1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
ঠাকুরগাঁওয়ে অনেক হিমাগারে শ্রমিক চেম্বারের ভোটার ! - দৈনিক শ্যামল বাংলা
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৭:০২ অপরাহ্ন

ঠাকুরগাঁওয়ে অনেক হিমাগারে শ্রমিক চেম্বারের ভোটার !

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৪৪ বার

মোঃ মজিবর রহমান শেখ,

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি

,দীর্ঘ ১২ বছর পর ঠাকুরগাঁও চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে ভোট গণনা চলছে। ৫ হাজারের অধিক ভোটারের মধ্যে অনেকেরই নেই ব্যবসয়িক লাইসেন্স (ট্রেড লাইসেন্স) অথচ ভোটারের লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট প্রদান করছে এমন ভোটারের সংখ্যাও কম নয়। সদরের পল্লি বিদ্যুৎ থেকে ভোট দিতে এসেছেন এক মোটরসাইকেল মেকানিক্স। নিজস্ব বৈধ ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানের নাম বলতে পারেননি। নেই ট্রেড লাইসেন্স। তবে হাস্যোজ্জল মুখে দিব্বি ঠাকুরগাঁও চেম্বার অব কমার্সের নির্বাচনে ভোট প্রদান করলেন তিনি। এই ভোটার জানালেন মুঠোফোনে তাকে জানানো হয়েছে তিনি ঠাকুরগাঁও চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির ভোটার। এ ছাড়াও বিভিন্ন সময় বিভিন্ন হিমাগারে কাজ করে এমন শ্রমিকদের একাংশ কে ভোট প্রদান করতে দেখা গেছে। ঔষুধ কোম্পানিতে চাকরি করে এমন ব্যক্তিও ঠাকুরগাঁও চেম্বারের ভোটার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হিমাগারে কাজ করা এক শ্রমিক বলেন, এখন আমি হিমাগারে কাজ করি। কিন্তু আমার বংশ পরম্পরায় ব্যবসায়ী। তাই আমি চেম্বারের ভোটার। আমার হিমাগার মালিক আমাকে এমন সুযোগ করে দিয়েছেন। আমাদের ঠাকুরগাঁওয়ের অনেক হিমাগারের শ্রমিকরা আজ ভোট দিয়েছি। আমাদের সবারই ভোটার তালিকায় নাম আছে। ঔষুধ কোম্পািনিতে চাকরি করেন মো. মিলন। বর্তমানে তিনি রুহিয়া কলেজেও অধ্যয়নরত। বোট প্রদান করে জানালেন তিনিও মোবাইলে জানতে পেরেছেন ভোটের কথা। এর আগে এলাকার কোনো এক ছোট ভাই তার থেকে আইডি কার্ড আর ছবি জমা নিয়েছিলেন। ঠাকুরগাঁও সরকারি কলেজে রাষ্ট্র বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করছেন দুলালি আক্তার। জানান নিজ বাড়িতে তার একটা দুলালি ফার্মেসি নামের প্রতিষ্ঠান আছে। যার ট্রেড লাইসেন্স আর ড্রাগ লাইসেন্স কোনটিই মনে নেই তার। তিনি বলেন, মামা হিমাগারে ম্যানেজার। তিনি ভোটার হতে সাহায্য করেছেন। জাতীয় তেল গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি ঠাকুরগাঁও সদস্য সচিব মো. মাহবুব আলম রুবেল বলেন, দীর্ঘ ১২ বছর যাবৎ ঠাকুরগাঁও চেম্বারের ভোট অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক আমরা দেখছি এখানে সাধারণ শ্রমিকসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ ভোটার হয়েছে। অনেকেই আছে যারা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত না। তাহলে অন্য যে প্যানেলটি অভিযোগ করেছে নিরপেক্ষ ভোটার তালিকা হয়নি। সেটার প্রমাণ আমরা পাচ্ছি। এই নির্বাচনে ব্যবসায়ীরা তাদের সঠিক প্রতিনিধি নির্বাচনে ব্যর্থ হয়েছে। ভোটারের প্রসঙ্গে ঠাকুরগাঁও চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি নির্বাচনী বোর্ডের আহ্বায়ক ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. বেলায়েত হোসেন বলেন, ভোটার তালিকা নিয়ে বেশ কিছু প্রার্থী অভিযোগ করছেন। খসড়া তালিকা প্রকাশের পর অভিযোগ আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে তা জানানোর সুযোগ ছিল। নির্ধারিত সময়ে আপিল কর্তৃপক্ষ বরাবর ভোটার তালিকা নিয়ে যে অভিযোগ করা হয়েছিল তা নিষ্পত্তি হয়েছে। আপিল নিষ্পত্তির পর চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের পর অভিযোগ করায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়নি।
এদিকে ভোটের একদিন আগে রাতে সংবাদ সম্মেলনে ৭ কারণ উল্লেখ করে ঠাকুরগাঁও চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দুইটি প্যানেলের মধ্যে আলমগীর-মুরাদ ও সুদাম প্যানেল ভোট বর্জন করেছে। এ সময় প্রার্থীরা নির্বাচনের নানা অনিয়ম, ভোটার তালিকা নিয়ে অসঙ্গতিসহ নানা কারণ উল্ল্যেখ করেন।
এর আগে গত ১৩ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলন করে ভোটার তালিকা সংশোধন ও নির্বাচনের তারিখ পেছানোর জন্য নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের কাছে আবেদন জানিয়েছিল প্যানেলটি। সে সময় ভোটের মাঠে থাকার কথা জানালেও অবশেষে তারা ভোট বর্জন করেছেন।
ভোটের মাঠে এককভাবে লড়াই করছেন দুলাল-বাবলু ও আরমান প্যানেল। মোট ভোটের সংখ্যা ৫ হাজার ৩৩৮ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম