1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ দুনীতির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন। - দৈনিক শ্যামল বাংলা
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম:
নবীনগরে কোটাপদ্ধতি সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল রাউজানে তিনদিন ব্যাপী বৃক্ষ মেলার উদ্বোধন রাউজানে ৬০ প্রজাতির ১ লাখ ৮০ হাজার ফলজ ও ঔষধি গাছের চারা রোপন কর্মসূচি উদ্বোধন মাগুরায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শরিয়াতউল্লাহ হোসেন রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান  *জরুরী রক্ত প্রয়োজন*রক্তের গ্রুপ: AB+ (এবি পজেটিভ) ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে চৌদ্দগ্রামে তিন ছাত্রলীগ নেতার পদত্যাগ কক্সবাজারে সাংবাদিকদের উপর আ’লীগ-ছাত্রলীগের হামলা সারাদেশে ছাত্রসমাজের উপর মর্মান্তিক হামলার প্রতিবাদ ও কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে দোহাজারীতে বিক্ষোভ মিছিল  এমএসআর’র ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা লুটপাট সমস্যায় জর্জরিত চট্টগ্রামের চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স-অধিকাংশ চিকিৎসক অনুপস্থিত থাকেন নবীনগরে কুতুবিয়া দরবার শরীফে শাহাদাতে কারবালা মাহফিল অনুষ্ঠিত

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ দুনীতির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন।

এ এইচ মোবারক নিজস্ব প্রতিনিধি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২৪
  • ১১৭ বার

শনিবার ১৩ জানুয়ারি ২০২৪ ইং সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের মওলানা মোহাম্মদ আকরাম খাঁ হলে “বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক ফেরত” বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

সাবেক ছাত্র আইন বিভাগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রধানমন্ত্রী থেকে স্বর্ণপদক প্রাপ্ত মোঃ নুরুল হুদা এর উদ্দ্যাগে এই সংবাদ সম্মেলন।

মোঃ নুরুল হুদা সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি
বলেন। ২০১০-১১ সেশনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ভর্তি হই এবং ২০১৪ সালে এলএল.বি (সম্মান) পরীক্ষায় সিজিপিএ-৩.৬৫৪ ও ২০১৫ সালে এলএল এম (মাস্টার্স) পরীক্ষায় সিজিপিএ-৩.৬০৭ অর্জন করি। এলএল.বি (সম্মান) পরীক্ষার ফলাফলে আইন অনুষদে প্রথম স্থান অর্জন করায় ২০১৭ সালে বিশ্ববিদ্যালয় স্বর্ণপদক এবং ২০১৮ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত থেকে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক গ্রহণ করি।

আমি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮ সালের ০৭/২০১৮ নং শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুসারে আইন বিভাগে আবেদন করার পর থেকেই বিভিন্ন অনিয়মের শিকার হই যার ফলশ্রুতিতে উক্ত নিয়োগে আমার চাকুরি হয়নি।

উল্লেখ্য যে, ১৩/১১/২০১৮ ইং তারিখে আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড সম্পন্ন হয় এবং উক্ত নিয়োগ ১৭/১১/২০১৮ ইং তারিখে অনুষ্ঠিত ৪৮৫ তম সিন্ডিকেটে পাশ হয়। নিয়োগ বোর্ডের পূর্ব মুহুর্তে ০৮/১১/২০১৮ ইং তারিখে নিয়োগ বোর্ডের অন্যতম সদস্য ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া আমার স্ত্রীকে অবৈধ আর্থিক লেনদেনের প্রস্তাব দেন (আমি প্রস্তাবে রাজি হইনি), উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো: জাকারিয়ার ভাগনে ও ম্যাটেরিয়াল সায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক গাজী তৌহিদুর রহমান কৌশলে আমার নিকট বিভিন্ন অনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করেন (উপ-উপাচার্য জাকারিয়ার ভাগনে গাজী তৌহিদুর রহমান কৌশলে আমার মাধ্যমে তার ব্যক্তিগত ল্যাপটপের প্রসেসর ক্রয় ও মেরামত, পোশাকসহ বিভিন্ন সামগ্রী ক্রয় করে নিলেও এবং আমি উক্ত সামগ্রীর ক্রয়ের অর্থ চাওয়ার পরও আমাকে কোনো অর্থ প্রদান করেননি) এবং নিয়োগ বোর্ডের আরেক সদস্য ও আইন বিভাগের তৎকালীন সভাপতি প্রফেসর আব্দুল হান্নান ০৪/১১/২০১৮ ইং তারিখে আমার নিকট ২ (দুই) লক্ষ টাকা ধার নেন। নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য আব্দুস সোবাহানকে নিয়োগ বোর্ড এবং সিন্ডিকেটের পূর্বে আমার নিকট প্রফেসর আব্দুল হান্নানের ধারের বিষয়ে এবং আমার স্ত্রীর নিকট উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো: জাকারিয়ার অবৈধ আর্থিক লেনদেনের প্রস্তাবের বিষয়ে অবহিত করা হলেও উপাচার্য আব্দুস সোবাহান কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করেই প্রফেসর আব্দুল হান্নান ও উপ- উপাচার্য চৌধুরী মোঃ জাকারিয়াকে নিয়েই ১৩/১১/২০১৮ ইং তারিখে আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড সম্পন্ন করেন এবং উক্ত প্রশ্নবিদ্ধ ও সুবিধাভোগী (ইন্টারেস্টেড) সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত নিয়োগ বোর্ডের সুপারিশের প্রেক্ষিতে আইন বিভাগে বনশ্রী রানী, সালাউদ্দিন সাইমুম ও নার নুসরাত সুলতানাসহ মোট ০৩ (তিন) জন শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়। উল্লেখ্য যে, এলএল.বি (সম্মান) পরীক্ষার ফলাফলে আমি আইন বিভাগে নিয়োগ প্রাপ্ত সকলের থেকে এগিয়ে ছিলাম।
আরও লক্ষ্যনীয় যে, উপাচার্য আব্দুস সোবাহান দ্বিতীয় মেয়াদে উপাচার্য হওয়ার পর বিদ্যমান শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা পরিবর্তন করে নতুন নীতিমালা প্রনয়ন করেন, পূর্বের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা অনুযায়ী সালাউদ্দিন সাইমুম ও নূর নুসরাত সুলতানা কেউই শিক্ষক হিসেবে আবেদন করার যোগ্য ছিলেন না।
এখানে উল্লেখ্য যে, নিয়োগের পর সালাউদ্দিন সাইমুমের সাথে উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোঃ জাকারিয়ার মেয়ের বিয়ে হয় এবং নূর নূসরাত সুলতানার সাথে আইন বিভাগের শিক্ষক শিবলী ইসলামের বিয়ে হয়।
এছাড়া বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন আইন বিভাগের উক্ত শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডটিকে অবৈধ বলে গণ্য করেছে।

উক্ত নিয়োগে আমার চাকরি না হওয়ার প্রায় ১০ মাস পর ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং তারিখে আমার অজ্ঞাতসারে আমার স্ত্রীর নিকট উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো: জাকারিয়ার অবৈধ আর্থিক লেনদেনের প্রস্তাবের অডিও রেকর্ড বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফাঁস হওয়ার পর সারাদেশে তোলপাড় শুরু হলে উপ- উপাচার্য চৌধুরী মো: জাকারিয়া আমার নিকট নিজের ভুল স্বীকার করেন এবং উপ-উপাচার্য চৌধুরী মেত্র জাকারিয়া ও উপাচার্য আব্দুস সোবাহান চাকুরি ও ক্ষতিপূরণের প্রস্তাব প্রদান করে বিষয়টি নিয়ে চুপ থাকতে বলেন।
কিন্তু আমি উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোঃ জাকারিয়া ও উপাচার্য আব্দুস সোবাহানের চাকুরি ও ক্ষতিপূরণের অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি হইনি। পরবর্তীতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে গঠিত বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটির নিকট ১৭ ও ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং তারিখে উপস্থিত হয়ে আমি ও আমার স্ত্রী বাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য এবং বিভিন্ন অনিয়মের যাবতীয় তথ্য-প্রমাণ উপস্থাপন করি।
ইউজিসির তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ১ ও ২ নং পর্যবেক্ষণে ২০১৮ সালের ০৭/২০১৮ নং শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুসারে গঠিত আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আব্দুস সোবাহান, নিয়োগ বোর্ডের অন্যতম সদস্য ও উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোঃ জাকারিয়া, উপ- উপাচার্য জাকারিয়ার ভাগনে গাজী তৌহিদুর রহমান এবং আইন বিভাগের শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডের আরেক সদস্য ও আইন বিভাগের সভাপতি প্রফেসর আব্দুল হান্নানের বিরূদ্ধে আনীত শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, উপাচার্য আব্দুস সোবাহান দ্বিতীয় মেয়াদে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হওয়ার পর পূর্বের ২০১৫ সালের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা বাতিল করে শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতার ক্ষেত্রে শিথিল শর্ত আরোপ করে ২০১৭ সালে নতুন শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা সিন্ডিকেটে পাশ করা হয়। মূলত ব্যক্তি স্বার্থ ও ইচ্ছা চরিত্রার্থ করার লক্ষ্যে নতুন নিয়োগ নীতিমালা প্রণয়ন করা হয় যা

ইউজিসির তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। ইউজিসির তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী বিভিন্ন বিভাগ, ইনস্টিটিউটে যোগ্য প্রার্থীদের বাদ দিয়ে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে ৩৪ জন অপেক্ষাকৃত কম যোগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থীদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে যারা ২০১৫ সালের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা অনুযায়ী আবেদনের অযোগ্য ছিল। এর মধ্যে উপাচার্য আব্দুস সোবাহানের জামাই বিভাগে ৬৭ তম ও মেয়ে ২১ তম হয়েও শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন কিন্তু পূর্বের ২০১৫ সালের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা অনুযায়ী উপাচার্য আব্দুস সোবাহানের মেয়ে ও জামাই কেউই আবেদন করার যোগ্য ছিলেন না। কেননা পূর্বের নিয়োগ নীতিমালা অনুযায়ী বিভাগে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের ফলাফলে ১ম থেকে ৭ম পজিশনে থাকা বাধ্যতামূলক ছিল।

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর এবং শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে গঠিত বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে তাদের তদন্ত প্রতিবেদনে ১৩/১১/২০১৮ ইং তারিখে সম্পন্ন হওয়া আইন বিভাগের উক্ত শিক্ষক নিয়োগ বোর্ডটিকে অবৈধ ও বাতিল ঘোষণার পাশাপাশি ২০১৭ সালের শিক্ষক নিয়োগ নীতিমালা অনুযায়ী নিয়োগপ্রাপ্ত উপাচার্য আব্দুস সোবাহানের মেয়ে ও জামাতাসহ মোট ৩৬ জন শিক্ষকের নিয়োগ বাতিলের সুপারিশ করে। পাশাপাশি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য ও অনিয়মের সাথে জড়িত থাকায় উপাচার্য আব্দুস সোবাহান, উপ-উপাচার্য চোধুরী মো: জাকারিয়াসহ প্রায় হাফ ডজন ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে। ইউজিসির তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রকাশের পর ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সব ধরনের নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।
কিন্তু শিক্ষা৷
আবারো ৩টি পদে শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তদন্তপূর্বক ইউজিসির তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের ৩ বছর পার হয়ে গেলেও আজ পর্যন্ত আইন বিভাগসহ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বা শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কোন দৃশ্যমান ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ পর্যন্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরবিপ্রবি), বাংলাদেশ ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্তত ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেন, স্বজনপ্রীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে নিয়োগ প্রদানের অভিযোগ রয়েছে। এর মধ্যে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) কর্তৃক প্রায় ১৪টির তদন্ত প্রতিবেদন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে জমা পড়েছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত দোষী ব্যক্তিদের কারো বিরুদ্ধেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির তদন্ত করতে গিয়ে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটি তাদের তদন্ত প্রতিবেদনের ১৯.১০ নং পর্যবেক্ষণে মন্তব্য করেছেন, ‘উপ-উপাচার্য চৌধুরী মো: জাকারিয়া ও চাকুরী প্রার্থী নুরুল হুদার স্ত্রী আজিজা তুজ সাদিয়ার ভাইরাল হওয়া কথোপকথন ও সাক্ষ্য থেকে স্পস্ট বোঝা যায় যে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগে টাকা লেনদেন একটি ওপেন সিক্রেট বিষয়। এতে প্রমাণিত হয় যে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী নিয়োগের জন্য প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রাপ্ত প্রার্থীদেরকেও শিক্ষকদের পিছনে ধর্ণা ধরতে হয় কিংবা অর্থ লেনদেন করতে হয়।’ প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক প্রাপ্ত হয়েও নিয়োগের জন্য শিক্ষকদের পিছনে ধর্ণা ধরা কিংবা অর্থ লেনদেন করা পক্ষান্তরে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদকের অবমাননার শামিল।/

শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগের মতো গুরুত্বপূর্ণ সেক্টরে আর্থিক লেনদেন, স্বজনপ্রীতি ও অনিয়ম দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাবে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আমি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ঘটে যাওয়া শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রধানমন্ত্রী স্বর্নপদক প্রত্যাখ্যান করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম