1. nerobtuner@gmail.com : শ্যামল বাংলা : শ্যামল বাংলা
  2. info@shamolbangla.net : naga5000 : naga5000 naga5000
চৌদ্দগ্রামে অর্থের বিনিময়ে সদনহীন আনসারদের মাঝে নির্বাচনী দায়িত্ব বন্টনের অভিযোগ - দৈনিক শ্যামল বাংলা
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৭:১৫ অপরাহ্ন

চৌদ্দগ্রামে অর্থের বিনিময়ে সদনহীন আনসারদের মাঝে নির্বাচনী দায়িত্ব বন্টনের অভিযোগ

রিপোর্টার নাম
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১ জুন, ২০২৪
  • ১৭ বার

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:

চতুর্থ ধাপে আগামী ৫ জুন (বুধবার) অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। ভোটগ্রহণের দিন নির্বাচনী কেন্দ্রে প্রশাসনের অন্যান্য বাহিনীর সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আনসার ভিডিপির প্রশিক্ষিত সদস্যরা। এরই মধ্যে আনসারদের দায়িত্ব বন্টন ও প্রশিক্ষণ প্রক্রিয়া শেষের দিকে। তবে, সনদধারী ও প্রশিক্ষিতদের বাদ দিয়ে ১ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ নিয়ে সনদহীন ও অপ্রশিক্ষিতদের মাঝে দায়িত্ব বন্টনের অভিযোগ উঠেছে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয়ের বিরুদ্ধে। এ ঘুষ বানিজ্যের সাথে সরাসরি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন আনসার কমান্ডারগণ সহ উপজেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয় জড়িত বলে জানিয়েছে ভুক্তভোগি আনসার সদস্যরা।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ভোটকেন্দ্রে নিরাপত্তার দায়িত্বে অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে কাজ করবেন আনসার-ভিডিপি সদস্যরাও। নির্বাচনের দিন প্রতিটি কেন্দ্রে একজন দলনেতা সহ ১৩ জন আনসার সদস্য দায়িত্বে থাকবেন। চৌদ্দগ্রামে ১৪৬টি কেন্দ্রের জন্য ১৪২ গ্রুপে সর্বমোট ১ হাজার ৮৪৬ জন আনসার সদস্য নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। প্রত্যেক সদস্য নির্বাচনের দিন দায়িত্ব পালনের জন্য ৬ হাজার টাকা করে সম্মানী ভাতা, ২০০ টাকা যাতায়াত খরচ ও ২৫০ টাকা খাওয়ার বিল পাবেন।

আনসার-ভিডিপি সূত্রে জানা গেছে, নিয়মানুযায়ী প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা এ দায়িত্ব পালনে অগ্রাধিকার পেয়ে থাকেন। কিন্তু আনসার-ভিডিপির চৌদ্দগ্রাম উপজেলা কমান্ডার মুস্তাকিমুল হক ইউনিয়ন কমান্ডারদের সহযোগিতায় টাকার বিনিমিয়ে প্রকৃত সনদধারীদের বাদ দিয়ে সনদহীন ব্যক্তিদের নিয়োগ দিচ্ছেন। এজন্য প্রতিটি গ্রুপ থেকে তিনি কমপক্ষে ১৩ হাজার টাকা করে নিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন সনদধারী অনেক আনসার সদস্য। টাকা দিতে না পারায় বা অস্বীকৃতি জানানোয় বিগত দিনে বিভিন্ন নির্বাচনে বেশ সুনামের সাথে দায়িত্ব পালনকারী অনেক সনদধারী আনসার সদস্যকে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে না এবার।

আনসার-ভিডিপি সূত্রে আরো জানা গেছে, সরকারি কাজে দায়িত্ব পালন করতে হলে সনদধারীদের নির্দিষ্ট উপজেলার বাসিন্দা হওয়ার প্রয়োজন নেই। জেলার যেকোনো একটি উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা হলে তিনি জেলার যেকোনো উপজেলায় সরকারি কাজে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আনসার ভিডিপি কার্যালয় কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলা থেকে টাকার বিনিময়ে সদস্য সংগ্রহ করে গ্রুপ ভিত্তিক দায়িত্ব বন্টন করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলার মুন্সীরহাট ইউনিয়নের ফেলনা গ্রামের সনদধারী আনসার সদস্য সরোয়ার আলম মোল্লা জানান, তিনি ২০১৯ সালে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আনসার-ভিডিপির সনদ পান। এরপর থেকে জাতীয় ও স্থানীয় বিভিন্ন নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। আসন্ন উপজেলা নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি ১৩ সদস্যের একটি গ্রুপের তালিকা উপজেলা আনসার-ভিডিপি কর্মকর্তা মুস্তাকিমুল হকের নিকট জমাও দেন। কিন্তু মুস্তাকিমুল হক তার কাছে প্রতিজনের জন্য ২ হাজার টাকা করে মোট ২৬ হাজার টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ওই গ্রুপটিকে নির্বাচনে দায়িত্ব পালনের জন্য তালিকাভুক্ত করতে অস্বীকৃতি জানান তিনি।

জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের সদসধারী আনসার আবু তাহের, চিওড়া ইউনিয়নের আবুল হাশেম, আমিনুল হক, ইসমাইল, শাহআলম, আলগমীর, শাহিন ও লিটন সহ অনেকেই জানান, ‘ইউনিয়ন আনসার কমান্ডার জনপ্রতি ১৫শ’ থেকে ২ হাজার টাকা চেয়েছেন। টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় এবার দায়িত্ব দিবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে ইউএনও এবং উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েও কোনো সুরাহা হয়নি। দায়িত্ব না দেওয়ায় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত যোগ্য ব্যক্তিরা বঞ্চিত হওয়ায় তাদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।’

আনসার ভিডিপির সনদধারী মুগ্ধ চক্রবর্তী, ইয়াকুব হোসাইন, আবদুল্লাহ, আফসার, তারিফা আক্তার, রুনা আক্তারসহ বেশ কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সনদ থাকলেও উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তাকে টাকা দিতে রাজী না হওয়ায় তাদেরকে তালিকাভুক্ত করা হচ্ছে না।

গত বৃহস্পতিবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আনসার-ভিডিপি কার্যালয়ে দেখা যায়, সনদধারী আনসার-ভিডিপি সদস্যরা কার্যালয়ে ভিড় করছেন। কর্মকর্তা মুস্তাকিমুল হক ব্যস্ততার অজুহাত দেখিয়ে অফিস সহকারী টিআই (প্রশিক্ষক) বশিরের সঙ্গে কথা বলতে পরামর্শ দেন। এ সময় সনদধারী বেশ কয়েকজনকে অফিস থেকে বের করে দেওয়ার ঘটনাও দেখা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা মুস্তাকিমুল হক বলেন, ‘টাকা নেওয়ার বিষয়টি সত্য নয়। প্রত্যেক গ্রুপের তালিকা জমা নিয়ে যাচাই শেষে চূড়ান্ত নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সনদধারী কেই বাদ পড়লে রোববারের মধ্যেই তাদেরকে অন্তর্ভূক্ত করা হবে।’

এ বিষয়ে আনসার-ভিডিপির কুমিল্লা জেলা কমান্ডার সাইদুল হক বলেন, ‘বিষয়টি জানতে পেরে আমলে নেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সনদধারী প্রত্যেক সদস্যই উপজেলা নির্বাচনে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন। যদি কোনো সনদধারী বাদ পড়ে থাকেন, তাকে অবশ্যই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে।’

চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে ফরোয়ার্ড করে দিয়েছি। টাকা নেওয়ার বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা আনসার ভিডিপি অফিসকে যথাযথ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সদনধারী কেউ দায়িত্ব প্রাপ্তি থেকে বাদ পড়বেনা।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2023 TechPeon.Com
ডেভলপ ও কারিগরী সহায়তায় টেকপিয়ন.কম