম্পত্তির উপর দোকান নির্মাণ করছেন। পরক্ষণেই বলেন, আমি রাষ্ট্রের কাছ থেকে লিজ নিয়ে দোকান নির্মাণ করছি। এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগ কোনো নোটিশ দেয়নি। নোটিশ দেয়ার আগ পর্যন্ত আমি দোকান নির্মাণ করতে পারবো।
স্থানীয় বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাসেম বলেন,খুন্তা মৌজার ২ নং খতিয়ান ২৮৮ দাগের মধ্যে আমার পৈত্রিক সম্পত্তি ছিলো। এ সম্পত্তির থেকে সড়ক ও জনপদ বিভাগে সরকার রেকর্ড করে নেওয়া হয়েছে।’ সেই জায়গায় ৩৫ ফুট×১৮ ফুট পাকা দেয়াল ও টিনের চাল যুক্ত একটি ঘর নির্মাণ করি। গত ৬০ -৭০ বছর ধরে ঘরটি ভোগ দখল করে ব্যবসা করছি। গত ৭/৮ মাস আগে সরকারি আদেশ মতে দোকান ঘরটি উচ্ছেদ করা হয়। সেই জায়গায় আমার চাচাতো ভাইয়েরা রাতের অন্ধকারে ও গোপনে দখল করে ঘর নির্মাণ করে। তাই আমি কবির গংদের বিরুদ্ধে ৩০ জানুয়ারী উপজেলা নির্বাহী,সহকারী কমিশনার ভূমি ও ৩১ জানুয়ারী কুমিল্লা সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী নিকট লিখিত অভিযোগ করিছি।
সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর লাকসাম আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-সহকারি প্রকৌশলী বশির খান বলেন,উদ্ধারকৃত জায়গা আবারও অবৈধভাবে দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করছে এমন একটি অভিযোগ এসেছে। আমরাও খুব দ্রুত অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করব।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম