1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে ভালোবেসে ২ যুগ একসাথে নীল-গীতা দম্পতি ! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

ঠাকুরগাঁওয়ে ভালোবেসে ২ যুগ একসাথে নীল-গীতা দম্পতি !

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ৯৫ বার

ছোটোবেলা থেকে নানা কটু কথা শোনতে হয়েছে নীলকান্তকে। উচ্চতায় ছোট হওয়ায় সবাই দেখত আলাদা চোখে। যেন মানুষের সাথে বসবাস করেও মনে হত আলাদা এক প্রাণি৷ অল্পতেই কথার আঘাতে ব্যাথা দিতেন প্রতিবেশীরা। এতে বাদ দেননি নিজের পরিবার ও আত্মীয় স্বজনরা৷ মানুষের সব কথাকে উপেক্ষা করে জীবন তরী চালাতে পিছপা হয়নি নীল৷ সমবয়সীদের সাথে তাল মিলিয়ে করেছেন পড়াশোনাও৷ স্বপ্ন ছিল ভালো চাকরি করার। বাবার সমস্যায় এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে না পারায় সে স্বপ্ন আর আলোর মুখ দেখেননি। চাকরির স্বপ্নে ব্যর্থ হলেও ভালোবাসার স্বপ্নে সফল তিনি। সবাই যখন তার ভবিষ্যতে বিয়ে নিয়ে দুশ্চিন্তায় বিভোর। তখনি জীবনকে রঙিন করে সাজিয়ে নিতে আসেন গীতা রাণী। একই উচ্চতা আর মনের মিল হওয়ায় ভালবাসার শুরুটা হয় তাদের। কয়েকমাস একজন আরেকজনকে চেনা-জানার পর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হোন তারা৷ দুজনে উচ্চতায় ছোট হয়ে, সমাজের মানুষের কটু কথাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে একসাথে তারা৷ যেন ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ জুটির এক অনন্য নিদর্শন। সময়ে-অসময়ে এক সাথে থেকে ভালবাসার বয়স পেরিয়েছে ২৫ বছর৷ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নারগুন ইউনিয়নের জোতপাড়া গ্রামের বাসিন্দা নীলকান্ত ও গীতা দম্পতি। সাংসারিক জীবনে এক মেয়ে সন্তানের পিতা-মাতা তারা৷ একসাথে দীর্ঘ দুই যুগ ধরে সংসার করছেন তারা। একজন যেন আরেকজনের পরিপূরক। হাজারো অভাবে ছেড়ে যাননি একে-অন্যকে। তাদের ভালোবাসার এমন দৃষ্টান্ত নজর কেঁড়েছে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের৷ স্থানীয় প্রতিবেশী স্কুল শিক্ষিকা সাবিত্রী রাণী বলেন, তারা শুধুমাত্র দেখতে খাটো৷ এটিই তাদের একটা অপূর্ণতা। সবার জীবনেই একটা না একটা সমস্যা থাকে৷ তাদের জীবনে এরকমটাই ছিল৷ তবে তাদের যে মিল মহব্বত এটা অনেক বেশি৷ আমরা তাদের মাঝে কখনো বড় কোন সমস্যা দেখিনি। তারা সবসময় হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করে৷ তাদের মত স্বামী-স্ত্রী প্রতিটা সংসারে হওয়া উচিত। ভালোবাসা দিবসে স্বামী ও স্ত্রী নীল ও গীতা দম্পতির মেয়ে লিপা বলেন, আমার বাবা-মা আমার জন্য অনেক কষ্ট করেছেন৷ আমাকে পড়াশোনা করিয়েছেন। এখনো আমি যাতে করে আমার পরিবারকে নিয়ে সুখি হয় সে জন্য পরিশ্রম করেন৷ অনেকজনে আমার বাবা-মা কে নিয়ে কটাক্ষ করে।

আমি কষ্ট পেলেও মনে করি আমার বাবা- মা সেরা। আর তাদের মধ্যে সম্পর্কে কোনো ধরনের ফাটল নেই৷ নীলকান্তের বউ গীতা রাণী বলেন, আমরা একসাথে থাকতে পেরে অনেক খুশি। অভাবতো সবার সংসারে থাকে। আমাদেরও অভাব আছে৷ বাইরে কাজ করলে আমাদের পারিশ্রমিক কম দেওয়া হয়। তারপরেও থেমে তো আর থাকা যায় না৷ আমরা একসাথে ২৫ বছর ধরে আছি। বাকি সময়টা একসাথে কাটাতে চায়৷ নিজের সমস্যার কথাগুলোকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নীলকান্ত বলেন, চার ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট আমি। হয়তো সৃষ্টিকর্তা আমাকে এভাবেই পৃথিবীতে বাঁচাতে চেয়েছেন৷ তিনি আমাকে ভাল রেখেছেন। মানুষের কটু কথা শোনেও আমি পড়াশোনা চালিয়ে গেছি। তবে সমস্যার কারণে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা হয়নি৷ তারপরে কাজ করে সংসার চালায়৷ এক মেয়ে আমার। তাকে পড়াশোনা করিয়ে বিয়ে দিয়েছি৷ বাবার দেওয়া ভিটেমাটি ছাড়া আর কিছু নেই৷ শুধু যে ঘরটিতে আমি থাকি সেটি আমার। বাবা-মায়ের ঘরটা মায়ের নামে৷ কিছুদিন আগে বাবা মারা গেছেন। মা আমার নামে জমিটা দিতে চান৷ তবে সেটি আমার নামে করে নেওয়ার মতো কোনো খরচ আমার নেই৷ কয়েক মাস আগে এক দোকানে থাকতাম। সেটা বাদ দিয়ে এখন দিনমজুরি করি৷ ঘরটাও আমার প্রায় ভাঙা। টাকার অভাবে সংস্কার করতে পারছি না৷ তারপরও আমার স্ত্রী সঙ্গ দিয়ে আসছেন৷ কখনো তিনি আমাকে হতাশ করেননি। সবসময় আমাকে সার্পোট দিয়ে থাকেন৷ এটি আমার জীবনের বড় প্রাপ্তি। আর ঘর সংস্কারের জন্য আমাকে আপনারা সহযোগিতা করতে পারেন৷ নারগুন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সেরেকুল ইসলাম বলেন, তারা আমার ইউনিয়নে স্বামী-স্ত্রীর একটি সেরা জুটি। যদিও তারা পারিবারিক ভাবে অস্বচ্ছল। তবে তাদের যে সম্পর্ক এটি আলাদা দম্পতিদের জন্য শিখনীয়৷ তাদের প্রতিবন্ধী ভাতা করে দেওয়া হয়েছে৷ এ ছাড়াও আমরা চেষ্টা করি তাদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোর৷ তার এখন ঘর সংস্কারের দরকার। সকলে তার পাশে এগিয়ে আসা দরকার৷ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মো. শামসুজ্জামান বলেন, তাদের ভালবাসার কথাগুলো শোনে বেশ ভালো লাগলো। তাদের দেখতে অনেক সুন্দর লাগছে। ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা প্রশাসন তাদের পাশে সব সময় থাকবে৷

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম